শুভাকাংখীদের হতাশ করে টাইগারদের চরম পরাজয়

nz.jpg

টেকনাফ টুডে ডেস্ক : বাংলাদেশকে পাত্তাই দিলো না ইংল্যান্ড। ওয়ানডে বিশ্বকাপে অ্যাডিলেড কিংবা চট্টগ্রামের সুখস্মৃতি যে আশার আলো জ্বালিয়েছিল, তা নিভে যায় মাঠের পারফরম্যান্সে। ব্যাটে-বলে হতাশা ছড়িয়েছেন মাহমুদউল্লাহ-সাকিবরা। কোনোরকমে ৯ উইকেটে ১২৪ রান করার পর বল হাতে সুবিধা করতে পারেনি বাংলাদেশ। জেসন রয়ের হাফ সেঞ্চুরিতে ১৪.১ ওভারে ২ উইকেটে ১২৬ রান করে ইংল্যান্ড। টানা দ্বিতীয় জয়টি তারা পেল ৮ উইকেটে। মালান ২৮ রানে আর জনি বেয়ারস্টো ৮ রানে অপরাজিত ছিলেন।

৫০তম টি-টোয়েন্টিতে ৩৮ বলে ৬১ রান করা জেসন ম্যাচসেরার পুরস্কার জিতেছেন।

শরিফুলের প্রথম বিশ্বকাপ উইকেট

বিশ্বকাপের অভিষেক ম্যাচে শরিফুল ইসলাম প্রথম উইকেট পেলেন। তার শিকার ইংল্যান্ডের ওপেনার জেসন রয়। ডেভিড মালানের সঙ্গে ৪৮ বলে তার ৭৩ রানের জুটি ভাঙেন মোহাম্মদ সাইফউদ্দিনের স্থলাভিষিক্ত এই বাঁহাতি পেসার। জেসন ৩৮ বলে ৫ চার ও ৩ ছয়ে ৬১ রান করে নাসুম আহমেদকে ক্যাচ দেন।

নাসুমকে ছক্কা মেরে ফিফটি জেসনের

নাসুম আহমেদকে ১২তম ওভারে ছক্কা মেরে হাফ সেঞ্চুরি করলেন জেসন রয়। ৩৩ বলে ৫ চার ও ২ ছয়ে সপ্তম টি-টোয়েন্টি ফিফটি উদযাপন করেন এই ওপেনার। তার সঙ্গে ক্রিজে ডেভিড মালান। ১২ ওভারে ১ উইকেটে ১০৪ রান ইংল্যান্ডের।

বোলাররাও সুবিধা করতে পারছেন না

নাসুম আহমেদ তার প্রথম ওভারে জস বাটলারকে আউট করলেও কোনো ধরনের ঝামেলা ছাড়াই লক্ষ্যে ছুটছে ইংল্যান্ড। ৯ ওভারে ৮৩ রান করেছে তারা ১ উইকেট হারিয়ে। জেসন রয়ের সঙ্গে উইকেটে ডেভিড মালান। ব্যাটসম্যানদের মতো বাংলাদেশের বোলাররাও সুবিধা করতে পারছেন না।

বাটলারকে ফিরিয়ে নাসুমের ব্রেক থ্রু

১২৫ রানের লক্ষ্যে নেমে আগ্রাসী ব্যাটিং শুরু করেন জস বাটলার ও জেসন রয়। ২৯ বলে ৩৯ রানের এই জুটি ভেঙে ব্রেক থ্রু আনলেন নাসুম আহমেদ। শ্রীলঙ্কারও উদ্বোধনী জুটি ভেঙেছিলেন তিনি। প্রথম ওভারেই সফল নাসুম। ১৮ বলে ১ চার ও ১ ছয়ে ১৮ রান করে লং অফে মোহাম্মদ নাঈমকে ক্যাচ দেন বাটলার।

১২৫ রানের লক্ষ্য দিলো বাংলাদেশ

যেভাবে শুরুতে টপাটপ উইকেট পড়ছিল, তাতে একশ করা নিয়েই সংশয় জেগেছিল। শেষ পর্যন্ত নাসুম আহমেদ ১৯তম ওভারে দুই ছয় ও এক চার মেরে সেটা দূর করেন। ৯ বলে ১৯ রানে অপরাজিত ছিলেন তিনি। শেষ ওভারের পঞ্চম বলে নুরুল হাসান সোহানের গ্লাভস ছুঁয়ে বল জস বাটলারের হাতে ধরা পড়ে। আম্পায়ার আউট না দিলে ইংল্যান্ড রিভিউ নিয়ে সিদ্ধান্ত পাল্টায়। শেষ বলে মোস্তাফিজুর রহমান বোল্ড হন টাইমাল মিলসের বলে।

এর আগে ৯৮ রানে বাংলাদেশ ৭ উইকেট হারায়। পাওয়ার প্লেতে লিটন দাস, মোহাম্মদ নাঈম ও সাকিব আল হাসান ২৬ রানের মধ্যে বিদায় নিলে মুশফিকুর রহিম ও মাহমুদউল্লাহর জুটিতে স্বস্তি ফিরছিল। কিন্তু মুশফিক ২৯ রান করে আউট হলে আবার ব্যাটিং দুর্দশার শুরু।

মাহমুদউল্লাহর ভুল কলে আফিফ হোসেন ইনিংস বড় করতে পারেননি। রান আউট হন দ্বিতীয় রান নিতে গিয়ে ফিরে আসার সময়। মাহমুদউল্লাহ (১৯) ব্যর্থ। মেহেদী হাসানও আউট হন একশর আগেই। পরে সোহান ও নাসুম মিলে ১৬ বলে ২৬ রান করলে দল সেঞ্চুরি অতিক্রম করে। বাংলাদেশ করে ৯ উইকেটে ১২৪ রান।

মিলস সর্বোচ্চ ৩ উইকেট নেন। লিভিংস্টোন ও মঈন দুটি করে উইকেট নেন।

নাসুমের শেষ দিকের ঝড়

মেহেদী হাসান আউট হওয়ার পর মাঠে নামেন নাসুম আহমেদ। তার ব্যাটেই ১৯তম ওভারে এসেছে বাংলাদেশের প্রথম ছয়। অবশ্য নিজের খেলা দ্বিতীয় বলেই আউট হতে বসেছিলেন তিনি। ওকস বল হাতের নাগালে পাননি। আদিল রশিদের ওই ওভারেই নাসুম দ্বিতীয় ছক্কা মারেন। ওই ওভার শেষ করেন চার মেরে। ১৯তম ওভারে ১৭ রান যোগ করে বাংলাদেশ। শেষ ওভারে নুরুল হাসান সোহান কট বিহাইন্ড হন জস বাটলারের কাছে। তার আউটের জন্য ইংল্যান্ডকে রিভিউ নিতে হয়েছে। ১৮ বলে ১৬ রান করেন উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান। মোস্তাফিজুর রহমান প্রথম বলেই বোল্ড হন।

দলের সেঞ্চুরির আগেই নেই ৭ উইকেট

৯৮ রানেই সপ্তম উইকেট হারাল বাংলাদেশ। টাইমাল মিলসের বলে ক্রিস ওকসকে শর্ট ফাইন লেগে ক্যাচ দেন মেহেদী হাসান। মাত্র ১১ রান করেন তিনি।

২০ রানও হলো না মাহমুদউল্লাহর

মাহমুদউল্লাহও দলকে পথে ফেরানোর দায়িত্ব নিতে পারলেন না। ১৯ রান করে লিভিংস্টোনের বলে ব্যাকওয়ার্ড পয়েন্টে ক্রিস ওকসের সহজ ক্যাচ হন। ২৪ বলে ১ চারে ১৯ রান করেন বাংলাদেশ অধিনায়ক।

মাহমুদউল্লাহর ভুল কলে রান আউট আফিফ

লিয়াম লিভিংস্টোনের বলটি বৃত্তের মধ্যে পাঠিয়েই মাহমুদউল্লাহ সিঙ্গেল নিলেন। টাইমাল মিলস নন স্ট্রাইক এন্ডে থ্রো করতে গিয়েও করলেন না। জস বাটলারের দিকে পাঠালেন। ততক্ষণে আফিফ দ্বিতীয় রান নিবেন কি না বুঝলেন না। তবে রান নিতে উদ্যত হওয়ার পর পর মাহমুদউল্লাহ নো কল করলেন। তাতেই দ্বিধান্বিত আফিফ ক্রিজের বাইরে গেলেন এবং বাটলার রান আউট করেন।

রিভার্স সুইপে শেষ মুশফিক

মাহমুদউল্লাহর সঙ্গে মুশফিকুর রহিমের জুটি জমে ওঠার আগেই ভেঙে গেল। রিভার্স সুইপ করতে গিয়ে লিয়াম লিভিংস্টোনের বল তার প্যাডে লাগে। আম্পায়ার তার আপিলে সাড়া দেননি। রিভিউ নেয় ইংল্যান্ড। তারাই জিতেছে। এলবিডব্লিউ মুশফিক, ৩০ বলে ৩ চারে ২৯ রান করে।

মুশফিক-মাহমুদউল্লাহর ব্যাটে স্বস্তি

মাহমুদউল্লাহ ও মুশফিকুর রহিমের ব্যাটে ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা চালাচ্ছে বাংলাদেশ। ২৬ রানে ৩ উইকেট হারানোর পর ক্রিজে জুটি গড়েছেন তারা। ১০ ওভার শেষে স্কোর ৬০ রান।

পাওয়ার প্লেতে হতাশ করল বাংলাদেশ

পাওয়ার প্লে কেমন কাটল বাংলাদেশের। মোটেও ভালো নয়। প্রথম ৬ ওভার ব্যাটিং করে ৩ উইকেট হারিয়ে ২৭ রান করেছে তারা। মঈন আলী ইনিংসের তৃতীয় ওভারে পর পর লিটন দাস ও মোহাম্মদ নাঈমকে ফেরান। ১৪ রানে ২ উইকেট হারানোর পরও সতর্ক হয়নি বাংলাদেশ। পাওয়ার প্লের শেষ ওভারে সাকিব আল হাসান হারান উইকেট।

৪ রানেই সাকিব প্যাভিলিয়নে

দুই ওপেনার দ্রুত বিদায় নেওয়ার পর দায়িত্বশীল ব্যাটিং প্রত্যাশা করা হচ্ছিল সাকিব আল হাসানের কাছ থেকে। কিন্তু পারলেন না নিজের কাজটা করতে। মাত্র ৭ বল খেলে ৪ রানে আউট তিনি। ক্রিস ওকসের বলে শর্ট ফাইনে আদিল রশিদের দুর্দান্ত ক্যাচ হন সাকিব।

এক ওভারে দুই ওপেনারের বিদায়

পর পর দুই বলে দুই ওপেনারের বিদায়ে জোরেশোরে ধাক্কা খেল বাংলাদেশ। নিজের দ্বিতীয় ওভারে মঈন আলী আউট করেছেন লিটন দাস ও মোহাম্মদ নাঈমকে। দ্বিতীয় বলে লিটন ধরা পড়েন ডিপ ব্যাকওয়ার্ড স্কয়ার লেগে লিয়াম লিভিংস্টোনের হাতে। পরের বলে বাজে ক্রিকেট খেলে মিড অনে ক্রিস ওকসের সহজ ক্যাচ হন নাঈম। ৭ বলে ৫ রান করেন এই ওপেনার।

দুটি চার মারার পর মঈনের শিকার লিটন

আগের ওভারের শেষ দুই বলে লিটন দাস টানা চার মারেন মঈন আলীকে। পরের ওভারে ইংল্যান্ড স্পিনারের খেলা প্রথম বলেই আউট তিনি। ৮ বলে ৯ রান করে আবারো ব্যর্থ ডানহাতি ব্যাটসম্যান।

লিটনের দুই চারে উড়ন্ত সূচনা

ইংল্যান্ডের বিপক্ষে লিটন দাস প্রথম ওভারের শেষ দুই বলে মঈন আলীকে টানা চার মেরেছেন। তাতে প্রথম ওভারেই উড়ন্ত সূচনা হয়েছে বাংলাদেশের।

শরিফুলের বিশ্বকাপ অভিষেক

ইংল্যান্ডের বিপক্ষে একাদশ নির্বাচন নিয়ে বৈঠকে লম্বা সময় কাটিয়েছে বাংলাদেশ টিম ম্যানেজমেন্ট। ইনজুরির কারণে আগের ম্যাচের একাদশ থেকে বদল আনা হয়েছে। পেসার মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন খেলছেন না ইংল্যান্ডের বিপক্ষে এই ম্যাচে। তার জায়গায় একাদশে সুযোগ পেয়েছেন শরিফুল ইসলাম। এই ম্যাচ দিয়ে তার বিশ্বকাপে অভিষেক হচ্ছে।

আগের ম্যাচের মতো এই ম্যাচেও দুই পেসার ও তিন স্পিনার নিয়ে খেলছে বাংলাদেশ।

ইনজুরিতে পড়া সাইফউদ্দিনের বিশ্বকাপ শেষ। আগের দিন অনুশীলনে ইনজুরিতে পড়েছিলেন উইকেটকিপার নুরুল হাসান সোহানও। তবে সেই চোট সমস্যা কাটিয়ে এই ম্যাচে খেলছেন সোহান।

বাংলাদেশ একাদশ: মোহাম্মদ নাঈম, লিটন দাস, সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ (অধিনায়ক), আফিফ হোসেন, নুরুল হাসান সোহান, মেহেদী হাসান, তাসকিন আহমেদ, মোস্তাফিজুর রহমান ও নাসুম আহমেদ।

টস জিতে ফিল্ডিংয়ে বাংলাদেশ

ইংল্যান্ডের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে সুপার টুয়েলভে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে টস জিতেছে বাংলাদেশ। মাহমুদউল্লাহ আগে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। আবু ধাবির আজকের উইকেটকে ব্যাটিং উপযোগী মনে করছেন বাংলাদেশ অধিনায়ক, ‘ব্যাট করার জন্য ভালো উইকেট, ভালো একটা স্কোর সংগ্রহ করতে চাই।’ ইংল্যান্ডের অধিনায়ক এউইন মর্গ্যান পরে ব্যাটিং পেয়ে খুশি, ‘আইপিএলে এখানে অনেক ম্যাচ খেলেছি, আগের মতোই উইকেট ভালো মনে হচ্ছে। নতুন খেলা, ভিন্ন চ্যালেঞ্জ এবং নতুন মাঠ।’

এখন পর্যন্ত দলটির বিপক্ষে কোনো টি-টোয়েন্টি ম্যাচই খেলেননি মাহমুদউল্লাহরা। চারটি ওয়ানডে বিশ্বকাপে বাংলাদেশ ইংল্যান্ডের মুখোমুখি হয়েছিল। তার মধ্যে চট্টগ্রাম ও অ্যাডিলেডে বাংলাদেশ জয় নিয়ে মাঠ ছেড়েছে। অ্যারাবিয়ান সাগরের দ্বীপ আবু ধাবিতে বাংলাদেশ সময় বিকাল ৪টায় মহারণে নামবে দুই দল। এবার আবু ধাবিতে চট্টগ্রাম-অ্যাডিলেড রূপকথার হাতছানি দিচ্ছে।

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন ওয়েস্ট ইন্ডিজকে উড়িয়ে দারুণ সূচনা করেছে ইংল্যান্ড। ইংলিশদের বিপক্ষে উইন্ডিজরা মাত্র ১৪.২ ওভারে অলআউট হয়ে যায় মাত্র ৫৫ রানে। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে যা তৃতীয় সর্বনিম্ন। টার্গেটে খেলতে নেমে ৮.২ বলে ইংল্যান্ড লক্ষ্যে পৌঁছে যায়, তবে তারা হারিয়ে ফেলে ৪টি উইকেট। ২১ থেকে ৩৯ রানের ব্যবধানে এই চারটি উইকেট হারায় ইংল্যান্ড। এখানেই সুযোগ দেখছেন বাংলাদেশের বোলিং কোচ ওটিস গিবসন।

আবু ধাবিতে এখন পর্যন্ত বিশ্বকাপের একটি ম্যাচ হয়েছে। অস্ট্রেলিয়া-দক্ষিণ আফ্রিকার ম্যাচটি ছিল লো-স্কোরিং। আগে ব্যাটিং করে ১১৮ রান করে দক্ষিণ আফ্রিকা। লক্ষ্যে পৌঁছাতে অস্ট্রেলিয়ার খেলতে হয় ১৯.৪ বল। উইকেট হারায় ৫টি। তুলোনামূলকভাবে এই মাঠের উইকেট একটু স্লো।

ইংল্যান্ডের ভয় সাকিব আল হাসান-নাসুম আহমেদদের বাঁহাতি স্পিন আর মোস্তাফিজুর রহমানের পেস নিয়ে। তবে বাংলাদেশকে ভাবতে হবে ইংলিশ স্পিন আক্রমণের দিকেও। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে মঈন আলী ও আদিল রশিদ নেন ৬ উইকেট। রশিদ ৪ উইকেট নেন মাত্র ২ রান দিয়ে।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

ইংল্যান্ড- ১৪.১ ওভারে ১২৬/২ (বেয়ারস্টো ৮*, মালান ২৮*; জেসন ৬১, বাটলার ১৮)

বাংলাদেশ- ২০ ওভারে ১২৪/৯ (নাসুম ১৯*; মোস্তাফিজ ০, সোহান ১৬, মেহেদী ১১, মাহমুদউল্লাহ ১৯, আফিফ ৫; মুশফিক ২৯, সাকিব ৪, নাঈম ৫, লিটন ৯)