জালিয়াপালংয়ে লাশবাহী খাটিয়া নেয়া হয় নৌকায়

received_831076494443410.jpeg

মুহাম্মদ হানিফ আজাদ : সরকারের নানা উন্নয়নে বদলে যাচ্ছে পুরো দেশ। এ উন্নয়ন কর্মযজ্ঞের ছোঁয়া লাগেনি উখিয়া উপজেলার জালিয়াপালং ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের সিকদার পাড়া ও গোরাইয়ার দ্বীপ এলাকায়। একটি কাঠের সাঁকো বা সেতুর অভাবে নৌকা নির্ভর জীবনযাপন পাঁচ হাজারের অধিক

যেখানে লাশবাহী অধিক মানুষের যাতায়াতের একটিমাত্র মাধ্যম নৌকা।

সোমবার (৩০ আগস্ট) এক হৃদয়বিদারক দৃশ্যের দেখা মিলে এ এলাকায়। কাঠের নৌকা দিয়ে রবিবার সড়ক দূর্ঘটনায় নিহত ছগির আহমদের লাশ ফায়ার মাধ্যমে জানা হয় খালের এপাড় থেকে ওপারে। ঝুঁকি নিয়ে কোনোমতে লাশ নিয়ে হাজির জানাযার উদ্দেশ্যে। লাশ আনার আগে ও পরে শত শত মানুষ খাল পার হয় মাত্র দুটি ডিঙি নৌকার সহায়তায় ।

এলাকাবাসীরা জানায়, স্বাধীনতার ৫০ বছর পেরিয়ে গেলেও অবহেলিত

উখিয়ার জালিয়াপালং ইউনিয়নের সিকদার পাড়া ও গোরাইয়ার দ্বীপ। এখানে এলাকায় হায় হয় হাজার মানুষের বাস। সারাদেশে উন্নয়নের ছোঁয়া লাগলেও গ্রাম দু’টিতে যাতায়াতের একমাত্র ভরসা ডিঙি নৌকা। স্থানীয় বাসিন্দা আবদুল হক জানান, বর্ষাকালে পানির প্রবল স্রোতে অসংখ্যবার নৌকা উল্টে গেছে। শত শত মানুষ জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সাঁতরে

খাল পার হয়ে। তিনি শত শত স্কুল-কলেজ পড়ুয়া শিক্ষার্থীদের দুর্ভোগ লাঘবে সেতু নির্মাণের দাবি জানান।

জালিয়াপালং ইউনিয়নের ২ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য, শামসুল আলম জানান, ব্রিজ না থাকায় নৌকা নিয়ে লাশ কবরস্থানে নিতে হয়ছে।
জালিয়াপালং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নুরুল আমিন চৌধুরী জানান, জনগণের চলাচলের সুবিধার্থে সেতু নির্মাণ করা হবে। আশা করি দ্রুত সময়ে এ দুর্ভোগ লাঘব হবে। এ ব্যাপারে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ

স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের (এলজিইডি) উপজেলা প্রকৌশলী রবিউল ইসলাম জানান, জালিয়াপালং ইউনিয়নের মানুষের দুর্ভোগ লাঘবে সব ধরনের পদক্ষেপ নেয়া হবে। উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় উন্নয়ন কর্মকান্ড চলমান বলে জানান তিনি।