হ্নীলা ইউনিয়নে ২০২১-২২ইং অর্থ বছরের উম্মুক্ত বাজেট সভা অনুষ্ঠিত

Teknaf-Pic-A-1-07-06-21.jpg

বিশেষ প্রতিবেদক : হ্নীলা ২নং ইউনিয়ন পরিষদে ২০২১-২০২২ইং অর্থ বছরের উম্মুক্ত বাজেট সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে সম্ভাব্য আয় ধরা হয়েছে ৩কোটি ৩৪লক্ষ ৯৮হাজার ৪শ ২০টাকা এবং সম্ভাব্য ব্যয় ধরা হয়েছে ৩কোটি ৩৪লক্ষ ৬৮হাজার ৪শ ২০টাকা। এতে ৩০হাজার টাকা উদ্বৃত্ত দেখানো হলেও শিক্ষাখাত ও আইনী সহায়তায় ব্যয় বাড়ানো এবং সড়কে রোহিঙ্গা টমটম চালকদের দৌরাত্ন্য কমিয়ে দমদমিয়া কেয়ারী জাহাজ ঘাট হতে টোল আদায়ের সুপারিশ করা হয়। এই বাজেট বাস্তবায়নে সর্বোচ্চ সহায়তাকারী হিসেবে রয়েছে বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থা হাইসাওয়া।

৭ জুন (সোমবার) সকাল ১১টায় টেকনাফের হ্নীলা ২নং ইউনিয়ন পরিষদ হলরোমে ২০২১-২০২২ইং অর্থ বছরের উম্মুক্ত বাজেট সভা ইউপি চেয়ারম্যান রাশেদ মাহমুদ আলীর সভা অনুষ্ঠিত হয়। ইউপি সচিব শেখ ফরিদুল আলমের সঞ্চালনায় এতে ১নং ওয়ার্ড মেম্বার বশির আহমদ, ৪নং ওয়ার্ড মেম্বার হোছাইন আহমদ, ৫নং ওয়ার্ড মেম্বার জামাল উদ্দিন, ৭নং ওয়ার্ড মেম্বার জামাল হোছাইন, ৮নং ওয়ার্ড মেম্বার নুরুল হুদা, ৯নং ওয়ার্ড মেম্বার মোহাম্মদ আলী, ১,২ ও ৪নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত মহিলা সদস্যা ফরিদা বেগম, ৩, ৫ ও ৬নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত মহিলা সদস্যা নাসরিন পারভীন কবির, ৭, ৮ ও ৯নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত মহিলা সদস্যা মর্জিনা আক্তার মদিনা, আনোয়ার, মাষ্টার এরশাদুর রহমান, গণ্যমান্য ব্যক্তি এবং ইউনিয়ন পরিষদের কর্মচারীগণ উপস্থিত ছিলেন।

ইউপি সচিব শেখ ফরিদুল আলম লিখিত বক্তব্যে জানান,অত্র ইউনিয়ন পরিষদের মানুষের জীবন-যাত্রার মান বিবেচনা করে ২০২১-২০২২ইং অর্থ বছরের বাজেটে আয়ের খাত হিসেবে নিজস্ব উৎস বসত-বাড়ির বাৎসরিক মূল্যের উপর চলতি বছরের কর, ব্যবসা, পেশা ও জীবিকার উপর কর, বিনোদন কর, পরিষদ কর্তৃক ইস্যুকৃত লাইসেন্স ও পারমিট ফিস, হাট-বাজার ইজারা বাবদ প্রাপ্তি, মটরযান ব্যতিত অন্যান্য যানবাহনের উপর কর লাইসেন্স ফিস, সম্পত্তি হতে আয়, উন্নয়ন খাত হতে কৃষি, স্বাস্থ্য ও পয়ঃ প্রণালী স্যানিটেশন,রাস্তা নির্মাণ-মেরামত,গৃহ নির্মাণ-মেরামত,এলজিএসপি, সংস্থাপন খাত হতে ইউপি চেয়ারম্যান, মেম্বার ও মহিলা মেম্বারদের ভাতা, সচিব ও অন্যান্য কর্মচারীদের বেতন-ভাতা, ভূমি হস্তান্তর কর, স্থানীয় সরকার সুত্রে জেলা-উপজেলা প্রদত্ত খাত ছাড়া অন্যান্য খাত হিসেবে জলবায়ু পরিবর্তন, অভিযোজন ও প্রাকৃতিক সম্পদ ব্যবস্থাপনা হতে ৩কোটি ৩৪লক্ষ ৯৮হাজার ৪শ ২০টাকা।
রাজস্ব সংস্থাপন ব্যয় হিসেবে ইউপি চেয়ারম্যান, মেম্বার ও মহিলা মেম্বারদেও বেতন-ভাতা, কর্মকর্তা ও অন্যান্য কর্মচারীদের বেতন-ভাতা,ট্যাক্স আদায়, যাতায়াত-ভ্রমণ ভাতাসহ আনুসাঙ্গিক, ষ্টেশনারী, ভিজিডি, ভিজিএফ, বিবিধ, বিদ্যুৎ বিল, উন্নয়ন ব্যয় হিসেবে কৃষি প্রকল্প, স্বাস্থ্য ও পয়ঃ প্রণালী, রাস্তা নির্মাণ, গৃহ নির্মাণ, শিক্ষা, ১% ভূমি হস্তান্তর কর এবং অন্যান্য ব্যয় হিসেবে এলজিএসপি প্রকল্প ব্যয়, নিরীক্ষা ব্যয়, পরিবার-পরিকল্পনা, পরিবহন, দরিদ্র তহবিল, নিজস্ব উন্নয়ন / প্রকল্প ব্যয়, জলবায়ু পরিবর্তন ক্ষতি প্রশমন ক্যারেল, এনজিও কর্তৃক রাস্তা নির্মাণ, বনায়ন ও নলকূপ স্থাপন এবং মা ও শিশু সুস্বাস্থ্যের লক্ষ্যে এলজিসি প্রকল্পের ১৫টি জীবন রক্ষাকারী আচরণ ব্যয়সহ মোট ৩কোটি ৩৪লক্ষ ৬৮হাজার ৪শ ২০টাকা ধরা হয়েছে। এতে বছর শেষে ৩০হাজার টাকা উদ্বৃত্ত দেখানো হয়।
এরপর উম্মুক্ত আলোচনায় অপরাপর সদস্যরা রোহিঙ্গা অটোরিক্সা ও টমটম চালকদের নিয়ন্ত্রণ এবং বিশেষ করের আওতায় আনার প্রস্তাব করা হয়। এছাড়া দমদমিয়া পর্যটক জেটিঘাটকে ট্যাক্সের আওতায় আনার প্রস্তাব করা হয়েছে।
সমাপনী বক্তব্যে ইউপি চেয়ারম্যান রাশেদ মাহমুদ আলী বলেন, সামনে যেহেতু নির্বাচন কার ভাগ্যে কি ঘটে বলা যায়না। তবে হ্নীলা ইউনিয়নের সর্বস্তরের মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনের লক্ষ্যে একটি সবাই মিলে গণমুখী এবং উন্নয়নশীল বাজেট বাস্তবায়ন দরকার বলে মনে করেন। ###