আইপিএল ৪র্থ আসর ; কলকাতা নাইট রাইডার্সের জয় দিয়ে মিশন শুরু

ipl-1.jpg

টেকনাফ টুডে ডেস্ক :
ব্যাটিংয়ে শেষটায় নেমে তেমন কিছু করতে পারেননি সাকিব আল হাসান। বোলিংয়ে প্রথম বলেই নেন উইকেট। কিন্তু ধরে রাখতে পারেননি ছন্দ। বাংলাদেশের এই অলরাউন্ডারের আইপিএলে ফেরার দিনে সানরাইজার্স হায়দরাবাদকে হারিয়েছে কলকাতা নাইট রাইডার্স।

চতুর্দশ আসরের তৃতীয় দিন রোববার নিজেদের প্রথম ম্যাচে কলকাতা জিতেছে ১০ রানে। ১৮৮ রানের লক্ষ্য তাড়ায় ডেভিড ওয়ার্নারের দল থামে ১৭৭ রানে।

একাদশে জায়গা পেতে সাকিবের জোর লড়াই চলছে সুনিল নারাইনের সঙ্গে। প্রথম রাউন্ডে জিতলেন সাকিব। কিন্তু ব্যাটে-বলে পারলেন না জায়গা পাকা করার মতো কিছু করতে।

নিষিদ্ধ হওয়ার আগে সাকিব খেলেছিলেন হায়দরাবাদে। গত মৌসুমে তাকে ছেড়ে দেওয়া দলটির বিপক্ষে সাতে নেমে ইনিংসের শেষ বলে আউট হন তিনি, ৫ বলে করেন ৩ রান।

পরে হাত ঘুরিয়ে ৪ ওভারে ৩৪ রান দিয়ে নেন একটি উইকেট।

চেন্নাইয়ের এমএ চিদাম্বরাম স্টেডিয়ামে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে নিতিশ রানা ও রাহুল ত্রিপাঠীর ঝড়ো ফিফটিতে বড় পুঁজি পায় কলকাতা। ৫৬ বলে ৪ ছক্কা ও ৯ চারে ৮০ রান করেন ওপেনার রানা। তিনে নেমে ২৯ বলে ৫ চার ও ২ ছক্কায় ৫৩ রান ত্রিপাঠীর।

পরপর দুই বলে দল দুই উইকেট হারানোর পর ১৮তম ওভারে উইকেটে যান সাকিব। ভুবনেশ্বর কুমারের স্লোয়ারে স্লগ করতে গিয়ে ক্যাচ দেন তিনি শেষ বলে। ৯ বলে ২২ রানে অপরাজিত ছিলেন দিনেশ কার্তিক।

বোলিংয়ে ইনিংসের তৃতীয় ওভারে সাকিবের হাতে বল তুলে দেন কলকাতার অধিনায়ক ওয়েন মর্গ্যান। বাঁহাতি স্পিনার সাফল্য পান প্রথম বলেই। কাট করতে গিয়ে ব্যাটে লেগে বোল্ড হয়ে যান ঋদ্ধিমান সাহা। এই ওভারে মাত্র ১ রান দিয়ে সাকিবের উইকেট একটি।

এর আগের ওভারে আরেক ওপেনার ওয়ার্নারকে কট বিহাইন্ড করেন প্রসিধ কৃষ্ণা। প্রথম তিন ওভারে ১১ রান তুলতেই দুই ওপেনারকে হারায় হায়দরাবাদ।

শুরুর ছন্দ অবশ্য ধরে রাখতে পারেননি সাকিব। পরের ওভারে তাকে ছক্কায় ওড়ান জনি বেয়ারস্টো, মনিশ পান্ডে মারেন চার। ওভার থেকে আসে ১২ রান। বাঁহাতি স্পিনারের পরের ওভারে ছক্কা হাঁকান মনিশও। এই ওভারে সাকিব দেন ১০ রান।

বেয়ারস্টো ও মনিশের ব্যাটে শুরুর ধাক্কা সামাল দেয় হায়দরাবাদ। ১২ ওভারে দলটির রান স্পর্শ করে শতরান। পরের ওভারে বেয়ারস্টোকে (৪০ বলে ৫৫) ফিরিয়ে ৯২ রানের জুটি ভাঙেন প্যাট কামিন্স।

১৪তম ওভারে বোলিংয়ে ফিরে সাকিব ছক্কা হজম করেন আরেকটি, এই ওভারে দেন তিনি ১১ রান।

শেষ দুই ওভারে হায়দরাবাদের দরকার ছিল ৩৮ রান। কামিন্সের করা ১৯তম ওভারে আব্দুল সামাদের দুই ছক্কায় ১৬ রান তুলে লড়াই জমে তুলেছিল তারা। কিন্তু শেষ ওভারে ২২ রানের সমীকরণ মেলাতে পারেনি। ৪৪ বলে ৩ ছক্কা ও ২ চারে ৬১ রানে অপরাজিত ছিলেন মনিশ।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

কলকাতা নাইট রাইডার্স: ২০ ওভারে ১৮৭/৬ (রানা ৮০, গিল ১৫, ত্রিপাঠী ৫৩, রাসেল ৫, মর্গ্যান ২, কার্তিক ২২*, সাকিব ৩; ভুবনেশ্বর ৪-০-৪৫-১, সন্দিপ ৩-০-৩৫-০, নাটরাজন ৪-০-৩৭-১, নবি ৪-০-৩২-২, রশিদ ৪-০-২৪-২, শঙ্কর ১-০-১৪-০)

সানরাইজার্স হায়দরাবাদ: (লক্ষ্য ১৮৮) ২০ ওভারে ১৭৭/৫ (ঋদ্ধিমান ৭, ওয়ার্নার ৩, মনিশ ৬১*, বেয়ারস্টো ৫৫; নবি ১৪, শঙ্কর ১১, সামাদ ১৯*; হরভজন ১-০-৮-০, প্রসিধ ৪-০-৩৫-২, সাকিব ৪-০-৩৪-১, কামিন্স ৪-০-৩০-১, রাসেল ৩-০-৩২-১, বরুণ ৪-০-৩৬-০)

ফল: কলকাতা নাইট রাইডার্স ১০ রানে জয়ী

ম্যান অব দা ম্যাচ: নিতিশ রানা।