চকরিয়ায় দুদকের হাতে উপজেলা সাব রেজিস্ট্রারসহ দুইজন গ্রেফতার ; ৬লাখ ৪২হাজার টাকা উদ্ধার

cha.jpg

এম.জিয়াবুল হক : চকরিয়া উপজেলা সাব-রেজিস্ট্রার অফিসে ঘুষ লেনদেনের অভিযোগে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) টানা ৮ ঘন্টা অভিযান চালিয়েছে। এসময় সাব-রেজিস্ট্রার কার্যালয় থেকে নগদ ৬ লাখ ৪২ হাজার ১’ শ টাকা উদ্ধার করা হয়েছে। অভিযান চলাকালে শ্যামল বড়ুয়া নামের একজন অফিস সহকারী বাউন্ডারি টপকে পালিয়ে যায় ।
অভিযানে গ্রেফতার করা হয়েছে চকরিয়া উপজেলা সাব-রেজিস্ট্রার মো: নাহিদুজ্জামান ও মোহরার দুর্জয় কান্তি পালকে। গ্রেপ্তারকৃত ও পলাতক তিনজনকে অভিযুক্ত করে মামলা করা হয়েছে। এই তিনজনের নিয়ন্ত্রণ থেকে ঘুষের টাকাগুলো পাওয়া গেছে বলে মামলার এজাহারে দাবী করা হয়।
গ্রেফতার হওয়া সাব-রেজিস্ট্রার নাহিদুজ্জামান নাটোর জেলার গুরুদাশপুর থানার উত্তর নাড়ি বাড়ির বাসিন্দা মোজাম্মেল হকের ছেলে এবং সাব রেজিস্ট্রার অফিসের মোহরার দুর্জয় কান্তি পাল কক্সবাজার সদর উপজেলার খুরুস্কুল এলাকার মধূরাম কান্তি পালের ছেলে ও পলাতক অফিস সহকারী শ্যামল বড়–য়া কক্সবাজার পৌরসভার মোজাহেরপাড়ার বাসিন্দা দ্বীনবন্ধু বড়–য়ার ছেলে।
বৃহস্পতিবার (১ এপ্রিল) সন্ধ্যা সাতটা থেকে রাত ২ টা পর্যন্ত অভিযান চালানো হয়। একপর্যায়ে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট উপজেলা সহকারী কমিশনার মোঃ তানভীর হোসেনকে সাথে নিয়ে সাব-রেজিস্ট্রারের বাসাতেও তল­াশী চালানো হয়। দুদক চট্টগ্রাম কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক রিয়াজ উদ্দিন অভিযানের তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
দুদকের অভিযান সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার সাব-রেজিস্ট্রার কার্যালয়ে বেশ কিছুদিন ধরে জমির দলিল সম্পাদনের সময় ঘুষের লেনদেন নিয়ে বেশকিছু অভিযোগ আসে। অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে দুদক চট্টগ্রাম কার্যালয় অভিযানে নামে। স¤প্রতি চকরিয়া উপজেলার চিরিঙ্গা ইউনিয়নের রশিদ আহমদ নামের এক ব্যক্তির দলিল রেজিস্ট্রেশনের জন্য সাব-রেজিস্ট্রারের নাম ব্যবহার করে এক কর্মচারী ঘুষ দাবি করেন।
দুদক কর্মকর্তারা ভুক্তভোগী অভিযোগকারী সেবাগ্র্রহীতাকে সাথে নিয়ে সাব-রেজিস্ট্রার কার্যালয়ে যান। পরে দুদক কর্মকর্তারা কার্যালয়টিতে অভিযান চালান। এ সময় সাব-রেজিস্ট্রার কার্যালয়ের প্রধান সহকারী ও অন্যান্য সহকারীর কাছ থেকে দুদকের টিম তিনটি স্থান থেকে ৬ লাখ ৪২ হাজার টাকা উদ্ধার করেছে।
অভিযানে নেতৃত্বে দেয়া দুদক চট্টগ্রাম কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক রিয়াজ উদ্দিন বলেন, চকরিয়া সাব-রেজিস্ট্রার কার্যালয় থেকে অভিযান চালিয়ে ৬ লাখ ৪২ হাজার টাকা জব্দ করা হয়েছে। তদমধ্যে সাব রেজিস্ট্রার মো. নাহিদুজ্জামানের ব্যবহৃত রেকর্ড রুমের স্টিলের লকারের প্রথম ড্রয়ার থেকে ১ লাখ ৯২ হাজার ৫৫০ টাকা, অফিস সহকারি শ্যামল বড়ুয়ার টেবিলের ড্রয়ার থেকে ২ লাখ ৮৯ হাজার ৫৫০ টাকা এবং অফিস মোহরার দুর্জয় কান্তি পালের ড্রয়ার থেকে ১ লাখ ৬০ হাজার টাকা পাওয়া গেছে।
তিনি বলেন, জব্দ করা টাকাগুলোর বিষয়ে তারা দুদককে সন্তোষজনক কোন ব্যাখ্যা দিতে পারেননি। টাকাগুলো তারা দলিল রেজিস্ট্রিকালে ঘুষ হিসেবে গ্রহন করেছেন। তাদের ড্রয়ার থেকে ঘুষ লেনদের হাতের লেখা ৪১টি স্লিপ জব্দ করা হয়েছে। ওই স্লিপে সাব-রেজিস্ট্রারসহ বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ঘুষ লেনদেনের তথ্য উলে­খ আছে।
দুদকের সহকারী পরিচালক বলেন, ঘুষ লেনদেন জড়িত থাকার অভিযোগে সাব-রেজিস্ট্রারসহ দুই জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এ ঘটনায় দুদক গ্রেপ্তারকৃত ও পলাতকসহ মোট তিনজনকে অভিযুক্ত করে শুক্রবার (২ এপ্রিল) দুপুরে চকরিয়া থানায় একটি মামলা রুজু করেছে। বিকাল পাঁচটা পর্যন্তও গ্রেফতারকৃত সাব রেজিস্ট্রার ও মোহরার চকরিয়া থানা হাজতে রয়েছেন বলে নিশ্চিত করেছেন চকরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাকের মুহাম্মদ যোবায়ের।
এদিকে বলাবলি হচ্ছে দুদকের অভিযান শুরু হওয়ার পর কৌশলে পালিয়ে যাওয়া শ্যামল বিপুল টাকা ও বেশ কিছু কাগজপত্র সাথে নিয়ে গেছেন।#