টেকনাফে প্রথম মালচিং পেপার দিয়ে গ্রীষ্মকালীন তরমুজ চাষ

milon-scaled.jpg

হুমায়ূন রশিদ : টেকনাফে এই প্রথম মালচিং পেপার দিয়ে গ্রীষ্মকালীন তরমুজ চাষ পদ্ধতি শুরু হয়েছে। এতে চাষী লাভবান হয়েছে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন।

১২মার্চ বিকালে টেকনাফ উপজেলা কৃষি অধিদপ্তরের উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা শফিউল আলম হ্নীলা দমদমিয়ায় চাষাবাদকৃত কুতুবদিয়া থেকে আগত জাদিমোরায় অবস্থানকারী কুতুবদিয়ার মোঃ নুরুজ্জামানের পুত্র মোঃ রুহুল কাদেরের টেকনাফে এই প্রথম মালচিং পেপার দিয়ে গ্রীষ্মকালীন তরমুজ চাষ পদ্ধতি পর্যবেক্ষণ করে বিভিন্ন প্রকারের শলা-পরামর্শ প্রদান করেন। টেকনাফে এই প্রথম নতুন পদ্ধতিতে এই ধরনের তরমুজ চাষে স্থানীয় কৃষকদের আগ্রহ ছড়াচ্ছে।

এই ব্যাপারে তরমুজ চাষী মোঃ রুহুল কাদের বলেন,আমি প্রথমে ইউটিউবে তরমুজের এই পদ্ধতির চাষ দেখে আকৃষ্ট হই। এরপর উত্তরবঙ্গ এগ্রোওয়ান ফার্মের কর্মকর্তাদের সাথে যোগাযোগ করে এই পদ্ধতির তরমুজ চাষে আগ্রহী হয়ে উঠি। এরপর গ্রীষ্মকালীন মৌসুমের জন্য সাড়ে ৩হাজার চারা সংগ্রহ করি। গত ২৪ ফেব্রুয়ারী চারা রোপন আরম্ভ করি। এরপর সময় স্বল্পতার কারণে সকালে রোপনকৃত কিছু চারা নষ্ট ক্ষতিগ্রস্থ হয়। বর্তমানে ১৭/১৮দিনের বয়সী চারাসমুহ হৃষ্টপুষ্ট আছে। আমি আশাকরি কোন দৈব-দূঘর্টনা না হলে ভাল ফলন পাব বলে আশাকরি।

এই ব্যাপারে উপজেলা উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা মোঃ শফিউল আলম জানান,এই ব্যক্তির আগ্রহের কথা শুনে আমরাও আনন্দিত হই। তাই উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সার্বিক সহায়তা ও পরামর্শ প্রদান করে উপজেলা এই প্রথম এই পদ্ধতিতে তরমুজ চাষে তাকে উৎসাহিত করি। এই চাষে ভাল ফলাফল আসলে পুরো উপজেলায় এই চাষ ছড়িয়ে দেওয়া হবে বলে আশ^স্ত করেন। ###