বাড়ি বাড়ি ঢুকে লুটপাট চালাচ্ছে সেনা-পুলিশ

image-398216-1614745853.jpg

অনলাইন ডেস্ক |
মিয়ানমারে অভ্যুত্থানবিরোধী বিক্ষোভ ঠেকাতে নানা কূটকৌশল করে আসছে পুলিশ। শুরু থেকেই চলছে গ্রেফতার অভিযান, বাড়ি বাড়ি তল্লাশি।
মিয়ানমারে অভ্যুত্থানবিরোধী বিক্ষোভ ঠেকাতে নানা কূটকৌশল করে আসছে পুলিশ। শুরু থেকেই চলছে গ্রেফতার অভিযান, বাড়ি বাড়ি তল্লাশি।

রাস্তায় শান্তিপ্রিয় বিক্ষোভকারীদের ওপর ছোড়া হচ্ছে রাবার বুলেট, জলকামান। এমনকি কখনো কখনো ছোড়া হচ্ছে সাউন্ড গ্রেনেড ও তাজা গুলি।

এবার বাড়ি বাড়ি ঢুকে হামলা, ভাঙচুর ও লুটপাট চালাচ্ছে সেনা-পুলিশ। নিরাপত্তা বাহিনীর এই অপতৎপরতা বিক্ষোভকারীদের জন্য নতুন আতঙ্কের সৃষ্টি করেছে।

দেশজুড়ে এসব ঘটনার বেশ কিছু ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে। দ্য ইরাবতী জানিয়েছে, বিক্ষোভকারীদের পাকড়াও করতে বাড়ি বাড়ি চিরুনি অভিযান চালাচ্ছে সেনা ও দাঙ্গা পুলিশ।

শুধু তাই নয়, গেট ভেঙে ঢুকে বাড়িতে ভাঙচুর, মারধর ও লুটপাট চালানো হচ্ছে। খবরে বলা হয়েছে, সর্বশেষ সর্বদক্ষিণের উপকূলীয় তানিনথারি রাজ্যের মিয়েক শহরে এমনই লোমহর্ষক ঘটনা ঘটেছে। সোমবার শহরটির একটি এলাকায় যৌথ অভিযান চালায় সেনা ও পুলিশের একটি দল।

এরপর বেশ কয়েকটি বাড়ি ভাঙচুর ও এর বাসিন্দাদের মারধর করে। এর মধ্যে এক গর্ভবতী নারীকেও বেদম প্রহার করা হয়েছে। সেই সঙ্গে তার বাড়িও লুট করা হয়েছে। শুধু তাই নয়, ওই বাড়ির এক কিশোরকে গুলি করা হয়েছে।

এই হামলার ঘটনার একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে। মিয়েক শহরের কোনো এক বাসিন্দার শেয়ার করা এই ভিডিওতে ওই গর্ভবতীকেও দেখানো হয়েছে। সেখানে তিনি বলছেন, সেনা ও পুলিশের ৩০ সদস্যের একটি দল তার বাড়িতে ঢুকে পড়ে এবং আসবাব সামগ্রী ভাঙচুর করে।

এ সময় তার মাথায়ও আঘাত লাগে। তিনি আরও জানাচ্ছেন, তার ঘর থেকে প্রায় চার লাখ কিয়াট ও একটি এটিএম কার্ড লুট করে নিয়ে গেছে পুলিশ।

দ্য ইরাবতী জানিয়েছে, শুধু একটা বাড়িতে নয়, মিয়েক শহরের অন্তত তিনটা ওয়ার্ডের বহু বাড়ির দরজা-জানালায় ভাঙচুর চালিয়েছে সেনা-পুলিশ। চালানো হয়েছে এলোপাতাড়ি গুলি।

শহরে সোয়েপিটান ওয়ার্ডের এক বাসিন্দা নাম গোপন রাখার শর্তে দ্য ইরাবতীকে বলেছেন, ‘৩০ সেনা ও পুলিশের দুটি দল আমাদের ওয়ার্ডে হঠাৎ প্রবেশ করে।

এরপর সামনে যা পায় তাই ভাঙচুর করে তারা। আমার বাড়ির কাছেই রাখা অন্তত ছয়টি মোটরসাইকেল ভাঙচুর করা হয়েছে। পুলিশ এক গর্ভবতীকেও মারধর করেছে এবং তার বাড়ি থেকে চার লাখ কিয়াট লুট করেছে।’

সেনা-সু চি আলোচনা চায় আসিয়ান : মিয়ানমারে শান্তি ফেরাতে দেশটির নেত্রী অং সান সু চি এবং সামরিক জান্তা মিন অং হ্লাইয়ের সরকারের মধ্যে আলোচনা চায় আসিয়ান। আলোচনার

মাধ্যমে সংকটের সমাধানের লক্ষ্যে সমঝোতার চেষ্টা চালাচ্ছে দক্ষিণপূর্ব এশিয়ার দেশগুলোর এই সংগঠন। বিষয়টি জান্তা সরকারের সঙ্গে আসিয়ান দেশগুলোর পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের শিগগিরই একটি ভার্চুয়াল বৈঠকে বসার কথা রয়েছে। খবর রয়টার্স।

ভয়াবহ সহিংস পরিস্থিতিকে শান্ত করতে এবং সেখানে রাজনীতিতে যে উত্তাল পরিস্থিতি তা মোকাবিলার জন্য একটি চ্যানেল খুুঁজতে দক্ষিণপূর্ব এশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা মঙ্গলবার বিশেষ বৈঠকে মিলিত হয়েছেন।

সোমবার সিঙ্গাপুরের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ভিভিয়েন বালাকৃষ্ণান বলেছেন, আলোচনায় আসিয়ানভুক্ত দেশগুলোর পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা খোলামেলা কথা বলবেন। ভিডিওকলের মাধ্যমে এই আলোচনা হওয়ার কথা।