উখিয়ায় সরকারি খাস জায়গা জবর দখল করে দালান নির্মাণ করা হচ্ছে !

IMG_20210225_202532-scaled.jpg

ফারুক আহমদ : উখিয়ায় সরকারি খাস জায়গা জবর দখল করে অবৈধ স্হাপনা নির্মাণ করা হচ্ছে বলে গুরুতর অভিযোগ উঠেছে। উপজেলার হলদিয়া পালংয়ে ধুরুমখালী মহাজনপাড়া গ্রামে সাধন চন্দ্র বড়ুয়া নামক এক ব্যক্তি সরকারি খাস জায়গা দালান ঘর নির্মাণ কে কেন্দ্র করে স্থানীয়দের মাঝে অসন্তোষসহ মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে।
জানা যায়, উপজেলার রাজা পালং, রত্নাপালং, হলদিয়াপালং, জালিয়াপালং ও পালংখালী ইউনিয়নের বিভিন্ন স্থানে শত শত একর খাস জমি রয়েছে। যা জবরদখল করে ব্যক্তিস্বার্থ ব্যবহার করা আইনগত সিদ্ধ নহে।
অভিযোগে প্রকাশ, হলদিয়া পালং ইউনিয়নের রুমখা পালং মৌজায় ১ নম্বর খতিয়ানের ৬১৯ নম্বর বিএস দাগে বিপুল পরিমাণ সরকারি খাস জায়গা রয়েছে।
অভিযোগে প্রকাশ ধুরুমখালী মহাজন’ পাড়ার মৃত কালা চান্দ বড়ুয়ার ছেলে সাধন চন্দ্র বড়ুয়া উল্লেখিত দাগের ২০ শতক সরকারি খাস জায়গা দীর্ঘদিন ধরে জবরদখল করে রাখে।
স্থানীয়রা জানান, গত মঙ্গলবার থেকে জোরপূর্বক ভাবে জবর দখলে রাখা সরকারি খাস জায়গার উপর দালান ঘর নির্মাণে কাজ শুরু করেছে। ইতিমধ্যে ইট সিমেন্ট ও লোহার রড সহ বিভিন্ন প্রকার নির্মাণ সামগ্রী মজুদ করেছে। নির্মাণ শ্রমিক দিয়ে ওই জায়গার উপর মাটি খনন কার্য শুরু করা হয়।
সচেতন নাগরিক সমাজের অভিমত, সরকারি খাস জায়গার উপর দালান ঘর নির্মাণ করা হলে সরকারের মূল্যবান সম্পত্তি বেহাত হয়ে যাবে। শুধু তাই নই এভাবে সরকারি খাস জায়গার উপর দালান নির্মাণ অব্যাহত থাকলে পার্শ্ববর্তী পড়ে থাকা সরকারি খাস জায়গা গুলো প্রভাবশালীর হাতে চলে যেতে পারে। তাই দ্রুত উচ্ছেদ অভিযান চালিয়ে সরকারি খাস জায়গা দখলমুক্ত করতে উপজেলা প্রশাসন কে এগিয়ে আসা উচিত বলে মনে করেন সুশীল সমাজ।
অনেকের সাথে কথা বলে জানা গেছে, সাধন চন্দ্র বড়ুয়া এমনিতে জায়গা সম্পত্তির মালিক। ১৯৭৮ নম্বর খতিয়ানে তার নামে ২ একরের অধিক জায়গা জমি রয়েছে । নিজের জায়গায় দালান ঘর নির্মাণ না করে সরকারি খাস জায়গায় দালান নির্মাণ করা বিষয়টি খতিয়ে দেখা উচিত।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয় গ্রামবাসীরা জানান সাধন চন্দ্র বড়ুয়া ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে জোরপূর্বক ভাবে সরকারি খাস জায়গা দখল করে রাখলেও সরকারি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ রহস্য জনক কারণে নিরব ছিল।
সরকারি জায়গায় অবৈধভাবে গড়ে উঠা অবৈধ স্হাপনা বা দালান ঘরে উচ্ছেদ অভিযান চালিয়ে সরকারি সম্পত্তি রক্ষা করার জন্য উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও সহকারী কমিশনার ভূমি’র হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন এলাকাবাসী।

####