চকরিয়ায় নদী-জলাশয়ে মাছ আহরণে নিষিদ্ধ জালের বিরুদ্ধে কম্বিং অপারেশন ; ১২ বিহিঙ্গী আগুনে ধ্বংস

Chakaria-Picture-14-01-21-2.jpg

নিজস্ব প্রতিবেদক : চকরিয়া উপজেলার বিভিন্ন পয়েন্টে মাছ আহরণে নিষিদ্ধ জালের ব্যবহার বন্ধে শুরু হয়েছে মৎস্য দপ্তরের বিশেষ কম্বিং অপারেশন। অভিযানে জব্দকৃত নিষিদ্ধ বেহুন্দিসহ ১২ টি জাল আগুনে পুড়িয়ে ধ্বংস করেছে মৎস দপ্তর। বৃহস্পতিবার (১৪ জানুয়ারী) সকাল ১১ টার সময় ডুলাহাজারা ইউনিয়নের মালুমঘাটস্হ রিংভং ফিশারীঘাটে সরকারীভাবে ঘোষিত নিষিদ্ধ জাল পুড়ানো হয়েছে।
উলে­খ্য, মৎস্য সম্পদ ধ্বংসকারী বেহুন্দি ও অন্যান্য ক্ষতিকর অবৈধ জাল নির্মূলে চকরিয়ায় বিশেষ কম্বিং অপারেশন-২০২১ বাস্তবায়নের পূর্বে শনিবার (৯ জানুয়ারী) সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়নে গিয়ে জেলেদের অবগতি ও সর্তকীকরণ মূলক মাইকিং করা হয়।
মাইকিংকালে চকরিয়া উপজেলার মৎস্য দপ্তরের ই.এ-শাহেদুল মোস্তফা ও ই.এ-মোঃ জাফর ইকবাল সঙ্গে ছিলেন, বাংলাদেশ ক্ষুদ্র মৎস্যজীবি জেলে সমবায় সমিতির, চকরিয়া উপজেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক জামাল উদ্দিন।
বিশেষ কম্বিং অপারেশন-২০২১ এর সর্তকীকরণ মূলক মাইকিংনের মাধ্যমে জেলেদেরকে জানিয়ে দেওয়া হচ্ছে, প্রথম ধাপ আগামী ১০জানুয়ারী থেকে ১৬ জানুয়ারী ও দ্বিতীয় ধাপ ২৫ জানুয়ারী থেকে ১ ফেব্রæয়ারী পর্যন্ত মোট ১৫ দিন এ অভিযান পরিচালিত হবে। বিশেষ কম্বিং অপারেশনের অপরাধ সমূহ গুরুত্বপূর্ণ বিষয় সমূহ হচ্ছে -বেহুন্দি খুঁটি জালের ব্যবহার সর্বোচ্চ জোয়ারে ১০ মিটার বা প্রায় ৩৩ ফুট গভীর জলাশয়ে সারা বছর নিষিদ্ধ। ১০মিটার অপেক্ষা গভীর সমুদ্রে ব্যবহৃত বেহুন্দি, খুঁটি জালের ফাঁস ৪.৫ সে.মি.অপেক্ষা বড় হতে হবে। যেকোন ফাঁসের কারেন্ট জালের ব্যবহার সারা বছর নিষিদ্ধ। যেকোন ধরণের টানা জাল, বেড়া জাল, মশারি জাল,চট জাল, কাঁথা জালের ব্যবহার সারা বছর নিষিদ্ধ।
মৎস্য সংরক্ষণ আইন-১৯৫০ অনুযায়ী শাস্তি,দন্ড হলঃ- মৎস্য আইন অমান্যকারী ১বার সর্বোচ্চ ১বৎসর সশ্রম কারাদন্ড অথবা সর্বোচ্ছ ২ হাজার টাকা জরিমানা।২য় দফায় আইন অমান্যকারী সর্বোচ্চ ২ বৎসর সশ্রম কারাদন্ড অথবা সর্বোচ্চ ৫ হাজার জরিমানা অথবা উভয় দন্ডে দন্ডিত হবে।
সতর্কতা মূলক বার্তা হচ্ছে-সকল প্রকার অবৈধ জাল ব্যবহার থেকে বিরত থাকুন।মৎস্য সম্পদ রক্ষায় সকল প্রকার নিষেধাজ্ঞা সঠিকভাবে মেনে চলুন।আপনার আশেপাশে কাউকে উক্ত নিষেধাজ্ঞা অমান্য করতে দেখলে নিকটস্হ উপজেলা মৎস্য অফিস,জেলা প্রশাসন,পুলিশ প্রশাসন বা কোষ্ট গার্ডকে খবর দিন।
সর্তকীকরণ মাইকিংয়ের সত্যতা নিশ্চিত করে চকরিয়া উপজেলার মৎস্য দপ্তরের ক্ষেত্র সহকারী জুনিয়র অফিসার সাইফুল­াহ বলেন,আমরা উপজেলা মৎস দপ্তর কর্তৃক ১৪ জানুয়ারী মালুমঘাট ফিশারীঘাট সংলগ্ন খালে অভিযান চালিয়ে সরকারীভাবে নিষিদ্ধ ১২ টি জাল জব্দ করে পুড়ানো ফেলেছি।কারণ ইতিপূর্বে জেলেদের অবগতির জন্য আমরা প্রচারণ চালিয়ে সর্তক করে দিয়েছি। তবু আদেশ অমান্য করে যেসব জেলেরা জাল বসালো তাদের জাল গুলো ধরে পুড়ানো হচ্ছে।এ অভিযান নিদিষ্ট সময় চলমান থাকবে।
এসময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা মৎস্য অফিসার বেনজির আহমদ, নৌ-পুলিশের এসআই আরমান সহ সঙ্গীয় ফোর্স ও অফিসের অন্যান্য কর্মকর্তা-কর্মচারী বৃন্দ।##