মনে আছে কী, ২৮ অক্টোবর দিনের লগি বৈঠা সন্ত্রাসের বিভীষিকা-বললেন কমরউদ্দিন আহমদ

Chakaria-Picture-28-10-20.jpg

নিজস্ব প্রতিবেদক, চকরিয়া :
২৮শে অক্টোবর,দেশের রাজনীতির ইতিহাসে একটি ঘটনাবহুল দিন। ২০০৬ সালের এই দিনে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল-বিএনপির সাথে জোটবদ্ধ জামায়াত ইসলামি এবং তাদের বিভিন্ন সহযোগি সংগঠন একটি ভয়ঙ্কর রাজনৈতিক সংস্কৃতি চালু করে। সেইদিন প্রতিবাদের নামে রাজপথে সাধারন নাগরিক ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ওপর সহিংসতা ও প্রাণঘাতী হামলা, ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের ওপর উদ্দেশ্যপ্রণোদিত হামলা ও তাদের বাড়িতে অগ্নিসংযোগ, রাজনৈতিক প্রতিপক্ষকে হত্যাসহ ইত্যাদি তা-ব চালায়। যার একটি নিখুঁত প্রমাণ আমাদের কাছে রয়ে গেছে ২৮শে অক্টোবরের কথা। সেইদিনের স্মতিচারণ করে বলেছেন লায়ন কমরউদ্দিন আহমদ। তিনি কক্সবাজার জেলা পরিষদ সদস্য। বর্তমানে দায়িত্ব পালন করছেন কক্সবাজার জেলা আওয়ামীলীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক পদে।
লায়ন কমরউদ্দিন আহমদ ২০০৬ সালের ২৮ অক্টোবরের স্মৃতিচারণ করে তাঁর ফেসবুক ফেইজের টাইম লাইনে একটি আবেগঘন অনুভূতি তুলে ধরেছেন। তাতে তিনি লিখেছেন, সেইদিনের ভয়ংকর এক অভিজ্ঞতার কথা। কেননা সেইদিন তিনি লগিবৈঠা সন্ত্রাসের মুখোমুখি হয়েছিলেন। তাদের হাতে আক্রান্ত হয়েছিলেন। রক্তাক্ত শরীর নিয়ে তিনি সেইদিন আওয়ামীলীগের প্রতিবাদ মিছিলে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন। লায়ন কমরউদ্দিন আহমদ বলেন, ২০০৬ সালের ২৮ অক্টোবর ২০০৬ সালের এই দিনে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল-বিএনপির সাথে জোটবদ্ধ জামায়াত ইসলামি এবং তাদের বিভিন্ন সহযোগি সংগঠন একটি ভয়ঙ্কর রাজনৈতিক সংস্কৃতি চালু করে। সেইদিন প্রতিবাদের নামে রাজপথে সাধারন নাগরিক ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ওপর সহিংসতা ও প্রাণঘাতী হামলা, ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের ওপর উদ্দেশ্যপ্রণোদিত হামলা ও তাদের বাড়িতে অগ্নিসংযোগ, রাজনৈতিক প্রতিপক্ষকে হত্যাসহ ইত্যাদি তা-ব চালায়।
সেইদিন তাদের সন্ত্রাসী কর্মকা-ের হাত থেকে রক্ষা পায়নি চকরিয়া-পেকুয়ার অসংখ্য আওয়ামীলীগের নেতাকর্মী। এমনকি সেইদিন আদর্শবান রাজনৈতিক ব্যক্তি কর্মী গড়ার কারিগর বর্তমান কক্সবাজার জেলা আওয়ামীলীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক আলহাজ্ব লায়ন কমর উদ্দিন আহমদও আক্রান্ত হয়েছিলেন। তিনি বলেছেন, সেইদিন লগি-বৈঠা ওয়ালরা সারাদেশে বিভিন্ন গণপরিবহনে, যথা বাস, ট্রাক, অটোরিক্সা, ইজিবাইকের যাত্রীদের উপর পেট্রোল বোমা হামলা চালায় এবং ককটেল আক্রমণ করে আওয়ামীগের বিভিন্ন নেতাকর্মী ও সাধারণ মানুষকে হত্যা করে।
লায়ন কমরউদ্দিন আহমদ বলেন, আমার সারাজীবনের রাজনীতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আর্দশে সোনার বাংলা গড়ার রূপকার বিশ^নেত্রী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করা। সেইদিন আমি মৃত্যুকে আলিঙ্গন করে দলের জন্য কাজ করছি। আওয়ামীলীগের প্রতিবাদ মিছিলে নেতাকর্মীদের নিয়ে অগ্রভাগে থেকেছি। সেইকারণে সেইদিন অপরাজনীতির নগ্ন হামলার শিকার হয়েছি। জীবনে আওয়ামীলীগ থেকে কিছুই চাওয়া পাওয়া ছিলনা এরপরও জননেএী শেখ হাসিনা এবং মেহনতী মানুষের কল্যাণে আমৃত্যু কাজ করে যেতে চাই।