এবার যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যস্থতায় যুদ্ধবিরতিতে আজারবাইজান-আর্মেনিয়া

azarbijan-war.jpg

টেকনাফ টুডে ডেস্ক : রাশিয়ার মধ্যস্থতায় দুই দফায় যুদ্ধবিরতিতে গিয়ে লঙ্ঘন করা আজারবাইজান ও আর্মেনিয়া এবার যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যস্থতায় নতুন করে যুদ্ধে বিরতি দিতে সম্মত হয়েছে।

বিবিসি জানিয়েছে, ‘মানবিক’ কারণে দেশ দুটি যুদ্ধবিরতিতে রাজি হয়েছে বলে মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, অনেক আলোচনার পর এই যুদ্ধবিরতিতে সম্মত হয়েছে উভয় দেশ। স্থানীয় সময় সোমবার থেকেই এটি কার্যকর করা হবে।

পরে আজারবাইজান, আর্মেনিয়া ও যুক্তরাষ্ট্রের সম্মিলিত এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘মানবিক যুদ্ধবিরতি’ সোমবার স্থানীয় সময় সকাল ৮ থেকে কার্যকর করা হবে।

যুক্তরাষ্ট্রের উপ পররাষ্ট্রমন্ত্রী স্টিফেন বিগান, আর্মেনিয়ান পররাষ্ট্রমন্ত্রী জোহরাব এমনাসাকানয়ান ও আজারবাইজানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জেইহুন বেইরামভের মধ্যে আলোচনা শেষে এই ঘোষণা আসে।

এর আগে ওয়াশিংটনে শুক্রবার যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেওর সঙ্গে আলোচনায় বসে যুদ্ধে বিবাদমান দেশ দুটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

যুদ্ধবিরতিতে সম্মত হওয়ায় অভিনন্দন জানিয়ে টুইট করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প, “অভিনন্দন আর্মেনিয়ান প্রধানমন্ত্রী নিকোল পাশিনিয়ান ও আজারবাইজানি প্রেসিডেন্ট ইলহাম আলিয়েভ, যারা মাত্রই যুদ্ধ বিরতিতে সম্মত হলেন। এর ফলে অনেক জীবন রক্ষা পাবে।”

বিতর্কিত ভূখণ্ড নাগার্নো-কারাবাখের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে ২৭ সেপ্টেম্বরে থেকে যুদ্ধে লিপ্ত সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নভুক্ত দুই দেশ আজারবাইজান ও আর্মেনিয়া। চার সপ্তাহের বেশি সময় ধরে চলা এই যুদ্ধে উভয় পক্ষের ব্যাপক প্রাণহানি ও ক্ষয়ক্ষতির খবর এসেছে।

চলতি মাসের শুরুতে রাশিয়ার মধ্যস্থতায় যুদ্ধবিরতিতে রাজি হলেও পরক্ষণেই তা অমান্য করে হামলা চালিয়ে যাচ্ছে উভয় পক্ষ।

নাগার্নো-কারাবাখ আজারবাইজানের মধ্যে অবস্থিত হলেও আর্মেনীয় নৃগোষ্ঠীর লোকজন অঞ্চলটি নিয়ন্ত্রণ করে আসছে। আর আর্মেনিয়া তাদেরকে সমর্থন দিচ্ছে। ১৯৯০ দশকে যুদ্ধের মধ্য দিয়ে অঞ্চলটি আজারবাইজান থেকে বিচ্ছিন্ন হলেও এই অঞ্চলটিকে স্বাধীন দেশ হিসেবে স্বীকৃতি দেয়নি কোনো দেশ।

অঞ্চলটি নিয়ে ৯০ এর দশকে থেকে আজারবাইজান ও আর্মেনিয়া বেশ কয়েকবার যুদ্ধে জড়ালে সেখানে প্রায় ৩০ হাজার মানুষের মৃত্যু হয়। তুমুল যুদ্ধের পর ১৯৯৪ সাল যুদ্ধ বিরতিতে ছিল দেশ দুটি।

বিরোধপূর্ণ নাগার্নো-কারাবাখ নিয়ে ২৭ সেপ্টেম্বর ফের যুদ্ধে জড়ায় আর্মেনিয়া-আজারবাইজান। ফের যুদ্ধে নামা নিয়ে উভয় পক্ষই একে-অপরকে দোষারূপ করছে।

এই যুদ্ধে আজারবাইজানকে সমর্থন দিচ্ছে প্রতিবেশী তুরস্ক। অন্যদিকে যুদ্ধ বন্ধ করতে আজারবাইজান ও আর্মেনিয়াকে আহ্বান জানিয়ে আসছে যুক্তরাষ্ট্র, রাশিয়া, ফ্রান্স, ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও ন্যাটোভুক্ত দেশগুলো।