চকরিয়া পৌর এলাকায় বসত-ভিটার জায়গা দখলে দিন-দুপুরে হামলা : নারীসহ আহত-৫

Chakaria-Picture-06-09-2020.jpg

এম.জিয়াবুল হক : চকরিয়া পৌর এলাকায় বসতভিটার জায়গা দখলে দিনদুপুরে হামলা করেছে প্রতিপক্ষের লোকজন। ওইসময় তাদেরকে বাঁধা দিতে গেলে মারধরে গুরুতর আহত হয়েছেন একই পরিবারের দুই নারীসহ ৫জন। রোববার (৬ সেপ্টেম্বর) দুপুর দুইটার দিকে চকরিয়া পৌরসভার ৫নং ওয়ার্ডের করাইয়াঘোনা এলাকায় ঘটেছে এ হামলার ঘটনা। আহতদেরকে তাৎক্ষনিক ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করে চকরিয়া উপজেলা সরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তদমধ্যে দুইজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদেরকে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেছে।
হামলায় আহতরা হলেন স্থানীয় করাইয়াঘোনা গ্রামের আবদুল গনীর ছেলে নুরুল হোছাইন (৫৫), তাঁর ভাই জসিম উদ্দিন (৫০), অপর ভাই আবদুল খায়ের (৪২), জসিম উদ্দিনের স্ত্রী মুর্শিদা খাতুন (৪৪), আবুল খায়ের এর স্ত্রী ফারজানা আইরিন (৩৬)। তাদের মধ্যে জসিম উদ্দিন ও তাঁর স্ত্রী মুর্শিদা খাতুনকে চমেক ভর্তি করা হয়েছে।
অপরদিকে হামলার এ ঘটনায় গতকাল রাতে চকরিয়া থানায় ৯জনকে আসামি করে একটি এজাহার জমা দিয়েছেন আহত গৃহকর্তা জসিম উদ্দিন। এজাহারে একই এলাকার মৃত আক্তার আহমদের ছেলে আজিম উদ্দিন, জাফর আলমের ছেলে মামুন, মোহাম্মদ মনু, মাঈন উদ্দিন, মৃত আবদুল কাদেরের ছেলে ছৈয়দ আহমদ, জাফর আলম, মৃত আবদুস ছত্তারের ছেলে আবদুল মান্নান, আজিম উদ্দিনের ছেলে জিশান ও হিরুকে বিবাদি করা হয়েছে।
আর্জিতে বাদি স্থানীয় আবদুল গনীর ছেলে আহত জাফর আলম জানান, চকরিয়া পৌরসভার করাইয়াঘোনা মৌজার আরএস ২৪ নং খতিয়ানের ২১৮ দাগের অধীন বিএস ১১৪ নং খতিয়ানের ৩৭২, ৩৭৩, ৩৭৪ ও ৩৭৬ দাগের মোট ২৮৫ কড়া বা ৯৫শতক জমির বৈধ দলিলপত্রমুলে মালিক তাঁর পরিবার। উল্লেখিত জমিতে পুর্বপুরুষের আমল থেকে অধ্যবদি কিছু অংশে বসতভিটা এবং কিছু অংশে দোকানপাট নির্মাণ করে বৈধভাবে শান্তিপুর্ণভাবে ভোগদখলে রয়েছেন তাঁরা।
ভুক্তভোগী জমি মালিক জাফর আলম ও তাঁর পরিবারের অভিযোগ, জমিতে বৈধ কোন ধরণের মালিকানা না থাকলেও অভিযুক্তরা চলচাতুরীর আশ্রয় নিয়ে বিএস রেকর্ড সৃজনের মাধ্যমে আমাদের জমি জবরদখলের জন্য দীর্ঘদিন ধরে অপচেষ্ঠা চালিয়ে আসছে। এরই প্রেক্ষিতে তাঁর পিতা আবদুল গনী বাদি হয়ে অভিযুক্ত পক্ষের চলচাতুরীর বিরুদ্ধে ২০০২ সালে সহকারি জজ আদালতে একটি অপর মামলা (নং ৬৫) দায়ের করেন। বর্তমানে মামলাটি আদালতে বিচারধীন রয়েছে।
বাদি জাফর আলম এজাহারে জানান, আদালতে মামলা করার পর থেকে আসামিপক্ষের লোকজন আরও ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে। প্রতিনিয়ত হুমকিতে দিতে থাকে। এভাবে তাঁরা চলে-বলে কৌশলে যে কোন উপায়ে জায়গা দখলের জন্য মরিয়া হয়ে উঠে। এরই জেরে সর্বশেষ রোববার দুপুর দুইটার দিকে বসতভিটার জায়গা দখলে হামলা করেছে প্রতিপক্ষের লোকজন।
ওইসময় বাঁধা দিতে গেলে হাতুড়ি পেঠা ও মারধরে আমার পরিবারের দুই নারীসহ পাঁচজনকে গুরুতর জখম করা হয়। আহতদের উদ্ধার করে চকরিয়া উপজেলা সরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হলেও তদমধ্যে দুইজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদেরকে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেছে।
অভিযোগ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে অপরপক্ষের আজিম উদ্দিন বলেন, করাইয়াঘোনা মৌজার উল্লেখিত ৯৫শতক জমি আমাদের ওয়ারিশী সম্পত্তি। মুলত জাফর আলম ও তাঁর পরিবার আমাদের সম্পত্তি জোরপুর্বক দখলে রেখেছেন। এ ঘটনায় চকরিয়া পৌরসভায় একটি মামলা বিচারধীন আছে।
তিনি অভিযোগ করে বলেন, জাফর আলম গং চকরিয়া পৌরসভার বিচারের রায় হবার আগে জমিতে অবৈধ স্থাপনা নির্মাণ করতে গেলে আমরা বাঁধা দিয়েছি। আমরা আমাদের সম্পত্তি ফিরে পেতে চাই। #