চকরিয়ায় রির্জাভ বনাঞ্চলের গর্জনগাছ কাটতে গিয়ে চাপা পড়ে যুবকের মৃত্যু

Chakaria-Picture-05-09-2020.jpg

এম.জিয়াবুল হক : চকরিয়া উপজেলার ডুলহাজারা ইউনিয়নে রাতের আঁধারে বনবিভাগের মাদারট্রি (গর্জন গাছ) কাটতে গিয়ে গাছের নিচে চাপা পড়ে আতিকুর রহমান (১৯) নামের এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। শুক্রবার রাতে একদল গাছ চোর সংঘবদ্ধ হয়ে ইউনিয়নের পূর্বডুমখালী এলাকায় বনবিভাগের মাদারট্রি গাছ কাটতে যায়।
স্থানীয় লোকজন ধারণা করছেন, রাতে যে কোন এক সময় গাছের নিচে চাপা পড়ে মারা যায় আতিক। এসময় আহত হয় নুরুল ইসলাম (১৮) নামে অপর এক যুবক। নিহত আতিক স্থানীয় ছাবের আহমদের ছেলে। আর নুরুল ইসলাম একই এলাকার আবদুর রশিদের ছেলে। এলাকাবাসি জানিয়েছেন, নিহত যুবক আতিক করোনা সংক্রমনের আগে বিদেশে চলে যাওয়ার কথা। ইতোমধ্যে তাঁর পার্সপোট, ভিসা সবকিছু চুড়ান্তও হয়েছে। কিন্তু করোনাকালের সংকটে পড়ে যথাসময়ে আর বিদেশ চলে যাওয়া হয়নি।
এলাকাবাসির দাবি, স্বভাবগত ভালো ছেলে আতিক। বাড়িতে বসে থাকতে থাকতে হঠাৎ বন্ধুদের খপ্পড়ে পড়ে রাতে বনাঞ্চলে গাছ চুরি করতে গিয়ে মর্মান্তিক দুর্ঘটনার বলি হয়েছে আতিক। এঘটনায় এলাকার লোকজনের মাঝে শোকের ছায়া নেমে এসেছে।
ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন কক্সবাজার উত্তর বনবিভাগের ফাসিয়াখালী রেঞ্জ কর্মকর্তা মাজহারুল ইসলাম। তিনি বলেন, শনিবার ভোরে ফাসিয়াখালী রেঞ্জের অধীন চকরিয়া উপজেলার ডুলাহাজারা ইউপির পূর্বডুমখালী এলাকার বনভুমি থেকে খবর পেয়ে দুইজনকে উদ্ধার করেন স্থানীয় লোকজন। পরে তাদেরকে স্থানীয় মালুমঘাট মেমোরিয়াল খ্রীষ্টান হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক আতিককে মৃত ঘোষনা করেন। আহত নুরুল ইসলামকে হাসপাতালে ভর্তি আছে।
চকরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. হাবিবুর রহমান বলেন, শনিবার বেলা ১১টার দিকে খবর পেয়ে মালুমঘাট খ্রীষ্টান হাসপাতালে সুরতহাল রিপোর্ট তৈরী শেষে লাশটি থানায় নিয়ে আনাা হয়। পরে অবশ্য অভিযোগ না থাকায় মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা হয়েছে।##