ভারতে একদিনেই ৫৫হাজারের অধিক করোনায় আক্রান্ত

Corona-Virus-scaled-1.jpg

টেকনাফ টুডে ডেস্ক : ভারতে কিছুতেই মহামারী করোনার লাগাম টেনে ধরা যাচ্ছে না। প্রতিদিনই লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা রোগীর সংখ্যা। শুধু তাই নয়, আগের রেকর্ডকে ছাপিয়ে প্রতিদিনই আক্রান্তের নতুন রেকর্ড তৈরি হচ্ছে দেশটিতে।

গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ৫৫ হাজারের বেশি এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে বলে জানিয়েছে দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। যা দেশটিতে এ পর্যন্ত করোনা আক্রান্তের সর্বোচ্চ রেকর্ড।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বরাতে ভারতের গণমাধ্যম এনডিটিভি জানিয়েছে, শুক্রবার দেশটিতে নতুন করে আরও ৫৫ হাজার ৭৮ জনের দেহে করোনাভাইরাস পজিটিভ শনাক্ত হয়েছে। একইদিনে মারা গেছে ৭৭৯ জন কোভিড-১৯ রোগী। বৃহস্পতিবার এ সংখ্যা ছিল অর্ধ লক্ষাধিক। শুক্রবার দেয়া হিসাবে সেই সংখ্যাও ছাড়িয়ে গেল।

এনডিটিভি আরও জানিয়েছে, দেশটিতে সংক্রমণের গতি এতোটাই অপ্রতিরোধ্য যে মাত্র ৩ দিনের মধ্যে সেখানে ১৫ লাখ থেকে ১৬ লাখেরও বেশি মানুষ করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। অবশ্য নমুনা পরীক্ষার মাত্রাও উল্লেখযোগ্য হারে বাড়িয়েছে দেশটি। শুধু বৃহস্পতিবার দেশজুড়ে ৬.৪২ লাখের বেশি মানুষের শরীরে থেকে নমুনা নিয়ে পরীক্ষা করা হয়, যা ছিল এখন পর্যন্ত সর্বোচ্চ।
এ সংখ্যা আরও বাড়িয়ে দৈনিক পরীক্ষার সংখ্যা দশ লাখে উন্নীত করার লক্ষ্যে কাজ করছে বলে জানিয়েছে ভারতের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়।

এদিকে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে, অনেক রাজ্য এবং কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল সেখানকার পরিস্থিতি পর্যালোচনা করে স্থানীয় পর্যায়ে লকডাউন আরও বাড়িয়ে দিয়েছে। মহারাষ্ট্র এবং তামিলনাড়ু উভয় রাজ্যের সরকারই ৩১ আগস্ট পর্যন্ত লকডাউন বাড়ানোর নির্দেশনা জারি করেছে।

ওড়িশার রাজধানী ভুবনেশ্বরেও লকডাউনের সময়সীমা ৩১ জুলাই পর্যন্ত বাড়িয়ে দেয়া হয়েছে। ৪ আগস্ট পর্যন্ত লকডাউন বাড়িয়েছে ত্রিপুরা রাজ্য।

আর্ন্তজাতিক জরিপ সংস্থা ওয়ার্ল্ডওমিটারসে দেয়া শুক্রবার বিকাল সাড়ে তিনটা পর্যন্ত দেয়া তথ্যানুযায়ী, ভারতে এখনও পর্যন্ত মোট শনাক্ত করোনা রোগীর সংখ্যা ১৬ লাখ ৪৩ হাজার ৫৪৩ জন। এখন পর্যন্ত প্রাণহানির সংখ্যাটা দাঁড়িয়েছে ৩৫ হাজার ৮১৭ জনে। সুস্থ হয়েছেন ১০ লাখ ৬০ হাজার। হাসপাতালে ও হোম কেয়ারে চিকিৎসাধীন ৫ লাখ ৪৭ হাজার ৭২৬ জন। এদের মধ্যে ৮ হাজার ৯৪৪ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।