টেকনাফের লেদায় অসহায় নারীর টমটম ছিনতাই করে নিয়ে গেল টাইগার গ্রুপ

ccccc.jpg

নিজস্ব প্রতিবেদক :
টেকনাফের লেদায় অসহায় এক নারীর টমটম ছিনতাইয়ের অভিযোগ উঠেছে টাইগার গ্রুপ নামে পরিচিত কয়েক যুবকের বিরুদ্ধে। এনিয়ে টমটম মালিক ঘটনার পরদিন স্থানীয় মহিলা মেম্বারের কাছে লিখিত অভিযোগ প্রদান করেন। শালিসে ছিনতাইয়ের ঘটনাটি প্রমানিত হলেও অভিযুক্তরা শালিসে হাজির না হওয়ায় রায় কার্যকর করতে না পেরে আদালতের আশ্রয় নিতে পরামর্শ দেন মহিলা মেম্বার মর্জিনা আক্তার।
অভিযোগ ও শালিস সূত্রে জানা যায়, লেদা পাড়া এলাকার গুলজার বেগম নিজ মালিকানাধীন একটি টমটম ভাড়া দিয়ে সংসার নির্বাহ করে আসছিলেন। গত ১২ই মে সন্ধার পর চালক নয়াপাড়া বিজিবি ক্যাম্পের পূর্ব পাশে টমটম গাড়ীটি রেখে নাতি খাইরুল আমিনকে পাহাড়ায় রাখেন।
এসময় দক্ষিণ লেদা এলাকার আব্দু শুক্কুরের ছেলে নুরুল ইসলাম, কালা মিয়ার ছেলে সোনা মিয়া, বাঘগুইল্লা, আবুল হোসাইনের ছেলে আব্দুল্লাহ ও ইমান হোসাইন খাইরুল আমিনকে ভয়ভীতি দেখিয়ে গাড়িটি ছিনতাই করে নিয়ে যায়। ছিনতাইকারীরা ১ লাখ ১০ হাজার টাকা দামের টমটম গাড়িটি জনৈক লালু ড্রাইভারের ছেলে রাশেদের কাছে ৪৭ হাজার টাকায় বিক্রি করে দেন।
পরদিন টমটমটি উদ্ধারের জন্য হ্নীলা ইউপির সংরক্ষিত মহিলা মেম্বার মর্জিনা আক্তারের কাছে লিখিত অভিযোগ দেন মালিক গুলজার বেগম।
গত ১৬ই মে শালিসে স্বাক্ষী প্রমানে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ছিনতাইয়ের অভিযোগ প্রমানিত হয়। কিন্তু অভিযুক্তরা শালিসে হাজির না হওয়ায় রায় কার্যকর করতে পারেননি তিনি। ফলে গত ১৯ মে শালিসের লিখিত রায় প্রদান করে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আদালতের আশ্রয় নিতে পরামর্শ দেন মহিলা মেম্বার।
অভিযুক্তরা এলাকায় টাইগার গ্রুপ নামে পরিচিত এবং এলাকায় সন্ত্রাসী প্রকৃতির বলে পরিচিত।
টমটম উদ্ধার ও ছিনতাইকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে প্রশাসন ও আইন শৃংখলা বাহিনীর সহায়তা কামনা করেছেন টমটম মালিক গুলজার বেগম।

এব্যাপারে অভিযুক্তদের সাথে যোগাযোগ করা সম্ভব না হওয়ায় বক্তব্য পাওয়া যায়নি।