কাকারা মুক্তিযোদ্ধা জহিরুল ছিদ্দিকী সড়কে গাইডওয়াল নির্মাণে কাজের উদ্বোধন

1.jpg

এম.জিয়াবুল হক : কক্সবাজার-১ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ জাফর আলম অবশেষে কথা রেখেছেন। তিনি নির্বাচনী গনসংযোগে প্রতিশ্রæতি দিয়েছিলেন আগামী একবছরের মধ্যে মাতামুহুরী নদীর ভাঙ্গন থেকে রক্ষাকল্পে চকরিয়া উপজেলার কাকারা ইউনিয়নের মুক্তিযোদ্ধা জহিরুল ইসলাম ছিদ্দিকী সড়কের অংশের গাইডওয়ালটি নির্মাণে প্রয়োজনীয় প্রদক্ষেপ নেবেন। প্রতিশ্রæতির আলোকে এমপি জাফর আলমের বরাদ্দে চকরিয়া উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অধিদপ্তরের অর্থায়নে এক কোটি টাকা ব্যয়ে অবশেষে মুক্তিযোদ্ধা জহিরুল ইসলাম ছিদ্দিকী সড়কের পাশ দিয়ে “মোক্তার মৌলভী বাড়ী হতে আশরাফুলের জমি” পর্যন্ত রাস্তার পাশে গাইডওয়াল নিমার্ণ প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন উদ্বোধন করা হয়েছে।
বুধবার (১২ ফেব্রæয়ারী) দুপুরে মুক্তিযোদ্ধা জহিরুল ইসলাম ছিদ্দিকী সড়কে উপস্থিত হয়ে গাইডওয়াল নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করেছেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি চকরিয়া-পেকুয়া আসনের সংসদ সদস্য ও চকরিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ জাফর আলম।
কাকারা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ শওকত ওসমানের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন চকরিয়া পৌরসভার মেয়র আলমগীর চৌধুরী, চকরিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি ছরওয়ার আলম, উপজেলা আওয়ামীলীগের প্রচার সম্পাদক আবু মুছা। উপস্থিত ছিলেন আওয়ামীলীগ নেতা ফুটবল কোচ নুরুল আবছার, কাকারা ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বার নাছির উদ্দিন নাসু, আওয়ামীলীগ নেতা রাশেদ, আবদুর রাজ্জাক, খোকা, নাছির সওদাগর, আরমান, রেজাউল। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে মোনাজাত পরিচালনা করেন তাজুল উলুম মাদরাসার শিক্ষক হাফেজ আলহাজ বশির আহমদ
উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এমপি জাফর আলম বলেছেন, নির্বাচনের সময় চকরিয়া-পেকুয়াবাসিকে প্রতিশ্রæতি দিয়েছিলাম জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতের পরশে উন্নয়নের মাধ্যমে চকরিয়া-পেকুয়া উপজেলাকে একটি আধুনিক নগরী হিসেবে গড়ে তুলবো। আমার স্বপ্ন আছে পরিকল্পিত উন্নয়নে চকরিয়া-পেকুয়াকে ঢেলে সাজানো হবে। বর্তমানে দুই উপজেলার প্রতিটি উন্নয়নের অভিন্ন কর্মসুচি চলছে। এসব উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ শেষহলে বদলে যাবে এলাকার দৃশ্যপট। উন্নয়ন কাজ এগিয়ে নিতে জনগনের সহযোগিতা চাই।
তিনি আরও বলেন, চকরিয়া-পেকুয়া উপজেলার উন্নয়নের পাশাপাশি চকরিয়া শহরকে যানজটমুক্ত মেগাসিটিতে রূপান্তর করা হবে। যানজট নিরশনে নির্মিত হবে আধুনিকমানের ফ্লাইওভার। দুই উপজেলার সাত লাখ মানুষের জানমালের নিরাপত্তা নিশ্চিতকল্পে বেঁড়িবাঁধ নির্মাণের মাধ্যমে নিরাপত্তা বেস্টনী তৈরী করা হবে। জনগনের আর্থিকভাবে সমৃদ্ধি অর্জনে চকরিয়া-পেকুয়াকে অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ার পরিকল্পনা চলছে। গ্রামীন জনপদের যোগাযোগ ব্যবস্থার আমুল পরিবর্তে সব ধরণের উন্নয়ন কাজ করা হবে।##