উন্নয়নের পাইপ লাইনে চকরিয়া পৌরসভা ; ১৬৬কোটি টাকার প্রকল্পের অগ্রগতি পরিদর্শনে জাইকা

c-6.jpg

এম.জিয়াবুল হক : পরিকল্পিত উন্নয়নে গ্রাম হবে শহর, শহরের সুবিধা নিশ্চিত হবে গ্রামে, আওয়ামীলীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দ্বিতীয় মেয়াদে সরকার গঠনের পর ঘোষনা দিয়েছিলেন দেশবাসির উদ্দেশ্যে। সেই ঘোষনার আলোকে শেখ হাসিনার সফল নেতৃত্বে বর্তমান সরকারের আমলে উন্নয়নের মহাসড়কে এগিয়ে চলছে বাংলাদেশ। দেশের প্রতিটি জনপদে লেগেছে উন্নয়নের ছোঁয়া। আর কক্সবাজার-১ আসনের এমপি ও চকরিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ জাফর আলমের সফল নেতৃত্বে বর্তমান সরকারের উন্নয়ন অভিযাত্রায় অপ্রতিরোধ্য গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে চকরিয়া-পেকুয়া উপজেলার প্রতিটি জনপদ।
একই সঙ্গে উন্নয়ন কর্মকাÐে পিছিয়ে নেই লক্ষাধিক মানুষের নগরী চকরিয়া পৌরসভা। বর্তমান মেয়র ও চকরিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সম্পাদক আলমগীর চৌধুরীর সফল নেতৃত্বে উন্নয়নের পাইপ লাইনে দৃশ্যমান অগ্রগতি হচ্ছে চকরিয়া পৌরসভার। বিশ^ব্যাংকের সহযোগিতায় স্থানীয় সরকার বিভাগের অর্থায়নে ৭৬ কোটি টাকা ব্যয়ে বর্তমানে ছোট-বড় ৩১টি উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ বাস্তবায়নের পথে এগিয়ে চলছে। আর এসব উন্নয়ন প্রকল্পের অগ্রগতি পরির্দশনে সর্বশেষ সোমবার (১১ ফেব্রæয়ারী) চকরিয়া পৌরসভার বিভিন্ন জনপদ পরির্দশন করেছেন বিশ^ব্যাংকের সহযোগি প্রতিষ্ঠান জাইকার উচ্চ পর্যায়ের একটি প্রতিনিধিদল।
জাইকার প্রতিনিধিদল চকরিয়া এসে পৌঁছালে তাদেরকে স্বাগত জানান চকরিয়া-পেকুয়া আসনের সাংসদ আলহাজ জাফর আলম ও চকরিয়া পৌরসভার মেয়র আলমগীর চৌধুরী। পরির্দশনে জাইকা প্রতিনিধি টিমে ছিলেন সাউথ এশিয়া ডিভিশন ৪ (বাংলাদেশ) সিনিয়র ডেপুটি ডিরেক্টর মিয়াহারা আই, একই ডিভিশনের (অর্থনৈতিক অঞ্চল উন্নয়ন,যোগাযোগ উন্নয়ন) রিপেজেন্টটেটিভ ওতারু ওসায়া ও সাউথ এশিয়া ডিভিশন ৪(বাংলাদেশ) এর প্রকৌশলী ওগুচি রিও। এসময় উপস্থিত ছিলেন চকরিয়া পৌরসভার সচিব মাস-উদ মোর্শেদ, প্যানেল মেয়র (১) বশিরুল আইয়ুব, কাউন্সিলর মছুদুল হক মধু, কাউন্সিলর রেজাউল করিম, কাউন্সিলর জাফর আলম কালু, কাউন্সিলর জিয়াবুল হক, কাউন্সিলর ফোরকানুল ইসলাম তিতু, কাউন্সিলর জামাল উদ্দিন, কাউন্সিলর মুজিবুল হক মুজিব, কাউন্সিলর নজরুল ইসলাম, চকরিয়া পৌরসভার প্রকৌশলী মুজিবুর রহমান, সহকারি প্রকৌশলী মৃনাল কান্তি ধর।
প্রকল্পের অগ্রগতি পরির্দশন শেষে জাইকা প্রতিনিধি টিমের সদস্যরা এদিন দুপুরে চকরিয়া পৌরসভার সম্মেলনকক্ষে মেয়র কাউন্সিলর ও কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় মিলিত হন। ওইসময় তাঁরা চলমান উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ দেখে সন্তোষ প্রকাশ করেন। পরবর্তীতে উদ্যোগ দেয়া উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ সমুহ স্বচ্ছতার মাধ্যমে সমাপ্ত করার নির্দেশনা দেন।
চকরিয়া পৌরসভার সচিব মাস-উদ মোর্শেদ বলেন, ইতোমধ্যে বিশ^ব্যাংকের এমজিএসপি প্রকল্পের অধীনে ৯০ কোটি টাকা বরাদ্দে চকরিয়া পৌরসভার একাধিক উন্নয়ন প্রকল্পের কাজের টেন্ডার কার্যক্রম সমাপ্ত হয়েছে। ইতোমধ্যে বেশ কটি উন্নয়ন প্রকল্পের কাজের সুচনা করা হয়েছে। ৯০ কোটি টাকা বরাদ্দে নতুন প্রকল্পের মধ্যে আছে চকরিয়া পৌরসভার বিভিন্ন ওয়ার্ডে আরসিসি সড়ক নির্মাণ, আধুনিকমানের ড্রেইন, কালভার্ট নির্মাণ, সড়কের উভয়পাশে লাইটিং বাতি স্থাপন, ছোট্ট শিক্ষার্থীদের জন্য আধুনিকমানের শিশু পার্ক নির্মাণ, সকলধরণের অনুষ্ঠান আয়োজনে উন্নতমানের একটি কমিউনিটি সেন্টার নির্মাণ প্রকল্প। এসব উন্নয়ন প্রকল্পের অগ্রগতি ও কাজের সম্ভাব্য স্থান পরির্দশনে সর্বশেষ সোমবার চকরিয়া পৌরসভায় এসেছেন জাইকার প্রতিনিধি টিম।
চকরিয়া পৌরসভার মেয়র আলমগীর চৌধুরী বলেন, ৭৬ কোটি টাকার চলমান উন্নয়ন প্রকল্পের কার্যক্রম পরির্দশন শেষে জাইকা প্রতিনিধি টিমের সঙ্গে ৯০ কোটি টাকা বরাদ্দে চকরিয়া পৌরসভার নতুন অবকাঠামোর উন্নয়ন প্রকল্প গ্রহন যেমন আরসিসি সড়ক নির্মাণ, আধুনিকমানের ড্রেন,কালভার্ট, লাইটিং, শিশু পার্ক,কমিউনিটি সেন্টার, সলিট ওয়েষ্ট ম্যানেজমেন্ট, পানি সরবরাহ, কমিউনিটি ক্লিনিক স্থাপন ছাড়াও অনেকগুলো প্রকল্পের বিষয়ে মতবিনিময় সভায় খোলামেলা আলোচনা হয়েছে।
মেয়র আলমগীর চৌধুরী বলেন, নির্বাচনের সময় পৌরবাসির কাছে আমার প্রতিশ্রæতি ছিল, পরিকল্পিত উন্নয়নের মাধ্যমে চকরিয়া পৌরসভাকে একটি স্বপ্নের মেগাসিটি হিসেবে রূপান্তর করবো। পৌরবাসি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি আস্থা রেখেছেন, আমাকে বিজয়ী করেছেন। আমি জনগনের আস্থার প্রতিদান দিতে পৌরবাসির সেবা নিশ্চিতে নিরলশভাবে কাজ করে যাচ্ছি।
অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি এমপি জাফর আলম বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সফল নেতৃত্বাধীন বর্তমান আওয়ামীলীগ সরকারের চলমান উন্নয়ন অগ্রগতির সুফল পেতে চলেছে চকরিয়া-পেকুয়া উপজেলার সর্বস্তরের জনসাধারণ। ইতোমধ্যে দুই উপজেলার প্রতিটি জনপদে এগিয়ে চলছে ছোট-বড় একাধিক উন্নয়ন প্রকল্প। বাস্তবায়নের পথে এগিয়ে চলছে তিনটি মেগাপ্রকল্পের কাজ। তারমধ্যে দ্রæতগতিতে চলছে ছয়লেনে নতুন মাতামুহুরী সেতু নির্মাণ কাজ। আলোর পথে উদিয়মান হচ্ছে রেললাইন নির্মাণ প্রকল্পের অধীন চকরিয়া উপজেলা অংশের কাজ। পুরোদমে শুরু হয়েছে ৫৭ কোটি টাকা বরাদ্দে বরইতলী শান্তিবাজার, জিদ্দাবাজার মানিকপুর ইয়াংছা সড়ক নির্মাণ কাজ। সমাপ্তির পথে রয়েছে ২৫ কোটি টাকা বরাদ্দের বিপরীতে একশত সয্যায় উন্নীত চকরিয়া উপজেলা সরকারি হাসপাতালের নির্মাণ কাজ।
তিনি বলেন, সরকারের উন্নয়ন অগ্রগতির অংশহিসেবে মেয়র আলমগীর চৌধুরীর নেতৃত্বে পৌর পরিষদ বিশ^ব্যাংকের অর্থায়নে এমজিএসপি প্রকল্পের অধীনে ৭৬ কোটি টাকা ব্যয়ে বর্তমানে চকরিয়া পৌরসভার ৯টি ওয়ার্ডে পরিকল্পিত উন্নয়নে প্রতিটি এলাকাকে সাজাচ্ছেন। সম্প্রতি সময়ে একই প্রকল্পের অধীনে ৯০ কোটি টাকা বরাদ্দে নতুন একাধিক প্রকল্পের টেন্ডার হয়েছে। মুলত এসব নতুন প্রকল্পের সম্ভাব্যতা যাছাই বাছাই করতে ও চলমান প্রকল্পের অগ্রগতি পরির্দশনে এসেছেন জাইকা প্রতিনিধি টিম। আশাকরি ধারাবাহিক উন্নয়ন কর্মকাÐের ফলে অল্পসময়ের মধ্যে পৌরবাসির মাঝে শতভাগ নাগরিক সেবা নিশ্চিত হবে। #