হ্নীলা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ফরহাদ বিপূল পরিমাণ ইয়াবা ও চায়নিজ পিস্তলসহ আটক

A-M-scaled.jpg

টেকনাফ টুডে ডেস্ক : টেকনাফে বিজিবি জওয়ানেরা অভিযান চালিয়ে বিপূল পরিমাণ ইয়াবা, চাইনিজ পিস্তল ও বুলেটসহ হ্নীলা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদককে আটক করেছে। এদিকে প্রশাসনের অভিযানে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের পদ-পদবী ব্যবহার করে এখনো অনেক মাদক কারবারী মুখোশের আড়ালে রয়ে গেছে বলে বিভিন্ন সুত্র থেকে অভিযোগ রয়েছে।
সুত্র জানায়, ৪ ডিসেম্বর রাত পৌনে ৭টারদিকে টেকনাফ ২বিজিবি ব্যাটালিয়নের লেদা বিওপির হাবিলদার অমলের নেতৃত্বে একটি বিশেষ টহল দল লেদা পুরাতন বাজারের ‘লেদা স্পোর্টিং ক্লাবে’ অভিযান চালিয়ে ৮০ হাজার পিস ইয়াবা, ১টি চাইনা পিস্তল ও ৩রাউন্ড গুলিসহ পশ্চিম লেদার মৃত আমির হোসেনের পুত্র, লেদা স্টুডেন্ট ওয়েল ফেয়ার এসোসিয়েশনের সাংগঠনিক সম্পাদক, হ্নীলা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মোত্তালিব ওরফে মোঃ ফরহাদ (২১) কে আটক করে। উদ্ধারকৃত অস্ত্র এবং ইয়াবাসহ ধৃত এই হ্নীলা ইউনিয়ন ছাত্রলীগ নেতাকে টেকনাফ ২বিজিবি ব্যাটালিয়ন সদর দপ্তরে প্রেরণ করা হয়েছে। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করে পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া হতে পারে।
এই ব্যাপারে বিজিবির পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিক কোন ধরনের বক্তব্য পাওয়া যাযনি।
উক্ত বিষয়ে টেকনাফ উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সোলতান মাহমুদের নিকট জানতে চাইলেও এই বিষয়ে তিনি অবগত নন তাই কিছুই বলতে পারছেন না বলে জানান।
এদিকে স্থানীয় জনসাধারণের মধ্যে মাদক বিরোধী সুশীল সমাজের লোকজন মনে করেন সরকারের মাদক বিরোধী অভিযান সাফল্যের পথে থাকলেও হঠাৎ করে টেকনাফের বিভিন্ন অঞ্চলের ইয়াবা বহনকারী আটকের ঘটনায় হঠাৎ মাদকের অপতৎপরতা বৃদ্ধি পাওয়ায় জনমনে চরম ক্ষোভ দেখা দেয়। এরপর বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের পদ-পদবী ব্যবহার ও কতিপয় জনপ্রতিনিধিসহ বিভিন্ন পেশার মুখোশধারীদের সাথে মাদক কারবারীদের গোপন আতাঁতের কারণে আকস্মিক মাদকের তৎপরতা বেড়ে যায়। যা সর্বস্তরের মানুষের মধ্যে উদ্বেগের কারণ হয়ে দাড়ায়। তাই যারা মাদকে সম্পৃক্ততার অভিযোগে অভিযুক্ত ছিল এখনো আতœারক্ষার জন্য আড়ালে গিয়েও অপতৎপরতা বন্ধ করেনি তাদের সনাক্ত করে আইনের আওতায় আনার দাবী উঠেছে।