হ্নীলায় ডাকাত জামাল আহতের জেরধরে পরিজনের অব্যাহত হুমকিতে সাধারণ মানুষ উদ্বিগ্ন

unnamed-file-scaled.jpg

বার্তা পরিবেশক : হ্নীলায় রাতের আধাঁরে দূবৃর্ত্ত হামলায় ছুরিকাঘাত হয়ে চিকিৎসাধীন থাকা হত্যা মামলার আসামী, অস্ত্রবাজ ও এলাকার আতংক হিসেবে পরিচিত জামাল ডাকাত আহত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।
গত ২৮ অক্টোবর রাত সাড়ে ৭টারদিকে উপজেলার হ্নীলা পশ্চিম লেদায় স্থানীয় রোহিঙ্গা দূবৃর্ত্ত চক্রের হাতে স্থানীয় মৃত হায়দর আলীর পুত্র ডাকাত জামাল (৪০) ছুরিকাঘাত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। এই ঘটনার সুত্রধরে ডাকাত জামালের স্ত্রী ফাতেমা, ছেলে হামিদ হোছন (২১),দেলোয়ার হোছন (২০), পূর্ব লেদার আমির হোছন প্রকাশ হেজা মিয়ার পুত্র আব্দুল আমিন (২৭) মিলে এই ঘটনার জন্য মামলা ও জমিজমা বিরোধ, আধিপত্য বিস্তার এবং দীর্ঘদিন ধরে গ্রæপিংয়ে জিইয়ে থাকা লোকজনের উপর হামলা এবং মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানির হুমকি-ধমকি দিয়ে বেড়াচ্ছে। যা এই জামালের দীর্ঘদিনের প্রতিপক্ষসহ সাধারণ মানুষের মধ্যে মিথ্যা মামলায় হয়রানির আশংকা লক্ষ্য করা যাচ্ছে।
এদিকে স্থানীয় জনসাধারণের ভাষ্যমতে,এই জামাল একজন স্বশস্ত্র সন্ত্রাসী প্রকৃতির ব্যক্তি। সে বিভিন্ন স্থানে মারামারী, জবর-দখল এবং অপহরণ ও মুক্তিপণ আদায়ের মতো ঘটনায় সম্পৃক্ত থাকত। এলাকায় জামাল ও তার পরিবারের সদস্যরা ত্রাস হিসেবে পরিচিত। কথায় কথায় কাটাকাটি ও মারামারীর মতো ঘটনায় সংশ্লিষ্ট থাকে। হয়তো সে ঐদিন রোহিঙ্গা অপরাধী চক্রের সাথে কোন কিছু ছিনিয়ে এনে ভাগ-বাটোয়ারায় গরমিল হয়ে এই ধরনের নৃশংস ঘটনা ঘটে থাকতে পারে বলে ধারণা করছে। আর সে এই বিষয়টিকে পুঁজি করে এক গুলিতে সব পাখি মারার মতো সকল শত্রæদের উপর হামলা, মিথ্যা মামলায় জড়িয়ে হয়রানির বিষয়টি প্রচার করে এলাকায় আতংক সৃষ্টি করছে। এতে সাধারণ মানুষ হয়রানির আশংকা দেখা দিয়েছে। তার এই ধরনের সন্ত্রাসী ও এক গুয়েমী মনোভাবের কারণে স্থানীয় লোকজনের পাশাপাশি পাশর্^বর্তী সাধারণ রোহিঙ্গারাও তার ভয়ে আতংকে থাকেন। তাই বলে এই ঘটনাকে পুঁজি করে ঐ জামালের বিরুদ্ধে থাকা সকল লোকজনকে বিভিন্নভাবে হয়রানি কোনমতে সমর্থনযোগ্য নয়।
পুরো লেদার সর্বস্তরের লোকজন জামাল ডাকাতের উপর হামলার ঘটনায় যাতে নিরীহ, নির্দোষ এবং সাধারণ মানুষ হয়রানির সম্মুখীন না হয়ে সেই ব্যাপারে আইন-শৃংখলা বাহিনীর কঠোর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। ###