porno izle sex hikaye
corum surucu kursu malatya reklam

৮ দিন পর কোরআন সঙ্গে নিয়ে যাওয়া সেই মহাকাশচারী ফিরলেন

image-231604-1570960241.jpg

: কোরআন সঙ্গে নিয়ে মহাকাশ সফরে গিয়েছিলেন হাজ্জাজ আল মানসুরি। ইতিহাসে নাম লেখিয়েছেন এই আরব্য যুবক।

প্রথম আরবীয় হয়ে মহাকাশ ভ্রমণে গেলেন হাজ্জাজ।

অবশেষে আটদিনের মহাকাশ সফর শেষে পৃথিবীতে পা রাখলেন সংযুক্ত আরব আমিরাতের প্রথম মহাকাশচারী হাজ্জাজ-আল মানসুরি। খবর গালফ নিউজের।

শনিবার তাকে আমিরাতের রাজধানী আবু ধাবিতে লাল গালিচা সংবর্ধনা দিয়ে স্বাগত জানান আবু ধাবির ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন জায়েদ আল নাহিয়ান।

দেশের প্রথম নভোচারীকে এক পলক দেখতে সেদিন বিমানবন্দরে ভিড় জমায় অসংখ্য মানুষ।

লালগালিচার দু’পাশে লাইন ধরে নারী, পুরুষ, শিশুরা হাজ্জাজ আল মানসুরিকে স্বাগত জানায়।
শুধু তাই নয় ফুলের পালক ছিড়ে হাজ্জাজের ওপর বর্ষণ করে শিশুর। অনেক শিশু ফুলের তোড়া নিয়ে মানসুরির কাছে দৌঁড়ে গিয়ে তাকে জড়িয়েও ধরেন। এসময় হাজ্জাজের সম্মানে কিছু মানুষকে দেশটির ঐতিহ্যবাহী ইয়োলা নাচ প্রদর্শন করেন।

এর আগে সংযুক্ত আরব আমিরাতের প্রভাবশালী দৈনিক গালফ নিউজ জানিয়েছিল, দেশটির জাতীয় পতাকার সঙ্গে মহাকাশে পবিত্র কোরআনের একখণ্ড পাণ্ডুলিপি নিয়ে গেছেন আল মানসুরি।

সে সময় আন্তর্জাতিক স্পেস স্টেশনের বরাত দিয়ে সংবাদমাধ্যমটির প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, মহাকাশ সফরে ১০ কেজি পণ্য বহন করতে পারবেন হাজ্জাজ আল মানসুরি। সে হিসাবে কোরআনের একখণ্ড পাণ্ডুলিপি, পারিবারিক ছবি, খাঁটি সিল্কে বোনা আরব আমিরাতের পতাকা, ‘কিসাতি’ (আমার গল্প) নামক একটি গ্রন্থ, শায়খ জায়েদ বিন সুলতান আল নাহায়ানের ছবি এবং ‘আল গাফ’ গাছের ৩০টি বীজ মহাকাশে নিয়ে যাচ্ছেন এই আরবীয় নভোচারী।

সংযুক্ত আরব আমিরাতের ‘মোহাম্মদ বিন রশিদ স্পেস সেন্টারের’ সহকারী মহাপরিচালক সালেম আল মেরি বলেন, ‘সংযুক্ত আরব আমিরাতের প্রথম মহাকাশ নভোচারী হলেন হাজা আল মানসুরি। এটিই প্রথম আমাদের মহাকাশ কর্মসূচি। আমরা সফল হয়েছি। মহাকাশ ভ্রমণে সংযুক্ত আরব আমিরাত ১৯তম দেশ হিসেবে এখন গর্ব বোধ করতেই পারে।’

নাসার একটি সূত্র জানিয়েছে, ২০২১ সালের মধ্যে মঙ্গলগ্রহে মনুষ্যবিহীন যান পাঠানোর পরিকল্পনা রয়েছে আরব আমিরাতের।

Top
bahis siteleri