মনখালী মেরিন ড্রাইভের পাশে মরা গরুর দুর্গন্ধ : পথচারীদের দুর্ভোগ দেখার কেউ নেই!

2.jpg

আজিজ উল্লাহ : উখিয়া মনখালী মেরিনড্রাইভের পশ্চিম পাশে সাগর থেকে ভেসে আসা মরা গরুর দূর্গন্ধে দম বন্ধ হওয়ার উপক্রম হচ্ছে পদচারীদের।মরা গরুটি ফুলে পঁচে গলে পুরা এলাকা দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে ফলে মেরিনড্রাইভে ভ্রমণ পিপাসুদের চলাচলের অসুবিধাসহ এলাকার পরিবেশ নষ্ট হচ্ছে।

গরুটি মাটিতে ফুতে ফেলা গেলে অসহনীয় দুর্গন্ধ থেকে চলাচলের সময় পদযাত্রীদের দুর্গন্ধ থেকে পরিত্রাণ মিলবে।গরুটি এখনো পুরা গলে যায়নি, বিশাল আকৃতির দেহ মাত্র পচঁতে শুরু করেছে।চার পা উচুঁ করে মুখ তুবড়ে পড়ে আছে সাগর পথে ভেসে আসা গরুটি।পচেঁ গবাদিপশুর মাংস হাড় থেকে ঝড়ে পড়ার আগে পুঁতে ফেলা গেলে অসহনীয় দম বন্ধ হওয়ার উপক্রম থেকে পথচারীদের চলাচলের অসুবিধা দূর করা যেতে পারে বলে জানান কয়েকজন পথচারী।গরুর শরীর থেকে সিংহভাগ মাংস পঁচে গলে মাটির সাথে মিশে য়াওয়ার আগে গর্ত খুঁড়ে মাটিতে চাপিয়ে দেয়া গেলে দুর্গন্ধ থেকে পরিবেশ রক্ষা পাবে।গরুটি গত দু-চারদিন ধরে পড়ে থাকলেও ফুতে ফেলাতে কেহ এগিয়ে আসেনি গরুটি।

জানা যায়,গেলো কোরবানির ঈদের আগে নাফ নদীতে মায়েনমার থেকে গরু বোঝাই করা বোট ডুবে পানিতে তলিয়ে গেলে বোঝাইকৃত বোট থেকে বিশ-ত্রিশটি গরু নাফনদীতে ডুবে মরা যায়,সেখান থেকে জোয়ারের পানির স্রোতে পড়ে নাফনদী মোহনা হয়ে বঙ্গোপসাগরে ভেসে গিয়ে সাগরের বিভিন্ন তীরে মরা গরুর লাশ উঠে যায় সেই রকম জোয়ারের পানিতে ভেসে মনখালী খাল হয়ে মেরিনড্রাইভের সংলগ্নে এই স্থানে এই মরা গরুটি আসে বলে এলাকা সূত্রে এমটা জানা গেছে।

এই ব্যাপারে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি মোঃ মূসার সাথে মোবাইলে যোগাযোগের চেষ্টা করে তার বক্তব্য পাওয়া যায় নি।