‘অলসতা’ যেন না হয় সফলতার অন্তরায়

Saiful-tek.jpg

সাইফুল ইসলাম : ‘অলসতা’ নামক শব্দটি ব্যক্তিগত বা জাতীয় জীবনে সফলতার পথে বড় ধরনের অন্তরায়। এই অলসতার গন্ডি থেকে কোন মানুুষ বা জাতি খুব সহজে বেরিয়ে আসতে পারেনা। জীবনের সবটুকু সময়কে একটু একটু হজম করে ফেলতে বেশ পারদর্শী এই অলসতা নামক মহা মারাত্নক ব্যধিটি। যদি কাউকে একবার পেয়ে বসে,তখন তার জীবনটাকে অকর্মণ্যতা ভরে দেয় ও অমনোযোগী করে তুলে সবসময়।

অলসতা জীবনটাকে এমনভাবে আকড়ে ধরে যেন, কোন কাজে সহজে মন বসতে চায় না। মানুষের কিছু করার আগ্রহকে গলা চেপে ধরে এই অলসতা। সবসময় মনের মধ্যে কুপ্রবৃত্তির উদ্ভব ঘটায়। প্রবাদ আছে,’অলস মস্তিষ্ক শয়তানের কারখানা’।

অতএব ব্যক্তি,সমাজ ও রাষ্ট্রীয় জীবনে সফলতা আনতে চাইলে এই নীরব ঘাতক রোগের ভয়াবহ আক্রমন থেকে অলসতার পরিমান শূন্যের কৌটায় নামিয়ে না আনা পর্যন্ত আমাদেরকে এই রোগ কখনো ব্যক্তিগত ও সামাজিক ভাবে প্রতিষ্ঠিত হতে দেবে না। আজকের কাজকে আগামীদিনের জন্য ফেলে রাখা আমাদের এক ধরনের অলসতা। যা আমরা সকলেই প্রায় করে থাকি। সকাল সকাল ঘুম থেকে উঠলে শরীর ও মন যে ভালো থাকে তা আমাদের সকলের জানা। যেকোন ধরনের কাজ করার জন্য পর্যাপ্ত সময়ও পাওয়া যায়। তবুও অনেকে আমরা সকালে ঘুমভাঙ্গার পরও বিছানার সাথে সখ্যতা বাড়ায় যা আরেক ধরনের অলসতা।

সুতরাং অলসতা যেকোন ধরনের মুখোশ পরে আসুক না কেন,আমাদের উচিত হবে,তাকে পাশ কাটিয়ে আমাদেরকে নিদিষ্ট লক্ষ্যের দিকে অবিরাম যাত্রা অব্যাহত রাখা। তাই অলসতাকে আমরা কখনো বা কোনদিনও আমাদের ব্যক্তিগত,সামাজিক ও রাষ্ট্রীয় জীবনে অগ্রযাত্রায় অন্তরায় হতে দেব না। ————সাইফুল ইসলাম,