উখিয়ায় পিতা-পুত্রকে কুপিয়েছে সন্ত্রাসীরা

Pic-Ukhiya-09-08-2019.jpg

ফারুক আহমদ : উখিয়ার হলদিয়া পালংয়ের বক্তাতলি গ্রামে সন্ত্রাসীরা ধারানো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে রক্তাক্ত করেছে পিতা-পুত্রকে। আহতরা হলেন ছেলে জয়নাল আবেদীন (২৫) ও পিতা সিরাজুল ইসলাম (৫০)। তৎমধ্যে জয়নাল আবেদীনের অবস্থা আশংকা জনক। মাথার মারাত্বক আঘাত হওয়ায় তিনি বর্তমানে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে । ঘটনাটি গঠেছে শুক্রবার (০৯ আগষ্ট) দুপুরে।
জানাযায়, উপজেলার হলদিয়া পালং ইউনিয়নের পাগলিরবিলস্থ বক্তাতলী গ্রামের মৃত শামসু মাস্টারের ছেলে সিরাজুল ইসলাম তার দখলীয় পৈত্রিক জমিতে চাষাবাদ করে আসছিল। গতকাল শুক্রবার জমি চাষ দিয়ে ধানের চারা রোপন করার সময় স্থানীয় প্রতিপক্ষগং দেশীয় তৈরি ভারি অস্ত্র নিয়ে তাদের উপর হামলা চালায়।
গ্রামবাসীরা জানায়, দুপুরে ১০/১২জন লাঠিয়ালবাহিনী ধারালো কিরিস, দা, লাঠি ও লোহার রড নিয়ে অতর্কিত অবস্থায় হামলা চালায় পিতা পুত্রের উপর। এসময় সন্ত্রাসী লাঠিয়ালবাহিনীরা ধারালো অস্ত্র দিয়ে একের পর এক এলোপাতাড়ি কুঁপিয়ে পিতা সিরাজুল ইসলাম ও পুত্র জয়নাল আবেদনীকে মারাত্বক জখম করে। এদিকে স্থানীয় জনগণ চিৎকার শুনে এগিয়ে এসে রক্তাক্ত অবস্থায় পিতা পুত্রকে উদ্ধার করে প্রথমে উখিয়া হাসপাতাল পরে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে ভর্তি করায়। তৎমধ্যে চিকিৎসাধীন জয়নালের অবস্থা আশাংকাজনক বলে জানিয়েছেন, কর্তব্যরত চিকিৎসক।
আহত সিরাজুল ইসলাম অভিযোগ করে বলেন, একই এলাকার মেহের আলী ও তার পুত্র জাহাঙ্গীর, আলমগীর, খোরশেদ আলম ও রহিম আলীর নেতৃত্বে একদল সন্ত্রাসী পরিকল্পিতভাবে আমাকে ও আমার পুত্রকে হত্যা করার কু-উদ্দেশ্যে ন্যাক্কারজনক ভাবে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুঁপিয়েছে।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষরা লাঠিয়াল ও সন্ত্রাসী বাহিনী নিয়ে দিনদুপুরে বর্বরোচিত হামলা চালায়।
বিষয়টি স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও থানা পুলিশকে অবহিত করা হয়েছে। এ ব্যাপারে সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করার প্রস্তুতি নিচ্ছে বলে আহত পরিবারের সদস্যরা জানিয়েছেন।