টেকনাফে মাদক ব্যবসায়ীদের হামলায় এক নারী আহত ; স্বর্ন-অলংকার লুট,বসত বাড়ী ভাংচুর

44.jpg

বার্তা পরিবেশক : টেকনাফ হ্নীলা রঙ্গিখালী এলাকায় মাদক কারবারে জড়িত, মাদকাসক্ত সন্ত্রাসীদের হামলার শিকার হয়েছে এক নারী। সংঘটিত এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে হামলার শিকার হওয়া সাদিয়া ইয়াছমিন পপি (২০) নামে এক নারী ৬ জনকে অভিযুক্ত করে টেকনাফ মডেল থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছে।
অভিযোগ সুত্রে জানা যায়,১৬ জুলাই মঙ্গলবার বিকাল ৪টার দিকে পুর্ব শত্রুতার জের ধরে বিবাদী-একই এলাকার ইউনুছের পুত্র মোঃ ইয়াছিন (২৩), মমতাজ হোসেনের পুত্র সোনা মনি (২৫), মোস্তাক আহাম্মদের পুত্র নুরুল আলম(৩০), মৃত নুর মোহাাম্মদের পুত্র লিটন (২৮),মৃত রহম বশুর পুত্র মোঃ শরিফ (৩৫),নবী হোসেনের পুত্র হায়াত হোসেন (৪০) সহ ৬/৭ জন সন্ত্রাসী কায়দায় বাদীর বসত বাড়িতে আসিয়া অভিযোগকারীকে বিনা কারনে বেপরোয়া গালিগালাজ করতে থাকে। এরপর তাদেরকে গালমন্দ না করার জন্য নিষেধ ও বাধা প্রদান করলে বিবাদীরা আরো বেশী ক্ষিপ্ত হয়ে বাদী সাদিয়ার উপর হামলা করে এলোপাতাড়ী কিল,ঘুষি,এবং হত্যার উদ্দেশ্যে লাঠি দিয়ে মাথায় আঘাত করে এবং পিটিয়ে শরীরের বিভিন্ন অংশে গুরুতর জখম করলে সাদিয়া গুরুতর আহত হয়।
এরপর বাদীর চিৎকারে ঘরে থাকা তার মা লায়লা বেগম (৬৫) বোন খুরশিদা (২৩) এগিয়ে আসলে আসামীরা তাদেরকেও কিল ঘুষি মেরে সবাইকে গুরুতর আহত করে।একপর্যায়ে আশে পাশের লোকজন এগিয়ে আসলে বিবাদীরা ভয়ভীতি প্রদর্শন করে যাওয়ার সময় আহত নারীর কানের দুল ও গলায় থাকা স্বর্নের চেইন নিয়ে পালিয়ে যায়।
এব্যপারে অভিযোগকারী ও হামলার শিকার হওয়া নারী সাদিয়া আরো বলেন,হামলা কারীরা অত্র এলাকার চিহ্নিত মাদক কারবারী,মাদকাসক্ত ও সন্ত্রাসী কার্যক্রমে জড়িত।
থানা সুত্রে জানা যায়,হামলার শিকার হওয়া সাদিয়া ইয়াছমিন বাদী হয়ে একটি অভিযোগ দায়ের করেছে।সঠিক তদন্তের মাধ্যমে অভিযুক্ত অপরাধীদের বিরুদ্ধে আইনী ব্যবস্থা গ্রহন করবে পুলিশ।#####