porno izle sex hikaye
corum surucu kursu malatya reklam

মারোত ১৬তম মানসিক রোগী স্বজনের মাঝে হস্তান্তর করল

received_466471354106767.jpeg

বার্তা পরিবেশক : জামালপুর জেলার মানসিক ভারসাম্য হীন আয়নাল হক দীর্ঘ আট বছর আগে হারিয়ে গিয়েছিল পরিবারের কাছ থেকে। কিছুদিন আগে টেকনাফ উপজেলার নোয়াপাড়ায় একটি মসজিদের কাছে এক মানসিক ভারসাম্য হীন রোগী বসে কান্না করছে। বিষয়টি স্থানীয় মুসল্লী নুরুল ইসলাম এর দৃষ্টি গোচরে আসে। বিষয়টি মানষিক রোগীদের তহবিল মারোত এর কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি বাবু ঝুন্টু বড়ুয়া র নিকট উপস্থাপন করা হলে বিষয়টি তিনি ঐ ভিকটিম এর সাথে আলাপ করে। পরে মারোত এর মাধ্যমে ফেইসবুক পেইজ “মানসিক রোগীদের তহবিল ” এ বিষয় নিয়ে পোস্ট দেয়া হয়। এতে বিষয়টি জামালপুর জেলার দেওয়ানগঞ্জ উপজেলার দক্ষিণ গামারিয়ায় অবস্থানরত লোকজনের মাধ্যমে পরিবারের দৃষ্টি গোচরে আসে। পরিবারের সদস্যরা মারোত নেতৃবৃন্দ এর সাথে যোগাযোগ করলে পরিচয় নিশ্চিত হন। গত ১৫ ই জুন শনিবার বিকেলে পরিবারের সদস্যরা মারোত নের্তৃবৃন্দ এর সাথে সুদূর জামালপুর থেকে টেকনাফ এসে স্বশরীর যোগাযোগ করলে পরিবারের সদস্যদের সাথে মানষিক ভারসাম্যহীন আয়নাল হকের দেখা হলে এক আবেগঘন পরিবেশের সৃষ্টি হয়। আইনগত আনুষ্ঠানিকতার জন্য টেকনাফ মডেল থানায় অবহিতকরনের মাধ্যমে থানা কম্পাউন্ডে অনারম্ভর অনুষ্ঠানে র মাধ্যমে হস্তান্তর প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা হয়। মারোত সহসাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ মোবারক হোসাইন এর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সভায় সভাপতিত্ব করেন সংঘটনের সভাপতি আবু সুফিয়ান। এতে অন্যান্যের মাঝে উপস্থিত ছিলেন সংগঠন এর প্রধান উপদেষ্টা অধ্যাপক সন্তোষ কুমার শীল, উপদেষ্টা সাইফুল ইসলাম, সহসভাপতি পল্লী চিকিৎসক ঝুন্টু বড়ুয়া, সহসাংগঠনিক সম্পাদক মিরাস উদ্দিন, মোহাম্মদ তৈয়ব, নুরুল ইসলাম, পুলিশ কর্মকর্তাবৃন্দ, ভিকটিম এর পরিবারের সদস্যরা এবং গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ । ইতিপূর্বে মারোত সংগঠন আরো ১৫ জন মানসিক রোগীদের নিজ নিজ পরিবারের নিকট হস্তান্তর করেছে। এই মহৎ উদ্যোগ এলাকায় প্রত্যেক এর নিকট হতে প্রশংসা কুড়িয়েছে।

আপনার মন্তব্য লিখুন...

Top
bahis siteleri