bahis siteleri deneme bonusu veren siteler bonusal casino siteleri piabet giriş piabet yeni giriş
izmir rus escortlar
porno izle sex hikaye
corum surucu kursu malatya reklam

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন উপাচার্য কক্সবাজারের ড. শিরীণ আখতার

safe_image.jpg

মুহাম্মদ আবু সিদ্দিক ওসমানী :

কক্সবাজারবাসীর গর্বের ধন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. শিরীন আখতার চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে (চবি) উপাচার্য হিসাবে নিয়োগ পেয়েছেন। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে পরবর্তী উপাচার্য নিয়োগ না হওয়া পর্যন্ত অধ্যাপক ড. শিরীণ আখতার ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য হিসাবে নিয়মিত রুটিন দায়িত্ব পালন করে যাবেন। বৃহস্পতিবার (১৩ জুন) বিকেল থেকেই তিনি এ দায়িত্ব পালন করবেন। বৃহস্পতিবার ১৩ জুন বিকালে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের উপ-সচিব হাবিবুর রহমান স্বাক্ষরিত এক আদেশে এ তথ্য জানানো হয়। মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক বিভাগের বিশ্বস্থ একটি সুত্র বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
প্রসঙ্গত, ২০১৬ সালের ২৮ মার্চ রাষ্ট্রপতি ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের চ্যান্সেলর আবদুল হামিদ ১৯৭৩-এর ১৪(১) ধারা অনুযায়ী কক্সবাজারের কৃতিসন্তান অধ্যাপক ড. শিরীণ আখতারকে উপ-উপাচার্য হিসেবে নিয়োগ দেন। তিনি তখন থেকেই সফলতার সাথে এ দায়িত্ব পালন করে আসছেন। অধ্যাপক ড. শিরীণ আখতার চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাসে প্রথম কোনো নারী উপ-উপাচার্য এবং বৃহস্পতিবার থেকে উপাচার্য হলেন। অধ্যাপক ড. শিরীণ আখতার ১৯৫৬ সালে কক্সবাজারের রামু উপজেলার জোয়ারিয়ানালা ইউনিয়নের এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতার নাম মরহুম আফসার কামাল চৌধুরী। যিনি কক্সবাজার মহকুমা আওয়ামীলীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ছিলেন। মাতার নাম বেগম লুৎফুন্নাহার কামাল। তাঁর স্বামীর নাম মো. লতিফুল আলম চৌধুরী। তিনি ১ ছেলে ও ১ মেয়ের গর্বিত জননী। অধ্যাপক ড. শিরীণ আখতার কক্সবাজার জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নাজনীন সরওয়ার কাবেরীর ননশ। এ মেধাবী ও পেশাদার শিক্ষক ১৯৭৩ সালে কক্সবাজার সরকারি গার্লস স্কুল থেকে এসএসসি এবং ১৯৭৫ সালে চট্টগ্রাম গার্লস কলেজ থেকে এইচএসসি পাশ করেন। তিনি চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৭৬ সনে বিএ অনার্স এবং ১৯৮১ সনে এমএ ডিগ্রি লাভ করেন। এরপর ১৯৯১ সনে ভারতের যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পিএইচডি ডিগ্রী অর্জন করেন। পরবর্তীতে ১৯৯৬ সালের ১ জানুয়ারি চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় বাংলা বিভাগে প্রভাষক হিসেবে যোগ দেন। ২০০৬ সালের ২৫ জানুয়ারি তিনি অধ্যাপক হিসেবে পদোন্নতি পান। তার ১৪টি গবেষণা প্রবন্ধ, গল্প, উপান্যাস, গবেষণা প্রবন্ধ রয়েছে। তিনি ২০০৬ সালে নজরুল জন্মজয়ন্তী চট্টগ্রাম কর্তৃক নজরুল পদক সম্মাননাসহ বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদকে ভূষিত হয়েছেন। এছাড়াও তিনি বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশনের সার্চ কমিটির একমাত্র মহিলা সদস্য ছিলেন। যা ছিল কক্সবাজার জেলাবাসীর জন্য গর্বের বিষয়।

সূত্র সিবিএন

আপনার মন্তব্য লিখুন...

Top
antalya escort bursa escort adana escort mersin escort mugla escort