bahis siteleri deneme bonusu veren siteler bonusal casino siteleri piabet giriş piabet yeni giriş
porno porn
izmir rus escortlar
porno izle sex hikaye
corum surucu kursu malatya reklam

টেকনাফে কতিপয় রোহিঙ্গা ক্যাম্প হাসপাতালে সেবার নামে প্রতারণা!

Teknaf-Pic-A-09-06-19.jpg

জসিম উদ্দিন টিপু : টেকনাফের কতিপয় রোহিঙ্গা ক্যাম্পে কর্মরত দেশী-বিদেশী কতিপয় এনজিও সংস্থা পরিচালিত হাসপাতালে স্থানীয় জনসাধারণকে সেবার নামে প্রতারণার অভিযোগ উঠেছে।
জানা যায়,উপজেলার ৭টি রোহিঙ্গা ক্যাম্পে প্রায় ৫০টির অধিক দেশী-বিদেশী এনজিও কাজ করছে। চিকিৎসা সেবার নামে কর্মরত এনজিওদের মধ্যে আইআরসি, গণস্বাস্থ্যসহ কিছু নাম সর্বস্ব এনজিও প্রতারণা করছেন। টেকনাফের উপকূলীয় বাহারছড়া শামলাপুরে আইআরসি নামে একটি বিদেশী এনজিও সংস্থার হাসপাতাল রয়েছে। এসব হাসপাতাল দিবা-রাত্রি বাস্তুচ্যুৎ রোহিঙ্গাসহ স্থানীয় জনসাধারণকে চিকিৎসা সেবা দেওয়ার কথা রয়েছে। উক্ত এলাকার উন্নয়ন ও সমাজকর্মী জালাল উদ্দিন সম্প্রতি সড়ক দূঘর্টনার গুরুতর আহত হয়ে সন্ধ্যায় উক্ত হাসপাতালে গেলে তালাবদ্ধ পায়। ভেতরে থাকা স্বাস্থ্যকর্মীদের অনুয়-বিনয় করে চিকিৎসা সেবা দেওয়ার আহবান জানানোর পরও কোন সাড়া না পেয়ে হতাশ হয়ে ফিরে যান। তাঁরই মত অনেক ভূক্তভোগী এইভাবে ফিরে যান বলে জানা গেছে। এছাড়া টেকনাফে কর্মরত “গণস্বাস্থ কেন্দ্র” এনজিও’র বিরুদ্ধেও এই জাতীয় অভিযোগ রয়েছে। হোয়াইক্যং রইক্ষ্যংয়ের কামাল উদ্দিন, আবু বক্কর, বাছা মিয়া জানান, এসব চিকিৎসা সেবা কেন্দ্রে ভূক্তভোগীদের সেবার নামে কতিপয় কর্মকর্তা-কর্মচারী নিজেদের কাজে ব্যস্থ থাকেন বলে দাবী করেন। উপজেলার উন্নয়ন ও সংবাদকর্মীরা অনেক সংস্থার যানবাহনে করে মাদক পাচারের ঘটনায় চরম ক্ষোভ প্রকাশ করেন। তারা রোহিঙ্গা ও মানব সেবার নামে বিবিধ অপকর্মে লিপ্ত থাকায় সংস্থা সমুহের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হচ্ছে বলে জানিয়ে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।
এই ব্যাপারে টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কর্মকর্তা ডাঃ সুমন বড়–য়া জানান, আইআরসির বিষয়টি অবগত হয়ে ইতিমধ্যে জেলা এনজিও সমন্বয় সভায় তাদেরকে সর্তক করে দেওয়া হয়েছে।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ রবিউল হাসান জানান, কিছু এনজিও’র কর্মকান্ড নিয়ে স্থানীয়দের অভিযোগ রয়েছে। সেবা বঞ্চিত লোকদের নাম ঠিকানা উল্লেখ পূর্বক তাঁর বরাবরে অভিযোগ দায়েরের আহবান জানিয়ে তিনি আরো বলেন,অভিযুক্ত এনজিও’র কর্মকান্ড খতিয়ে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে প্রতিবেদন পাঠানো হবে।
কক্সবাজার জেলা শরণার্থী ত্রাণ ও পুর্নবাসন কমিশনার আবুল কালাম জানান, সেবার নামে প্রতারণার কোন সুযোগ নেই। তিনি টেকনাফে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আইআরসি,গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রসহ অভিযুক্ত এনজিওদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দেন।

আপনার মন্তব্য লিখুন...

Top
bedava bahis bahis siteleri
bahis siteleri