bahis siteleri deneme bonusu veren siteler bonusal casino siteleri piabet giriş piabet yeni giriş
izmir rus escortlar
porno izle sex hikaye
corum surucu kursu malatya reklam

কালবৈশাখীর তাণ্ডবে সারাদেশে নিহত-১১

image-178536-1558123965.jpg

ঝড়ো হাওয়ায় মাওয়া-শিমুলিয়া রুটে ফেরি এবং উত্তরবঙ্গের সঙ্গে ঢাকার রেল চলাচল সাময়িক বন্ধ * ঢাকার দুটি ফ্লাইট অবতরণ করল চট্টগ্রামে

টেকনাফ টুডে ডেস্ক |

রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে শুক্রবার কালবৈশাখী তাণ্ডব চালিয়েছে। সকালে উত্তরাঞ্চলে প্রায় ৩৫০ ঘরবাড়ি লণ্ডভণ্ড হয়েছে। ভেঙে পড়ে বিপুলসংখ্যক গাছপালা ও বিদ্যুতের খুঁটি। নষ্ট হয়েছে ফসল। সন্ধ্যার ঝড় ও বজ পাতে রাজধানীসহ দেশের উত্তরাঞ্চলে ১১ জনের মৃত্যু হয়েছে।

এছাড়া অর্ধশতাধিক ব্যক্তি আহত হয়েছে। পাবনার ভাঙ্গুরায় রেললাইনের ওপর গাছ ভেঙে পড়ায় ঢাকার সঙ্গে উত্তরাঞ্চলের রেল যোগাযোগ সাময়িক বন্ধ হয়ে যায়। ঝড়ো হাওয়ায় মাওয়া-কাঁঠালবাড়ী রুটে ফেরি চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়। ঝড়ের তাণ্ডবে অভ্যন্তরীণ রুটের বিমান চলাচলও বিঘ্নিত হয়। দুটি বিমান অন্যত্র জরুরি অবতরণ করতে বাধ্য হয়।

আবহাওয়াবিদ হাফিজুর রহমান জানান, সন্ধ্যায় রাজধানী এবং দেশের উত্তরাঞ্চলে কালবৈশাখী বয়ে যায়। এর মধ্যে সন্ধ্যা ৭টা ২ মিনিটে ঢাকায় বয়ে যাওয়া কালবৈশাখীর গতিবেগ ছিল ৬৫ কিলোমিটার। সন্ধ্যা ৭টা ৫ মিনিটে রাজধানীর হযরত শাহজালাল (রহ.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ঝড়ের গতিবেগ ছিল ৯৩ কিলোমিটার।

ঢাকায় ঝড়ের সঙ্গে বৃষ্টিও ছিল। এর পরিমাণ ছিল ২৩ মিলিমিটার। তিনি জানান, সকালে রংপুরে ৬৭ কিলোমিটার বেগে কালবৈশাখী বয়ে যায়। বৃষ্টিও ছিল। আবহাওয়া বিভাগ (বিএমডি) জানিয়েছে, জ্যৈষ্ঠের তৃতীয় দিন সন্ধ্যায় ঢাকাসহ রাজশাহী এবং রংপুর বিভাগের বিভিন্ন স্থানে কালবৈশাখী ঝড় হয়েছে। সিলেট, মৌলভীবাজার, কুমিল্লায়ও ঝড় হয়েছে।

ঝড়ে ঢাকার জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমের প্যান্ডেল ভেঙে পড়ে। এতে ২৫ জন আহত হন। তাদের মধ্যে শফিকুল ইসলাম (৪০) মারা গেছেন। বাড্ডায় দেয়ালচাপায় বুলবুল বিশ্বাস (২৮) ও তপন (২৭) মারা গেছেন। এছাড়া মিরপুরের মনিপুরে ঝড়ের সময় মাথায় ইট পরে ছয় বছরের শিশু জিহাদ আহত হয়েছে।

ঝড়ের সময় আম কুড়াতে গিয়ে গাছচাপায় পাবনার চাটমোহরে গৃহবধূ মার্জিনা খাতুন (২৩) এবং ঘরচাপায় রাজশাহীর বানেশ্বরে সাবেক ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আবদুস সোবহান সরকার মারা গেছেন। এছাড়া নওগাঁর পোরশায় শফিনুর রহমান বিষু (৩২), হাসান আলী (৩০) ও চাঁপাইনবাবগঞ্জে মোশাররফ হোসেন (৩৫) ও অজ্ঞাত একজন, রেজাবুল হক (৪০) ধান কাটতে গিয়ে বজ্রপাতে প্রাণ হারিয়েছেন। বগুড়া শহরতলির নিশ্চিন্তপুর এলাকায় ধানবোঝাই ট্রাক উল্টে হেলপার সাইদুল ইসলাম (২৬) মারা গেছেন।

বায়তুল মোকাররম মসজিদে ঝড়ে আহতরা হলেন- রকিব হাসান (২২), হেলাল উদ্দিন (৪০), সাকিব (২২), মনিরুজ্জামান (৩৫), শফিকুল ইসলাম (৩৫), আবদুর রহমান (২০), মনিরুল ইসলাম (৩২), রুবেল হোসেন (২৯), তারেক (৩৫), আবদুল্লাহ আল মাসুদ (২১), শরিফুল ইসলাম (৩০), শফিকুল ইসলাম (১৯), আল আমিন (২০), সোহাগ (২৪), আওয়াল (৩০), জানে আলম (২২), আমানুল্লাহ আমান (২৫০) ও আফজাল হোসেন (৫৮)। বাকিদের নাম জানা যায়নি।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের পুলিশ ফাঁড়ির এসআই বাচ্চু মিয়া বলেন, বায়তুল মোকাররম মসজিদে ঝড়ে যারা আহত হয়েছেন তাদের মধ্যে ১৬ জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ইসলামিক ফাউন্ডেশনের পরিচালক (মসজিদ ও মার্কেট বিভাগ) মুহাম্মদ মহীউদ্দিন মজুমদার বলেন, মাগরিবের নামাজের সময় প্রবল ঝড়ে প্যান্ডেলটি ভেঙে পড়ে।

তখন সেখানে ১০০ থেকে ১৫০ জনের মতো মুসল্লি ছিলেন। ১৪-১৫ জন মুসল্লিকে উদ্ধার করে আমরা হাসপাতালে পাঠিয়েছি। এর মধ্যে ২-৩ জনের অবস্থা গুরুতর। বায়তুল মোকাররম মসজিদে প্যান্ডেল ভেঙে পড়ার ঘটনায় পাঁচ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেছে ইসলামী ফাউন্ডেশন।

ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্স সদর দফতরের কন্ট্রোল রুমের ডিউটি অফিসার রাসেল সিকদার বলেন, বায়তুল মোকাররম মসজিদের দক্ষিণ গেটে নামাজের জন্য তৈরি প্যান্ডেল ঝড়ো বাতাসে ভেঙে পড়ে। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের দুটি ইউনিট ঘটনাস্থলে পাঠানো হয়েছে।

পল্টন থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. মাহমুদুল হাসান বলেন, ঝড়ে মসজিদের দক্ষিণ গেটের প্যান্ডেল ভেঙে পড়ে। এ সময় বেশ কয়েকজন মুসল্লি আহত হন। বাড্ডা থানার এসআই মোস্তফা জানান, ঝড়ের পর রাত ৮টার দিকে উত্তর বাড্ডার একটি ভবনের পার্কিংয়ের দেয়াল ধসে বুলবুল বিশ্বাস (২৮) ও তপন (২৭) প্রাণ হারিয়েছেন। এ ঘটনায় আহত একজনের অবস্থাও আশঙ্কাজনক। তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

মিরপুরের মনিপুরে ঝড়ের সময় মাথায় ইট পরে ছয় বছরের শিশু জিহাদ আহত হয়েছে। মনিপুরের ৩০৬নং টিনশেড বাড়ির ওপর পাশের বাড়ির ছাদ থেকে ইট পড়ে। এ সময় জিহাদ সেই বাড়িতে ছিল। জিহাদের বাবা হেলাল রাত সাড়ে ১০টার দিকে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যান।

ঝড়ের ক্ষয়ক্ষতি সম্পর্কে যুগান্তরের ব্যুরো ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর :

চট্টগ্রাম : প্রতিকূল আবহাওয়ায় ঢাকা শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করতে না পেরে অভ্যন্তরীণ রুটের দুটি উড়োজাহাজ চট্টগ্রাম শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করেছে।

এর মধ্যে একটি বাংলাদেশ বিমান এয়ারলাইন্সের ও অপরটি ইউএস বাংলার। রাত ৮টা থেকে সোয়া ৮টার মধ্যে উড়োজাহাজ দুটি চট্টগ্রামে অবতরণ করে। বিষয়টি নিশ্চিত করে চট্টগ্রাম বিমানবন্দরের ম্যানেজার উইং কমান্ডার সারওয়ার-ই-জামান যুগান্তরকে জানান, বিমানের ফ্লাইটটি রাজশাহী থেকে আর ইউএস বাংলার ফ্লাইটটি সৈয়দপুর থেকে ঢাকা যাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু আবহাওয়া খারাপ থাকায় এই দুটি ফ্লাইট সেখানে নামতে পারেনি। চট্টগ্রামে ডাইভার্ট করা হয়।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ : সদর উপজেলার বালিয়াডাঙ্গা ইউনিয়নের শ্রীরামপুরে বিকালে বজ্রপাতে দু’জন ধান কাটা শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে। তারা হলেন- শ্রীরামপুর গ্রামের মোতালেব হোসেনের ছেলে মোশাররফ হোসেন (৩৫) ও হযরত আলীর ছেলে রেজাবুল হক (৪০)। এ সময় আরেক শ্রমিক আহত হন।

বালিয়াডাঙ্গা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান তরিকুল ইসলাম জানান, বজ্রপাতে হযরত আলী নামে আরেকজন শ্রমিক আহত হন। তাকে চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

নওগাঁ : বিকালে পোরশার গানুইর গ্রামের মালিপুকুর মাঠে বজ্রপাতে দুই ধান কাটা শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে। তারা হল- উপজেলার নিতপুর ইউনিয়নের গানুইর গ্রামের আজাদ হোসেনের ছেলে শফিনুর রহমান বিষু (৩২) ও চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার শিবগঞ্জ থানার পিঠাইল গ্রামের মতিউর রহমানের ছেলে হাসান আলী (৩০)। এ সময় বুলবুল হোসেন নামে আরেকজন আহত হন। রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তাকে ভর্তি করা হয়েছে।

টাঙ্গাইল : সন্ধ্যায় মধুপুর পৌর শহরের কাজীবাড়ি এলাকায় বজ“তর দগ্ধ হয়েছে। তারা হলেন- দিলরুবা, ছেলে সাকিব (১০) ও রাকিব (১২)। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে তাদের ভর্তি করা হয়েছে।

চাটমোহর (পাবনা) : বিকালে চাটমোহরে কালবৈশাখী ঝড়ের মধ্যে আম কুড়াতে গিয়ে গাছের চাপায় মার্জিনা খাতুন (২৩) নামে এক গৃহবধূ মারা গেছেন। মার্জিনা উপজেলার হান্ডিয়াল ইউনিয়নের পাইকপাড়া গ্রামের আতিকুর রহমানের মেয়ে।

ডোমার (নীলফামারী) : ডোমারে কালবৈশাখী ঝড়ে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। বিদ্যুৎ সরবরাহ লাইন ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

ফুলবাড়ী (কুড়িগ্রাম) : ফুলবাড়ী উপজেলার ভাঙ্গামোর, খোচাবাড়ী ও দক্ষিণ নগরাজপুর, লক্ষ্মীকান্ত ও হোলখানা ধরলা বেষ্টিত গ্রামগুলো দিয়ে ঝড়ে দুই শতাধিক বাড়িঘর লণ্ডভণ্ড হয়েছে। ঝড়ে বাড়িঘর, মৌসুমি ফল, পাটক্ষেত ও ইরি-বোরো ধান এবং শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ক্ষতি হয়েছে।

ঠাকুরগাঁও : সকালে সদর উপজেলার শুকানপুকুরী ইউনিয়নের বাংরোড গ্রামের ওপর দিয়ে এ ঝড় বয়ে যায়। এতে গ্রামের শতাধিক ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হয়েছে। চার থেকে পাঁচ মিনিটের ঝড়ে নূর হক, খেলাফত, কান্দরু, শফিকুল ইসলাম, মোশারফ হোসেন, আবদুল করিম, আবদুর রহিম, অনিল চন্দ্র, সুধীর ঘোষ, ঋষিকান্তের ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হয়েছে। এছাড়া ঝড়ে উপড়ে পড়েছে গ্রামের অসংখ্য গাছপালা। বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে বিদ্যুৎ সংযোগ। নষ্ট হয়েছে ফসল।

পীরগাছা (রংপুর) : সকালে পীরগাছা উপজেলার তিনটি ইউনিয়নের ওপর দিয়ে বয়ে যাওয়া ঝড় ও শিলাবৃষ্টিতে ১৫টি গ্রামের আড়াই শতাধিক ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হয়েছে। এছাড়া কয়েকশ’ হেক্টর জমির উঠতি ধান, ভুট্টা, কলাক্ষেত নষ্ট হয়েছে। ঝড়ে কমপক্ষে ২০টি বৈদ্যুতিক খুঁটি ভেঙে পড়ায় বিদ্যুৎ সংযোগ বন্ধ রয়েছে।

ঝড়ে উপজেলার পীরগাছা সদর, কৈকুড়ী ও কান্দি ইউনিয়নের ১৫টি গ্রামের কমপক্ষে আড়াইশ’ কাঁচা ও আধাপাকা ঘরবাড়ি এবং কান্দিরহাট স্কুল অ্যান্ড কলেজসহ ১০টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বিধ্বস্ত হয়। শিলাবৃষ্টিতে দুই হাজার হেক্টর জমির পাকা ইরি ধান, উঠতি কলা ও ভুট্টা নষ্ট হয়েছে।

রংপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ পীরগাছা জোনাল অফিসের এজিএম মঞ্জুরুল ইসলাম বলেন, কালবৈশাখী ঝড়ে পীরগাছা বাজারসহ কবলিত এলাকাগুলোর প্রায় ২০টি বৈদ্যুতিক খুঁটি ভেঙে গেছে। এছাড়া ৪০-৫০টি স্থানে ছিঁড়ে গেছে বৈদ্যুতিক ক্যাবল। ফলে বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ রয়েছে।

উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা লোকমান আলম বলেন, কালবৈশাখী ও শিলাবৃষ্টিতে উপজেলার তিনটি ইউনিয়নের কমপক্ষে ৩০০ হেক্টর জমির পাকা ধান, উঠতি কলা ও ভুট্টাক্ষেতের ক্ষতি হয়েছে।

বগুড়া : সন্ধ্যায় ঝড়ে শহরতলির নিশ্চিন্তপুর এলাকায় একটি ধানবোঝাই ট্রাক উল্টে সাইদুল ইসলাম (২৬) নামে হেলপার মারা গেছেন। পুলিশ ট্রাক উদ্ধার করে পুলিশ লাইন্সে রেখেছে। বগুড়া ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন অফিসার বজলুর রশিদ ও নারুলী পুলিশ ফাঁড়ির ইন্সপেক্টর জামিলুর রহমান জানান, ঝড়ের সময় নিশ্চিন্তপুর এলাকায় দ্বিতীয় বাইপাস মহাসড়কের ওপর একটি গাছ ভেঙে পড়ে।

এ সময় মহাস্থান ছেড়ে আসা শেরপুরগামী ধানবোঝাই একটি ট্রাকের চালক না দেখে গাছের ওপর ট্রাক তুলে দেন। এতে চালক নিয়ন্ত্রণ হারালে ট্রাকটি মহাসড়কের ডানপাশে উল্টে যায়। এ সময় ট্রাকের নিচে চাপা পড়ে হেলপার সাইদুল ঘটনাস্থলেই মারা যায়। সাইদুলের বাড়ি বগুড়ার শেরপুর বাসস্ট্যান্ডপাড়া এলাকায়। দুর্ঘটনাকবলিত ট্রাকটি উদ্ধার করে পুলিশ লাইনে রাখা হয়েছে। চালক পালিয়ে গেছে।

বগুড়া আবহাওয়া অফিসের সিনিয়র অবজারভার শাহ আলম মন্ডল জানান, বিকাল ৫টা ১৮ মিনিট থেকে ৪ মিনিট ঝড় বয়ে যায়। উত্তর-পূর্ব দিক থেকে আসা ঝড়ের গতিবেগ ছিল ঘণ্টায় ৬৫ কিলোমিটার। ঝড়ের সময় ও পরে ৬.৬ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ঝড়ে জেলার বিভিন্ন স্থানে অনেক গাছপালা ভেঙে পড়েছে। মাঠে থাকা পাকা বোরো ধানের ক্ষতি হয়েছে।

সূত্র যুগান্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন...

Top
error: Content is protected !!
antalya escort bursa escort adana escort mersin escort mugla escort