porno porn
izmir rus escortlar
porno izle sex hikaye
corum surucu kursu malatya reklam

মানিকপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে জাফর আলম এমপি : চকরিয়া-পেকুয়ার প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে উন্নয়নের ধারা নিশ্চিত হবে

5-1.jpg

নিজস্ব প্রতিবেদক,চকরিয়া : চকরিয়া উপজেলার ঐতিহ্যবাহী মানিকপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের বার্ষিক ক্রীড়া সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণী ও পরিচালনা কমিটির অভিষেক বিদ্যালয় প্রাঙ্গনে অনুষ্ঠিত হয়েছে। বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি চকরিয়া কলেজের সাবেক ভিপি রোস্তম শাহরিয়ার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন চকরিয়া-পেকুয়া আসনের সংসদ সদস্য ও চকরিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ্ব জাফর আলম।
মানিকপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শ্যামল চক্রবর্ত্তীর স্বাগত বক্তব্যে অনুষ্ঠানের উদ্বোধক ছিলেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন বিভাগীয় প্রধান (প্রাচ্য ভাষা) ড. দীপঙ্কর শ্রীজ্ঞান বড়ুয়া। অনুষ্ঠানে অতিথি ছিলেন উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক গিয়াস উদ্দিন চৌধুুরী, বিদ্যালয়ের প্রাক্তন প্রধান শিক্ষক হাবিবুর রহমান, সমাজসেবক নাছির উদ্দিন, প্রাক্তন ছাত্র পরিষদের যুগ্ম আহবায়ক ও চট্টগ্রামস্থ চকরিয়া সমিতির সাধারণ সম্পাদক হামিদ হোছাইন, বিদ্যালয় কমিটির সদস্য মাস্টার নুরুন্নবী, গিয়াস উদ্দিন, আতাহার ইকবাল, ইউপি সচিব নুরুল আলম, নুরুল হুদা, মাস্টার আবদুল গনি, মো: জুবাইর, আয়েশা ছিদ্দিকা, শামসুল আলম মেম্বার, সুধাংশু বড়–য়া, আবুল হাসেম মেম্বার, মাস্টার মো: নোমান সহ স্কুল কমিটির সদস্যবৃন্দ, শিক্ষক-শিক্ষিকা, অভিভাবক, গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।
অনুষ্ঠানে আলহাজ জাফর আলম এমপি বলেছেন, জননেত্রী শেখ হাসিনা দেশের নতুন প্রজন্মের জন্য মেধানির্ভর শিক্ষার সম্ভাবনার দ্বার উম্মোচন করেছে। তাঁর সদিচ্ছার কারনে আজ শিক্ষার্থীরা বিনা বেতনে লেখাপড়া সুযোগ পাচ্ছে। শিক্ষার সুষ্ট পরিবেশ নিশ্চিতে সরকার হাজার কোটি টাকা বরাদ্দে অবকাঠামোগত উন্নয়নে সব ধরণের কর্মকান্ড বাস্তবায়ন করছেন। উন্নয়নের এই ধারা চকরিয়া-পেকুয়া উপজেলার প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নিশ্চিত করা হবে। সরকারের লক্ষ্য হচ্ছে বাংলাদেশকে নিরক্ষতার অভিশাপ থেকে মুক্ত করা। সেইলক্ষ্যে সরকার কাজ করে যাচ্ছেন।
তিনি বলেন, বর্তমানে বছরের প্রথমদিন শিক্ষার্থীরা নতুন পাঠ্যবই পাচ্ছে। লেখাপড়া করতে সব ধরণের উপবৃত্তি সুবিধা পাচ্ছে। মেধাবীদের সরকারি চাকুরী নিশ্চিত করা হচ্ছে। দেশের প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে চালু করা হয়েছে মিড ডে মিল প্রকল্পসহ নানা ধরণের প্রনোদনা প্রকল্প। যাতে শিক্ষার্থীরা এসব সুবিধা নিয়ে সুন্দর পরিবেশে লেখাপড়া করতে পারে। নিজেকে আগামীর জন্য দক্ষ মানবসম্পদ হিসেবে তৈরী করতে পারে।
জাফর আলম এমপি আরও বলেন, শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ার মান্নোয়ন নিশ্চিতকল্পে আগামী পাঁচবছরে চকরিয়া-পেকুয়া উপজেলার সবশিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সাজানো হবে। লেখাপড়ার মাধ্যমে নতুন প্রজন্মের শিক্ষার্থীদেরকে সুনাগরিক হিসেবে তৈরী করতে হবে। সেইজন্য অভিভাবক ও শিক্ষক মন্ডলীকে সজাগ ভুমিকা পালন করতে হবে।

আপনার মন্তব্য লিখুন...

Top
bedava bahis bahis siteleri
bahis siteleri