উখিয়ায় ২৫ রোহিঙ্গা আটক

IMG_20190213_120312.jpg

কায়সার হামিদ মানিক : উখিয়া-টেকনাফ রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবির থেকে কাজের সন্ধানে ক্যাম্প ছাড়ছেন রোহিঙ্গারা। ক্যাম্প পালানো রোধে সীমিতসংখ্যক চেকপোস্ট থাকলেও তা দিয়ে রোহিঙ্গাদের কোনোভাবেই ঠেকানো যাচ্ছে না। আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর অভিমত- আশ্রিত রোহিঙ্গাদের অনুপাতে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য কম। রোহিঙ্গাদের ভাষা, চালচলন, পোশাক-পরিচ্ছদ, আচার-আচরণ স্থানীয়দের সঙ্গে অনেক মিল। যার কারণে রোহিঙ্গারা আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর চোখ ফাঁকি দিয়ে কৌশলে ক্যাম্প ত্যাগ করছে। বুধবার সকাল ১১ টার দিকে উখিয়া সদর ষ্টেশন এলাকায় উখিয়া থানার এসআই মহিউদ্দিনের নেতৃত্বে একদল পুলিশ যানবাহনে তল্লাশী চালিয়ে ২৫ জন রোহিঙ্গাকে আটক করেছে বলে উখিয়া থানার ওসি মোঃ আবুল খায়ের জানিয়েছেন। তিনি জানান, কাজের সন্ধানে রোহিঙ্গারা বেরিয়ে পড়ছিল বলে পুলিশকে আটক রোহিঙ্গারা জানিয়েছেন। তিনি আরো জানান ওইসব আটককৃত রোহিঙ্গাদের ক্যাম্প ভিত্তিক মাঝিদের হাতে তুলে দেওয়া হবে। রোহিঙ্গারা জানান, এনজিওদের প্রদত্ত রেশন পাতিতে তাদের ভরন পোষনের চাহিদা না মেটার কারনে তারা কাজের সন্ধানে ক্যাম্প ছাড়তে বাধ্য হচ্ছে। আটক রোহিঙ্গা কলিম উল্লাহ জানান, তার ঘরে ৭ সদস্যের নিয়ে পরিবার। রেশন পাতি কম দেওয়ায় খাওয়া দাওয়া ঠিক ভাবে খেতে পারছেনা। এ জন্য কাজের সন্ধানে কুতুপালং ক্যাম্প থেকে বেরিয়ে যাচ্ছিল। গত ২৫ আগস্ট বিদ্রেুাহী রাখাইন সম্প্রদায় সেনা ক্যাম্পে হামলা চালানোর জের ধরে সেনাবাহিনী ও বিজিপি সদস্যরা রোহিঙ্গাদের গণহারে গ্রেফতার, নির্যাতন ও ঘরবাড়ি পুড়িয়ে দিচ্ছে। বিশেষ করে যুবকরা তাদের হাত থেকে রেহাই পাচ্ছে না। তাই প্রাণ বাঁচাতে তারা এখানে পালিয়ে এসেছেন। রোহিঙ্গারা আরো জানান, তাদের আত্মীয়-স্বজন চট্টগ্রামের হালিশহর, পাথরঘাটা, বাকলিয়া, কক্সবাজার, রামু এলাকায় স্থায়ীভাবে বসবাস করছে দীর্ঘদিন ধরে। আশা ছিল তাদের বাড়িঘরে আশ্রয় নিয়ে বিভিন্ন শিল্প-কারখানা ও গার্মেন্টসে চাকরির চেষ্টা করবে। গত ২ দফায় উখিয়া থানা পুলিশ পৃথক অভিযান চালিয়ে মালয়েশিয়াগামী আরো ২৫ জন রোহিঙ্গা নারী পুরুষকে উদ্ধার করে ক্যাম্পে পাঠিয়েছে। উখিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ নিকারুজ্জামান চৌধুরী জানান, রোহিঙ্গারা যাতে ক্যাম্প থেকে পালাতে না পারে সেজন্য আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের সতর্ক করে দেওয়া হয়েছে।

আপনার মন্তব্য লিখুন...

Top