হোয়াইক্যংয়ে নির্বাচনী তর্কের জেরধরে সংঘর্ষে আহত-২ : ৩টি টমটম ভাংচুর

Teknaf-Pic-B-30-12-18.jpg

জিয়াউল হক জিয়া : হোয়াইক্যংয়ে নির্বাচন পরবর্তী তর্কের জেরধরে দুইপক্ষের সংঘর্ষে ২জন আহত হয়েছে। এসময় ৩টি টমটম ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে।
জানা যায়, ৩০ ডিসেম্বর রাত ৭টারদিকে উপজেলার হোয়াইক্যং ইউনিয়নের বালু খালী তুলাতলী ষ্টেশনে একাদশ জাতীয় সংসদের বিষয় নিয়ে আওয়ামী লীগ সমর্থক স্থানীয় মৃত মনির আহমদের পুত্র মুহাম্মদ হাছন ও আবুল কাশেমের পুত্র মুহাম্মদ সবুজ গংয়ের সাথে বিএনপি-জামায়াত সমর্থক ফরিদ আলমের পুত্র মুহাম্মদ সেলিম (২৫),মুহাম্মদ মিজান (২৩) ও আব্দুস সালামের পুত্র মোঃ সাদ্দাম গংয়ের কথা কাটাকাটি এবং তর্কের সুত্রপাত হয়। এক পর্যায়ে দু’পক্ষের মধ্যে হাতাহাতি ও সংঘর্ষ হলে সেলিম, মিজান এবং সাদ্দাম গংয়ের হয়ে বিএনপি-জামায়াত সমর্থিত মৃত ফজল করিমের পুত্র আব্দুস সালাম, ছৈয়দ মিয়া, মৃত কালাম মিয়ার পুত্র মৌলভী হোছন, মৃত অলি আহমদের পুত্র হামিদুর রহমান প্রকাশ ভূলু,ঈমান হোছন, নুরুল আলম, নুরুল আমিনের পুত্র দেলোয়ারসহ একটি সংঘবদ্ধ গ্রæপ মিলে অস্ত্র-শস্ত্র, লাঠি-সোটা নিয়ে হামলা চালিয়ে মুহাম্মদ হাছন ও মুহাম্মদ সবুজ রক্তাক্ত এবং আহত করে। পর্যায়ক্রমে ৩টি টমটম ভাংচুর করে। এই ঘটনার খবর পেয়ে আওয়ামী লীগ নেতা আলমগীর চৌধুরী ও ২নং ওয়ার্ড মেম্বার সিরাজুল মোস্তফা চৌধুরী লালু মেম্বার ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন। আহতদের উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য প্রেরণ করা হলে মুহাম্মদ হাছনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য উখিয়া প্রেরণ করা হয় আর সবুজকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে বাড়িতে আনা হয়। এই ঘটনায় দুপক্ষের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে।
আওয়ামী লীগ নেতা আলমগীর চৌধুরী বলেন, সারাদিন শান্তিপূর্ণ নির্বাচনের পর রাতে এই ধরনের ঘটনা খুবই দুঃখজনক।
সিরাজুল মোস্তফা চৌধুরী লালু মেম্বার বলেন, তারা আমাদের উপর আঘাত করলেও আমরা পাল্টা আঘাত করব না। আইনী প্রক্রিয়ায় মোকাবেলা করব।
এই ব্যাপারে একটি মামলা দায়েরের প্রক্রিয়া চলছে।

আপনার মন্তব্য লিখুন...

Top