সুস্থ ও বাসযোগ্য মহানগরী গড়তে সেবা খাতে জোর দিবেন কামরান

bodor-uddin-kamran-1-1024x576.jpg

নিউজ ডেস্ক: একটি সুস্থ ও বাসযোগ্য মহানগরী গড়তে কামরান আহমদের ইশতেহার সময়ের চাহিদা মাত্র। সুন্দর ও সকলের বসবাস উপযুক্ত মহানগর গড়তে বদর উদ্দিন আহমদ কামরানের ইশতেহার হল-

রোগ-বালাই মানব জীবনের সাতে ওতপ্রোতভাবে জড়িত। নগরের বিপুলসংখ্যক মানুষের মধ্যে রয়েছে স্বাস্থ্য সচেতনতার অভাব। জনগণের দোরগোড়ায় স্বাস্থ্যসেবা পৌঁছে দিতে বিশ্বমানের নগর ক্লিনিক স্থাপন করা হবে। প্রতিমাসে ওয়ার্ড ভিত্তিক ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্পের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

সিলেট শহরে নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ নিশ্চিতকরণের লক্ষ্যে পুরো নগরে পাতাল বিদ্যুৎলাইন স্থাপনের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। তাহলে বিশ্বের আধুনিক শহরগুলোর মতো বিদ্যুৎবিভ্রাটে পড়তে হবে না নগরবাসীকে।

নগরকে যানজটমুক্ত করতে বিশেষ উদ্যোগ গ্রহণ করা হবে। তৈরি করা হবে লিংক রোড। নগরের আভ্যন্তরীণ সকল রাস্তা প্রশস্তকরণের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। গড়ে তোলা হবে একাধিক স্ট্যান্ড। সেন্ট্রাল পার্কিংয়েরও ব্যবস্থা করা হবে। ট্রাফিক সিগনাল লাইট স্থাপন, ফুটওভারব্রিজ নির্মাণ ফুটপাত প্রশস্তকরণ এবং জনসাধারণের স্বচ্ছন্দ্যে ও নিরাপদে হাঁটাচলার ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। সেইসঙ্গে আধুনিক ও বিশ্বমানের বাসস্ট্যান্ড ও ট্রাক টার্মিনাল নির্মাণ করা হবে। উদ্যোগ নেয়া হবে ফ্লাইওভার নির্মাণের। বিশ্বের অন্যান্য শহরের মত আলাদা সাইকেল লেন স্থাপনে কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।

ফুটপাথকে করা হবে হকারমুক্ত। হকারদের পুনর্বাসনের জন্য প্রতিষ্ঠা করা হবে চারটি হকার মার্কেট। বিশ্বের উন্নত শহরগুলোর মতো সাপ্তাহিক বন্ধের দিন রাখা হবে বিশেষ মার্কেটের ব্যবস্থা। লালদিঘী মার্কেট ভেঙ্গে সেখানে নির্মাণ করা হবে বহুতল ভবন। এই ভবনে আবাসনের ব্যবস্থা থাকবে। সেখানে স্বল্প আয়ের বিভিন্ন পেশাজীবীদের জন্য স্বল্পমূল্যে আবাসনের ব্যবস্থা করা হবে।

গ্যাস সংযোগ বন্ধ থাকায় অনেকটা স্থবির হয়ে আছে আবাসন ব্যবসা। নতুন বাসাবাড়িতে গ্যাস সংযোগ না-থাকায় ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে সংশ্লিষ্টদের। নগরে গ্যাস সংযোগ চালুর ব্যাপারে উদ্যোগ গ্রহণ করা হবে।

নগরবাসীকে শতভাগ বিশুদ্ধ পানি সরবরাহের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। পুরোনো ওয়াটার ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্ট সংস্কার ও নতুন ওয়াটার ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্ট স্থাপন করা হবে।

সিলেটকে পরিচ্ছন্ন নগর হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষ্যে ২৭টি ওয়ার্ডের দৈনন্দিন মায়লা আবর্জনা যথাসময়ে অপসারণ করা হবে।

নগরবাসীর যাতায়াত ব্যবস্থা উন্নতকরার লক্ষ্যে চালু করা হবে আধুনিক নগর পরিবহণ। মহিলাদের জন্য থাকবে পৃথক পরিবহণ ব্যবস্থা। পাশাপাশি উবার, পাঠাওয়ের মতো সংস্থাগুলোর কার সার্ভিস চালুর ব্যাপারে উদ্যোগ গ্রহণ করা হবে।

মহাজোট সরকারের ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ে তোলার প্রতিশ্রুতির অংশ হিসেবে সিলেটকে প্রথম ডিজিটাল নগর গড়ে তোলার লক্ষ্যে গৃহীত প্রকল্প দ্রুত বাস্তবায়নে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে। তথ্যপ্রযুক্তির প্রসারে স্থাপন করা হবে আইসিটি পার্ক। সিলেট নগরকে ডিজিটাল নগর হিসেবে গড়ে তোলা হবে। নগরের বিভিন্ন এলাকা ও স্থাপনায় ফ্রি ওয়াই-ফাইয়ের ব্যবস্থা করা হবে। প্রতিটি ওয়ার্ডে চালু করা হবে ই-তথ্য সেবাকেন্দ্র।