টেকনাফে প্রাচীন বৌদ্ধ বিহারের সামনে ময়লা আবর্জনার স্তুপ, দুভোর্গ চরমে

3-23.jpg

শহীদ উল্লাহ, টেকনাফ :
টেকনাফে ময়লা আবর্জনার কারণে সোয়া দুইশ বছরের প্রাচীন একটি বৌদ্ধ বিহারে যাতায়াতে নানা দুর্ভোগের সৃষ্টি হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। বৌদ্ধ বিহার সংলগ্ন জমিতে ময়লা আবর্জনার ডাম্পিং স্টেশন তৈরী করায় আবার সড়কটির দুই পাশে পানি চলাচলের পথ বন্ধ করে দেওয়ায় এ দুভোর্গ বলে জানিয়েছেন টেকনাফ বৌদ্ধ বিহারের সাধারন সম্পাদক কিও মং সিং।
তিনি জানান, টেকনাফ পৌরসভার বাস স্টেশন এলাকায় অবস্থিত ১৮০২ সালে প্রতিষ্ঠিত প্রাচীন এ বিহারটি এখানকার বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের একমাত্র উপাসনালয়। একজন বৌদ্ধ বিক্ষু এখানে সার্বক্ষনিক অবস্থান করার পাশাপাশি বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের লোকজন এখানে সকাল-বিকাল যাতায়াত করে থাকে। এছাড়া বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের ছোট বড় ধর্মীয় উৎসব গুলো এখানে পালিত হয়ে থাকে। আগামী ২৬ জুলাই আষাঢ়ে পুর্ণিমা অনুষ্ঠানের কথা রয়েছে। কিন্তু সড়কের উপর ময়লা আবর্জনার কারণে বিহারে যাওয়ার কোন উপায় নেই।

সোমবার ২৩ জুলাই বিকালে সরেজমিন পরিদর্শনে অভিযোগের সত্যতা পাওয়া যায়। দেখা যায়, বিহারের প্রধান ফটকের পাশে আশেপাশের সমস্ত ময়লা আবর্জনা ফেলা হয়েছে। আবার সড়কের পশ্চিম পাশের জমির মালিক পাকা দেওয়াল তৈরী করায় বর্ষার পানি চলাচল করতে না পারায় ময়লা-আবর্জনা আর পানি সড়কের উপর জমে আছে।

জানা গেছে সড়কটি বিহারের নিজস্ব জমির উপর স্থাপিত হলেও পৌর কর্তৃপক্ষ সড়কটি পাকা করে তৈরী করে দেয়। কিন্তু ময়লা আবর্জনার নীচে চাপা পড়েছে পাকা সড়কটি। এব্যাপারে বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের লোকজনের মাঝে ক্ষোভ দানা বেঁধে উঠছে বলে জানা গেছে।

শুধু বৌদ্ধ সম্প্রদায় শুধু নই এই সড়কটিতে থাকা ব্যবসা প্রতিষ্ঠান গুলোও একই দুর্ভোগের শিকার।

এব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রবিউল হাসান জানান, বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের পবিত্র স্থান বিহার। এব্যাপারে খোঁজ খবর নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে বলে জানান তিনি।