ভারতীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বাংলাদেশ সফরে আতঙ্কে তারেক রহমান

rajnat-tareq-1.jpg

ডেস্ক: ভারতীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিংয়ের বাংলাদেশ সফরে অস্বস্থিতে পড়েছেন লন্ডনে পলাতক বিএনপি নেতা তারেক রহমান। সূত্র বলছে, কারাবন্দী বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়ার আইনজীবী লর্ড কারলাইলকে ফেরত দিয়ে বিএনপির ক্ষতে নুন ছিটিয়েছে ভারত। এর মধ্যে আবার বিএনপির শত অনুরোধ উপেক্ষা করে বাংলাদেশ সফরে এসেছেন রাজনাথ সিং। বিএনপিকে যে ভারত কোনো মতেই সমর্থন করছে না তা স্পষ্ট বুঝতে পেরে অস্বস্থিতে পড়েছেন তারেক রহমান। এছাড়া বাংলাদেশ সরকার যে তাকে দেশে ফিরিয়ে নিয়ে এসে শাস্তি নিশ্চিত করতে ভারতের সাহায্য চাইবে এবং ভারত সরকার এই প্রস্তাবে রাজি হবে, সেটি ভেবেই চিন্তায় তারেক রহমানের ঘুম হারাম হয়েছে।

লন্ডন বিএনপি সূত্রে জানা যায়, বাংলাদেশ সফর না করার জন্য ভারত সরকারের একজন নীতি-নির্ধারকের সাথে গোপনে যোগাযোগ করেন তারেক রহমান। নির্বাচনের পূর্বে রাজনাথ সিংকে বাংলাদেশ সফর না করা জন্য সেই নীতি-নির্ধারককে বিশেষ অনুরোধ করেন তিনি। কিন্তু সরকারি সফর এবং প্রতিবেশি রাষ্ট্রের প্রতি দায়িত্ববোধ থেকেই বাংলাদেশে সফর করছেন রাজনাথ সিং। তাই সফর বাতিল না করার বিষয়ে ব্যাখ্যা দেন সেই ভারতীয় নীতিনির্ধারক। ভারত সরকারের সাথে ইংল্যান্ড সরকারের সম্পর্ক অত্যন্ত বন্ধুত্বপূর্ণ। ইংল্যান্ডের অর্থনীতি, ব্যবসা-বাণিজ্যে ভারতের যথেষ্ট অবদান রয়েছে। তারেক রহমানের ভয়ের জায়গাটা হল, বাংলাদেশ যদি ভারত সরকারকে দিয়ে ইংল্যান্ডের কাছে তারেক রহমানকে ফেরত চায় তাহলে তার আর উপায় থাকবে না। ইংল্যান্ড নিশ্চিতভাবে ভারতের অনুরোধ ফেলতে পারবে না। আর বাংলাদেশে গেলেই তো সরকার তারেকের অপকর্মের উপযুক্ত বিচার করে শাস্তি নিশ্চিত করবে। তারেক রহমান তদবির করে লাখ লাখ পাউন্ড খরচ করে লন্ডনে আরামদায়ক জীবন যাপন করছেন। দেশে ফিরে বিএনপির নোংড়া রাজনীতি করতে মোটেও রাজি নন তিনি। বিদেশের মাটিতে বসেই যখন চাঁদাবাজী করে লাখ লাখ পাউন্ড কামাই করা যায়, তখন দেশে গিয়ে জেল খাটার কোনো অর্থ খুঁজে পাচ্ছেন না তারেক রহমান। ভারত সরকারকে এত অনুরোধ করেও লাভ হল না বিএনপির। ভারতকে সব কিছু উজাড় করে দেওয়ার ঘোষণা দিয়েও সুফল পেল না বিএনপি। তারেক রহমানের অবস্থা বেগতিক দেখে লন্ডনের বিএনপি নেতা-কর্মীরাও বিপদে পড়েছেন। জানা গেছে, ভারত সরকারকে শায়েস্তা করার জন্য লর্ড কারলাইলের মাধ্যমে ইতিমধ্যেই আন্তর্জাতিক চক্রান্ত শুরু করেছেন তারেক।

এই বিষয়ে বার্মিংহাম এলাকার বিএনপি নেতা রাশেদুল কবির বলেন, শুনেছি বাংলাদেশ সফর করছেন ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং। ১৪ জুলাই রাতে তারেক রহমানের সাথে সাক্ষাতকালে বিষয়টি আমরা জানতে পারি। তারেক স্যার অনেক চেষ্টা করেও সফরটি আটকাতে পারেননি। ব্যর্থ হয়ে হতাশায় ডুবে যান তারেক। তিনি শাস্তির ভয়ে কাঁপছেন। যেকোন মুহূর্তে দেশে পাঠিয়ে দেওয়ার ভয়ে গত কদিন ধরে রাতে ঘুমাতে পারছেন না তিনি। জানতে পারলাম স্থানীয় একটি বারে গিয়ে পেগ পেগ মদ গিলেও নিজেকে শান্ত করতে পারছেন না তারেক স্যার। বিষয়টি নিয়ে আমরা অস্বস্তি ও আতঙ্কে রয়েছি। দেখা যাবে ভারত সরকারকে রুখার নামে আবার চাঁদাবাজী শুরু করবেন তারেক। বিএনপি করতে ইচ্ছা করে না এসব কারণে। কষ্টের উপার্জিত টাকা তুলে দিতে হয় একজন মদখোরের হাতে। আহা রে রাজনীতির অভিশাপ!