টেকনাফ পৌরসভায় ৫৪২ পরিবারের মাঝে নগদ অর্থ বিতরন

FB_IMG_1517676211213.jpg

গিয়াস উদ্দিন ভুলু, টেকনাফ :
উখিয়া-টেকনাফ উপজেলার অন্তর্গত স্থানীয় অসহায়,গরীব জনগোষ্টির খাদ্য নিরাপত্তা জোরদারকরন ও পুষ্টিমান উন্নয়নের লক্ষ্যে নিয়ে নগদ অর্থ বিতরনসহ বিভিন্ন প্রকার সহযোগীতা করে যাচ্ছে জাতীসংঘ বিশ্ব খাদ্য কর্মসুচি।
এই কর্মসুচির বাস্তবায়ন সংস্থা হিসাবে কাজ করছে রিসোর্স ইন্টিগ্রেশন সেন্টার। তথ্য সুত্রে জানা যায়, গত কয়েক বছর ধরে মিয়ানমার থেকে আগত লক্ষ লক্ষ রোহিঙ্গা উখিয়া-টেকনাফ উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় আশ্রয় নেয়। তাদের আগমনের পদবারে প্রচুর পরিমান ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে পড়ে অত্র এলাকার স্থানীয় বাসিন্দারা।
পাশাপাশি এই সমস্ত রোহিঙ্গাদের কারনে দিনের পর দিন বিলীন হয়ে যাচ্ছে প্রাকৃতিক দৃর্শ্যে ঘেরা বনভুমি গুলো। অনুসন্ধানে দেখা যায়,উখিয়া-টেকনাফ এই দুই উপজেলার শ্রম বাজারসহ সব কিছু চলে যাচ্ছে রোহিঙ্গাদের দখলে।
এই এলাকার মধ্যে এমন কোন কর্মস্থল নেই, যেখানে রোহিঙ্গারা জড়িত নেই।
আবার এই সমস্ত রোহিঙ্গা জনগোষ্টির কারনে নিত্য-প্রয়োজনীয় দ্রব্যমুল্য গুলো চলে যাচ্ছে সাধারন মানুষের ক্রয় ক্ষমতার বাইরে।
এতে সীমাহিন দুর্ভোগের শিকার অসহায় গরীব,দুঃখী মানুষ গুলো। সেই খবর চারিদিকে ছড়িয়ে পড়ার সাথে সাথে ক্ষতিগ্রস্ত স্থানীয় অসহায় জনগোষ্টিকে সাহার্য্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছে জাতিসংঘ বিশ্ব খাদ্য কর্মসুচি সংস্থা (WFP)।
সেই ধারাবাহিকতার অংশ হিসাবে স্থানীয় সাংসদ আব্দুর রহমান বদি ও পৌর পিতা হাজ্বী মোঃ ইসলামের অনুরোধ ক্রমে উক্ত কর্মসুচি বাস্তবায়নের কর্মকর্তারা টেকনাফ পৌরসভার অন্তর্গত ৫৪২ জন অসহায় পরিবারের মাঝে এক কালীন নগদ ২ হাজার টাকা করে অর্থ বিতরন করার কর্মসুচি হাতে নেয়।
সেই ধারাবাহিকতার সুুত্র ধরে গতকাল ১০ টায় টেকনাফ পৌরসভার ৭ং ওয়ার্ডে স্থানীয় সাংসদের কটেজ প্রাঙ্গনে নগদ অর্থ বিতরন কর্মসুচি শুরু করা হয়। নগদ টাকা বিতরন কার্যক্রম উদ্বোধন করেন প্রধান অতিথি মেয়র হাজ্বী মোঃ ইসলাম,বিশিষ্ট ব্যাবসায়ী হাজ্বী আব্দুর গফুর শরীফসহ অত্র এলাকার কাউন্সিলার ও গন্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ।
এরপর টেকনাফ পৌরসভার বিভিন্ন ওয়ার্ড থেকে আসা এই প্রকল্পের আওতায় উপকারভোগী হতদরিদ্র মাঝে এক কালীন নগদ অর্থ বিতরন কর্মসুচি কার্যক্রম শুরু করেন।
প্রত্যেক উপকারভোগীকে নগদ ২ হাজার টাকা করে আর্থিক অনুদান প্রধান করা হয়।
উক্ত কার্যক্রম অনুষ্টানে প্রধান অতিথি হাজ্বী মোঃ ইসলাম বলেন, এই টাকা যারা পাবে তাদের প্রতিটি পরিবারের পুষ্টির ঘাটতি মেটাতে সক্ষম হবে।
এই অর্থগুলো অপচয় না করে পরিবারের সঠিক কাজে ব্যাবহার করলে সংসারের অভাব অনেকটা কমে আসবে। তিনি আরো বলেন আপনাদের অভাব অনটন দুর করার জন্য মাননীয় সাংসদ আলহাজ্ব আব্দুর রহমান বদি নগদ টাকা,চাল বিতরনসহ গরীব ও অসহায় মানুষের বিভিন্ন প্রকার উন্নয়ন মুলক কর্মসুচি অব্যাহত রেখেছে।
আপনারা সবাই এমপি সাহেবের জন্য দোয়া করবেন তিনি যেন সব সময় আপনাদেরকে সাহার্য্য সহযোগীতা করতে পারে।
উল্লেখ্যঃ-এই ধারাবাহিকতায় টেকনাফ উপজেলার অন্তর্গত ৫টি ইউনিয়নে ৩৯৯৯ অসহায় হতদরিদ্রের মাঝে এই কার্যক্রম অনুষ্টিব হবে।
এই কর্মসুচিটি বাস্তবায়ন শেষ করার জন্য সার্বিক সহযোগীতা ও কঠোর ভুমিকায় দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছে টেকনাফ উপজেলা প্ল্যানিং ও মনিটরিল অফিসার মোঃ সেলিম উল্ল্যাহ, আব্দুর রাজ্জাক,রাজিব দাশ ও ইএফএস এন প্রকল্প-রিক এর মাঠ কর্মিগন।
উক্ত কর্মসুচির সার্বিক ব্যাবস্থাপনার দায়িত্ব ছিলেন,ফিল্ড অফিসার মোঃ তোয়াহা।