টেকনাফ পৌর কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কর্মবিরতি পালন

FB_IMG_1517317406022.jpg

গিয়াস উদ্দিন ভুলু, টেকনাফ :
ন্যায্য অধিকার আদায় লক্ষ্যে বাংলাদেশ পৌরসভা সার্ভিস এসোসিয়েশন কর্তক ঘোষিত এই শান্তিপুর্ন আনন্দোলনটি ধারাবাহিক ভাবে একযোগে চলছে বাংলাদেশের ৩২৭টি পৌরসভায়।
টেকনাফ পৌরসভা সুত্রে জানা যায়,পৌর কার্যালয়ে কর্মরত কর্মকর্তা/কর্মচারীগন রাষ্ট্রিয় কোষাগার থেকে চাকরী শেষে পেনশন ও বেতন ভাতা পাওয়ার দাবী নিয়ে এই কর্মবিরতী পালন করে আসছে।
কিন্তু তাদের সেই দাবী-দাওয়া পুরন না হওয়ার কারনে কর্মকর্তা/কর্মচারীরা থেমে থেমে এই শান্তিপুর্ন আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছে।
সেই ধারাবাহিকতা নিয়ে সারা বাংলাদেশে ৩২৭টি পৌরসভায় একযোগে ২৮, ২৯, ৩০শে জানুয়ারী ২০১৮ইং লাগাতার তিনদিন ব্যাপি ফের কর্মবিরতি পালন করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। বাংলাদেশ পৌরসভা সার্ভিস এসোসিয়েশনের নেতৃবৃন্দরা এই কর্মসুচির দায়িত্ব পালন করে আসছে বলে জানা যায়।
এদিকে টেকনাফ পৌরসভা সার্ভিস এসোসিয়েশনের দায়িত্বরত সভাপতি/সাধারন সম্পাদক সৈয়দ হোসেন সেলিম ও মোর্শেদুল ইসলামের নেতৃত্বে টেকনাফ পৌরসভার কর্মকর্তা,কর্মচারীগন তিনদিন ব্যাপি এই শান্তিপুর্ন কর্মসুচি পালন করেছে।
কর্মবিরতি চলা কালীন বক্তারা বলেন আমাদের ন্যায্য অধিকার আদায় করার জন্য আমরা তিনদিন যাবত শান্তিপুর্ন ভাবে এই কর্মসুচি পালন করে আসছি। সরকার যদি আমাদের ন্যায্য অধিকার না করে তাহলে আমরা শান্তিপুর্ন কর্মসুচি বাদ দিয়ে কঠোর কর্মসুচি দিতে বাধ্য হব।
তারা সরকারের প্রতি জোর দাবী তুলে আরো বলেন,পৌরসভার কর্মকর্তা/কর্মচারীদের সরকারী কোষাগার থেকে বেতন-ভাতা ও পেনশনসহ সকল সুযোগ সুবিধা দেওয়ার অনুরোধ জানানো হয়।
উক্ত কর্মসুচি চলা কালীন উপস্থিত ছিলেন, পৌর সচিব মুহাম্মদ মুহিউদ্দিন ফয়েজি, উপ-সহকারী প্রকৌশলী জহির উদ্দিন আহাম্মদ, হিসাব রক্ষক মোঃ সৈয়দ হোসেন, প্রধান সহকারী মোর্শেদুল ইসলাম, কর আদায়কারী যথাক্রমে রবিউল ইসলাম,জাকের হোসাইন, ঠিকাদার সুপারভাইজার কৃষ্না পাল, অফিস সহকারী-মোঃ ওসমানুল কবির,
ঠিকাদানকারী-রোকেয়া আক্তার রুমা, রোলার চালক শফিকুল আলম, বিদুৎ হেলপার আব্দুস সালাম,অফিস সহায়ক দুলাল কুমার দে,কাজল ধর।নিরাপত্তা প্রহরী আব্দুল হোছন,দিদারুল আলম।

চুক্তিভিত্তিক কর্মচারীদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, জাফর আলম,ওমর ফারুক,দিলীপ দাশ,মোঃ ইউসুফ,আলী আহাম্মদ, ছৈয়দ আহাম্মদ প্রমুখ।পরিশেষে বক্তারা পৌরভার জনসাধারনের প্রতি দুঃখ প্রকাশ করে বলেন তিনদিন ব্যাপি শান্তিপুর্ন কর্মসুচি চলাকালীন যে সমস্ত জনগন পৌরসভার সেবা পাননি আমরা তাদের কাছে আজিবন চিরকৃতজ্ঞ থাকব।