হ্নীলায় এক ইউপি মেম্বার ৬ মাস ধরে কারাগারে : উপনির্বাচন দাবী

Teknaf-Pic-A-18-01-2018.jpg

মুহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম,টেকনাফ : হ্নীলায় এক ইউপি মেম্বার হাতে-নাতে মাদক ও অস্ত্রসহ আটক মামলায় ৬ মাস ধরে কারাগারে থাকায় স্থানীয় সেবা প্রার্থী জনসাধারণের ভোগান্তির অন্ত নেই। ভূক্তভোগী জনসাধারণ তদন্ত স্বাপেক্ষে অবিলম্বে এই ওয়ার্ডে উপনির্বাচনের জন্য সংশ্লিষ্ট দপ্তরের দ্রæত হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।
জানা যায়,গত বছরের ২৮জুলাই রাত সাড়ে ৮টারদিকে টেকনাফ মডেল থানার এসআই বোরহান উদ্দিন হ্নীলা বাসষ্টেশন হতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের তালিকাভূক্ত ইয়াবা চোরাকারবারী, হ্নীলা ইউপির ৭নং ওয়ার্ড মেম্বার ও আলীখালীর মৃত হায়দর আলীর পুত্র জামাল হোছনকে আটক করে। তাকে জিজ্ঞাসাবাদের ভিত্তিতে পুলিশ ঐদিন ভোররাতে তার বাড়ি ও আস্তানায় অভিযান চালিয়ে একটি দেশীয় তৈরী অস্ত্র, ৪ রাউন্ড কার্তূজ ও ১৫ হাজার পিস ইয়াবা বড়ি উদ্ধার করে। উক্ত মামলায় ইয়াবা গডফাদার জামাল মেম্বারকে আদালতে প্রেরণ করা হলেও এখনো পর্যন্ত প্রায় ৬ মাস ধরে কারাগারে রয়েছে। এই ওয়ার্ডের জনসাধারণের ভোগান্তির বিষয়ে স্থানীয় চেয়ারম্যানের হস্তক্ষেপ না থাকায় এখন সাধারণ মানুষের র্দূদশা দেখার কেউ রইলনা। এদিকে ক্রাইমজোন খ্যাত এই ওয়ার্ডে বিভিন্ন স্বশস্ত্র গ্রæপ বিদ্যমান থাকায় অপহরণ, মুক্তিপণ বাণিজ্য ও মাদকের চালান খালাস এবং লুটপাটের ঘটনায় সচেতন মহল উদ্বিগ্ন। এই স্বশস্ত্র গ্রæপের অপতৎপরতায় মানুষ ভীত,সন্ত্রস্থ ও বাকরুদ্ধ অবস্থায় রয়েছে বলে একাধিক সুত্র দাবী করেছে।
এই বিষয়ে রঙ্গিখালী লামার পাড়ার সাবেক মেম্বার আব্দুস শুক্কুর বলেন,অত্র ইউনিয়নে ৭নং ওয়ার্ডের মেম্বার না থাকায় বিভিন্ন দিক দিয়ে সাধারণ মানুষ চরম কষ্টে আছে। ইয়াবা ব্যবসায়ীদের কারণে আইন-শৃংখলা পরিস্থিতির চরম অবনতি ঘটছে। তাই এখানে দ্রæত উপনির্বাচন দেওয়া জরুরী। এই ব্যাপারে উপজেলা প্রশাসনের কঠোর হস্তক্ষেপ প্রয়োজন। লুৎফুর রহমান বলেন,এখানে আইন-শৃংখলা বলতে কিছুই নেই। জোর যার মুল্লুক তার প্রবাদের মতো চলছে। মেম্বার না থাকায় সাধারণ মানুষ বিভিন্ন সেবা প্রাপ্তি হতে বঞ্চিত হচ্ছে। তাই অবিলম্বে উপনির্বাচন দিলে ভাল হবে। স্কুল পাড়ার মুফিজ আলম বলেন, সাধারণ মানুষ কষ্টে আছে। অবিলম্বে জামাল মেম্বারকে মুক্তি দেওয়া হোক না হলে উপনির্বাচন দেওয়া হোক। লামার পাড়ার যুবলীগ নেতা হেলাল উদ্দিন জানান,আমরা রাজনীতি করি কিন্তু স্থানীয় মেম্বার ও চেয়ারম্যানের নিকট গিয়ে কোন ধরনের মূল্যায়ন পায়না। এখন মেম্বার না থাকায় স্বশস্ত্র অপরাধীরা সক্রিয় হয়ে উঠেছে। সুতরাং এলাকার শান্তি-শৃংখলার স্বার্থে একটি উপনির্বাচন দরকার।
এই ব্যাপারে হ্নীলা ইউপির প্যানেল চেয়ারম্যান আবুল হোছন বলেন,জামাল মেম্বার কারাগারে থাকলেও পদ শূন্য হয়নি। আমি ৬নং ওয়ার্ডের মেম্বার হিসেবে পাশ্ববর্তী ৭নং ওয়ার্ডের বিচার-সালিশসহ যাবতীয় কার্যক্রম চালিয়ে আসছি।
এই বিষয়ে টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ জাহেদ হোছন ছিদ্দিক জানান,যদি ৬মাস যাবত কারাগারে থাকলে নিয়মানুসারে সদস্য পদ বাতিল হওয়ার কথা। কিন্তু এই বিষয়ে আমার নিকট কোন ধরনের অভিযোগ না আসায় আমার জানা ছিলনা। বিষয়টি খতিয়ে দেখে পদক্ষেপ নেওয়া হবে।