উত্তর সিটির নির্বাচনী কার্যক্রম স্থগিত করল ইসি

image-8034-1516179088.jpg

ইসির ভারপ্রাপ্ত সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ। ফাইল ছবি

টেকনাফ টুডে ডেস্ক |

ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়রের শূন্যপদে উপনির্বাচন ও সম্প্রসারিত অংশের কাউন্সিলর নির্বাচনের সব কার্যক্রম স্থগিত ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)।

বুধবার দুপুরে আগারগাঁওয়ের নির্বাচন ভবনে নিজ কার্যালয়ে ইসির ভারপ্রাপ্ত সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ গণমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে ডিএনসিসির মেয়র পদে উপনির্বাচনের তফসিলের কার্যকারিতা তিন মাসের জন্য স্থগিত করেন হাইকোর্ট। ডিএনসিসির সম্প্রসারিত অংশের কাউন্সিলর নির্বাচনের সার্কুলারের কার্যক্রমও স্থগিত করা হয়।

হাইকোর্টের ওই স্থগিতাদেশের পর পরই নির্বাচন কমিশন এমন সিদ্ধান্তের কথা জানায়।

হেলালুদ্দীন আহমদ বলেন, গণমাধ্যমের মাধ্যমে জানতে পেরেছি হাইকোর্ট ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচন স্থগিত করেছেন। রায়ের কপি পেলে আইনজীবীদের সঙ্গে কথা বলে কমিশন পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেবে।

এখন আপিল করবেন কিনা জানতে চাইলে ইসির ভারপ্রাপ্ত সচিব বলেন, আদালত থেকে লিখিত আদেশ পেয়ে কমিশন আইনজীবীদের সঙ্গে কথা বলে পরবর্তী কার্যক্রম নির্ধারণ করবে।

আইনি কোনো ঘাটতি ছিল কিনা, এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, আইনি কোনো কমতি ছিল না। সব প্রস্তুতি নিয়েই নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হয়েছিল।

ইসি সূত্রে জানা গেছে, এ পর্যন্ত মেয়র পদে ১৯, সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৪১২ ও সংরক্ষিত পদের জন্য ৭১ জন মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন। মেয়র পদের কেউ এখনও মনোনয়ন জমা দেননি। মাত্র দুজন সাধারণ কাউন্সিলর মনোনয়ন জমা দিয়েছেন।

হেলালুদ্দীন আহমদ জানান, যারা মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন, তাদের নতুন করে আর মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করতে হবে না। তবে মনোনয়ন জমা নেয়া বা দেয়া কার্যক্রম আপাতত বন্ধ রাখা হয়েছে।

আনিসুল হকের মৃত্যুতে শূন্য হওয়া ঢাকা উত্তরের মেয়র পদে উপনির্বাচন এবং দুই সিটিতে নতুন যুক্ত হওয়া ৩৬টি ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত আসনের কউন্সিলর নির্বাচনের জন্য গত ৯ জানুয়ারি তফসিল ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন।

সেখানে ২৬ ফেব্রুয়ারি ভোটের দিন ঠিক করে নির্বাচনের বিস্তারিত সময়সূচি দেয়া হয়।

ওই তফসিলের বৈধতা চ্যালঞ্জ করে এবং তফসিলের কার্যকরিতার ওপর স্থগিতাদেশ চেয়ে মঙ্গলবার হাই কোর্টে রিট আবেদন করেন ভাটারা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আতাউর রহমান ও বেরাইদ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম।

তাদের মধ্যে আতাউর ভাটারা থানা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক, আর জাহাঙ্গীর বাড্ডা থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক। তাদের দুই ইউনিয়নকে সিটি কর্পোরেশনের সম্প্রসারণে ওয়ার্ড হিসেবে যুক্ত করে নেয়া হয়েছে।