শরীয়তপুরে স্বামীর নির্যাতন সইতে না পেরে নিজের গায়ে আগুন

family-20171223105852.jpg

টেকনাফ টুডে ডেস্ক : স্বামীর নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে গায়ে আগুন দিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করেছেন সেফালী বেগম নামে এক গৃহবধূ। বর্তমানে তিনি ডামুড্যা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি। তার অবস্থা আশংকাজনক। এ ঘটনায় শনিবার সকালে পুলিশ একটি জিডি করেছে।
বৃহস্পতিবার রাতে ডামুড্যা উপজেলার পূর্বডামুড্যা ইউনিয়নের ভয়রা গজারিয়া গ্রামের সেফালী তার স্বামীর বাড়িতে এ ঘটনা ঘটান। তিনি ওই গ্রামের সেকুল সরদারের স্ত্রী।
এ ব্যাপারে ডামুড্যা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক ডা. ইমরান আহমেদ জানান, বৃহস্পতিবার রাতে স্বজনরা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসেন সেফালীকে। তার শরীরের ৯০ শতাংশ পুড়ে গেছে।
স্থানীয় ও সেফালীর পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, ২০১২ সালে উপজেলার পূর্ব ডামুড্যা ইউনিয়নের ভয়রা গজারিয়া গ্রামের নুরু সরদারের ছেলে সেকুল সরদার ও একই উপজেলার ইসলামপুর ইউনিয়নের গঙ্গসকাঠি গ্রামের আলী আহম্মদের মেয়ে সেফালী বেগমের পারিবারিকভাবে বিয়ে হয়। সেকুল সরদার মাদক সেবন করতেন। বিয়ের পর থেকে বাবার বাড়ি থেকে মাদকের টাকা আনার জন্য সেফালীকে মারধর করতেন সেকুল।
বৃহস্পতিবার রাতে মারধর করলে সহ্য না করতে পেরে ঘরের দরজা বন্ধ করে সেফালী বেগম নিজের শরীরে কেরোসিন ঢেলে আগুন দেন। ঘটনার পর থেকে সেকুল সরদার ও তার পরিবার পলাতক রয়েছেন।
ডামুড্যা থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মাহবুবুর রহমান চৌধুরী বলেন, এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত কোনো অভিযোগ করতে কেউ থানায় আসেননি। আমরা একটি জিডি করে রেখেছি।