স্মার্ট কার্ড প্রকল্পের মেয়াদ বাড়ল

smartcard.jpg

টেকনাফ টুডে ডেস্ক : সরকারি অর্থায়নে আইডিইএ (আইডেন্টিফিকেশন সিস্টেম ফর এনহ্যান্সিং এক্সেস টু সার্ভিস) প্রকল্পের মেয়াদ আরও এক বছর বাড়াতে অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগ (ইআরডি) অনাপত্তি দিয়েছে।এর ফলে ডিসেম্বরে শেষ হতে যাওয়া প্রকল্পটির মেয়াদ ২০১৮ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত বাড়ল।বিশ্ব ব্যাংকের অর্থায়নে নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের আওতাধীন আইডিইএ প্রকল্পটি নাগরিকদের স্মার্ট কার্ড দিয়ে আসছে। বিশ্ব ব্যাংক ও জাতিসংঘ উন্নয়ন কর্মসূচি-ইউএনডিপির সহায়তায় আইডিইএ প্রকল্পের আওতায় ২০১১ সালের জুলাইয়ে নয় কোটি নাগরিককে উন্নতমানের জাতীয় পরিচয়পত্র দেওয়ার চুক্তি হয়।
এই প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য ২০১৫ সালের জানুয়ারিতে স্মার্ট কার্ড উৎপাদন-বিতরণে ফ্রান্সের প্রতিষ্ঠান অবার্থুর টেকনোলজিসের সঙ্গে চুক্তি করে ইসি। প্রকল্পটির মেয়াদ শেষ হওয়ার কথা ছিল ২০১৬ সালের জুনে। পরে মেয়াদ ১৮ মাস বাড়িয়ে ২০১৭ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত করা হয়।
সম্প্রতি ফরাসি কোম্পানির সঙ্গে চুক্তি বাতিল হওয়ার পর প্রকল্পে অর্থায়নে অনাগ্রহ দেখায় বিশ্ব ব্যাংক। পরে নতুন নামে সরকারি অর্থায়নে একটি প্রকল্প নেওয়ার প্রক্রিয়া চলছিল।
নিজস্ব অর্থায়নে প্রকল্পের বিষয়ে ইসির চিঠির পরিপ্রেক্ষিতে অর্থ মন্ত্রণালয়ের ইআরডির সহকারী প্রধান ফয়সল জহুর মঙ্গলবার ইসি সচিবালয়কে এক চিঠিতে জানান, আইডিইএ প্রকল্পের ব্যয় না বাড়িয়ে এক বছর মেয়াদ বাড়ানোর প্রস্তাবে জিওবি অর্থায়নে প্রকল্প বাস্তবায়নের নিশ্চয়তা সাপেক্ষে এ বিভাগের অনাপত্তি রয়েছে।
ইসির এনআইডি উইংয়ের কম্যুনিকেশন অফিসার হোসাইন আশিকুর রহমানও জানান, প্রকল্পটির মেয়াদ বাড়ানোর বিষয়টি তারা অবগত রয়েছেন।
গেল বছর অক্টোবরে নাগরিকদের স্মার্ট কার্ড বিতরণ শুরু হয়। আগামী বছরের ডিসেম্বরের মধ্যে সবার কাছে উন্নতমানে এ কার্ড পৌঁছে দেওয়ার কথা রয়েছে।
নির্বাচন কমিশনের এনআইডি উইংয়ের মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোহাম্মদ সাইদুল ইসলাম বলেছেন, বিজয়ের মাসে দেশের অর্ধেক এলাকায় বিতরণ শুরুর পর ভাষার মাস ফেব্রুয়ারিতে বাকি সব জেলায়ও বিতরণে যাওয়ার পরিকল্পনা রয়েছে। যাতে করে আগামী বছরের ডিসেম্বরের মধ্যে নাগরিকদের হাতে স্মার্ট কার্ড পৌঁছে দেওয়া সম্ভব হয়।