হোয়াইক্যংয়ে বসত-বাড়িতে ডাকাতি করে স্বর্ণলঙ্কার ও টাকাসহ প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র লুট

WWW.jpg

জাহাঙ্গীর আলম,টেকনাফ:
টেকনাফ উপজেলার হোয়াইক্যং ইউনিয়ন জোয়ারীখোলায় আনোয়র মিয়া প্রকাশ আনুর বাড়িতে রাতে ডাকাতি করে স্বর্ণলঙ্কার ও টাকাসহ প্রযোজনীয় জিনিসপ্রত্র লুটের ঘটনা ঘটেছে।
জানা যায় যে,২৬ নভেম্বর ভোর রাতে ১৪/১৫ জনের একদল ডাকাত হোয়াইক্যং জোয়ারীখোলায় আনোয়ার মিয়া প্রকাশ আনুর বাড়িতে দরজা ভেঙ্গে নারী ও পুরুষ দের মারধর করে আলমারী ভেঙ্গে ৫ ভরি স্বর্ণ ও নগদ ৮০ হাজার টাকা জমিনের কাগজ পত্র সহ প্রয়োজনীয় জিনিস পত্র নিয়ে যায়। এই সময় বাড়িতে থাকা আনু মিয়ার পুত্র সাদ্দাম হোসেন(১৪) ও রাশেদা আক্তার (২০ কে ব্যাপক মারধর করে এবং রাশেদা আক্তারকে শারীরিক ভাবে নির্যাতন করে।
সরেজমিনে গিয়ে ঘটনার বিষয় আরো লক্ষ করা যায়,ডাকাত দলটি প্রথমে রান্নার ঘরে ছোট্র দরজা টি লাটি মেরে ভাঙ্গে এরপর তখন বাড়ি ভিতর থাকা লোকজনদের হাত পা বাদে অস্ত্র ঢেকিয়ে মারধর করে। কয়েকটি রুমে থাকা ২টি আলমারী ভেঙ্গে স্বর্ণ ও টাকা সহ প্রয়োজনীয় জিনিস পত্র নিয়ে যায়। ডাকাত দলে সদস্যরা যাওয়ার সময় তাদের বিভিন্ন রকমের হুমকি,দমকি দেয়।
আনু মিয়ার পাশের বাড়ির নজির আহমদ(৬০) বলেন ভোর রাতের আনু মিয়ার বাড়িতে বিভিন্ন রকমের শব্দ শুনতে পাই এবং আধা ঘন্টা পর চিৎকার করতে শুনি এরপর তাদের বাড়ি গিয়ে দেখলাম দরজা জানালা ভাঙ্গা ,রুমে গিয়ে দেখলাম দুইটি আলমারী ভেঙ্গে ফেলে জিনিস পত্র নিয়ে গেছে।সাদ্দাম হোসেন কে মারধর করে আহত করেছে ও রাশেদা আক্তার কে শারিরীক ভাবে নির্যাতন চালিয়েছে।
আরেক প্রতিবেশি রমজান আলী(৩৫) বলেন,আমি শুনেছি আনু মিয়ার বাড়িতে ডাকাতি হয়েছে রাতে আনু মিয়ার বাড়ি গিয়ে দেখলাম দরজা,জানালা ভাঙ্গা ও আলমারী ভাঙ্গা এদের কাছ থেকে জানলাম বাড়ি থাকা ৫ ভরি স্বর্ণ ও নগদ ৮০ হাজার টাকা সহ প্রয়োজনীয় কাগজ পত্র নিয়ে যায়।
আনু মিয়ার মেয়ে রাশেদা বেগম বলেন,আমরা রাতে ঘুমাচ্ছিলাম ভোর রাতে রান্ন ঘরের দরজা ভাঙ্গার শব্দ শুনতে পায় তখন হঠাৎ করে ১৪/১৫ জনের মত ডাকাত দল বাড়িতে ডুকে প্রথমে আমার ভাই সাদ্দাম হোসেন কে মারধর করে আমি বাধা দিতে গেলে আমাকে মারধর করে এক পর্যায় আলমারী ভেঙ্গে ৫ ভরি স্বর্ণ ও নগদ ৮০ হাজার টাকা সহ প্রয়োজনীয় কাগজ পত্র নিয়ে যায়। আমাদের চিৎকার শুনে আশপাশের লোকজন আসলে এর আগে ডাকাত রা সব কিছু নিয়ে পালিয়ে যায়।বর্তমানে আমার ভাই কক্সবাজার সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে সকালে তাকে হাসপাতালে পাঠিয়ে দিই।
এবিষয় হোয়াইক্যং পুলিশ ফাঁড়ি আইসি এসআই জয়নাল আবেদিন বলেন,রাতে শুনি জোয়ারীখোলা গ্রামে আনু মিয়ার বাড়িতে ডাকাতির ঘটেনা ঘটেছে তা শুনে আমি সঙ্গীয় র্ফোস নিয়ে আনু মিয়ার বাড়িতে যায়। এবং ঘটনাস্থল পরিদর্শন করি পরিবারে লোকজনদের কাছ থেকে ঘটনার বর্ণনা জানতে পারি।এবিষয় লিখিত অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।