ফলোআপ : নব্বই বছরের বৃদ্ধের জোরপূর্বক জমি রেজিস্ট্রি, টেকনাফে সেই ভূমিদস্যূ চক্রের বিরুদ্ধে আদালতের নোটিশ, জমির বেচাবিক্রি-নামজারীসহ সব ধরনের কর্মকান্ডে নিষেধাজ্ঞা

Teknaf-pic_08.11.jpg

নিজস্ব প্রতিবেদক :
টেকনাফে নব্বই বছরের বৃদ্ধকে অপহরণ করে গভীর রাতে হোটেলে নিয়ে জোর করে বসতভিটা রেজিস্ট্রি করে নেওয়ার ঘটনায় ভূমিদস্যূ চক্রের বিরুদ্ধে কারণ দর্শানো নোটিশ জারি করেছে আদালত। একই সাথে উক্ত জমির নামজারী, বেচাবিক্রি, জমিতে জোরপূর্বক প্রবেশ ও গৃহ নির্মাণ, জমির শ্রেনী পরিবর্তন, অধিগ্রহন, ক্ষতিপূরনসহ সব ধরনের কর্মকান্ডে অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা জারী করেছে আদালত। গত ৬ নভেম্বর বাদী হাজী আব্দু ছামদ এর আবেদনের প্রেক্ষিতে যুগ্ন জেলা জজ ছৈয়দ মুহাম্মদ ফখরুল আবেদীন উক্ত আদেশ প্রদান করেন। যার মামলা নং অপর ৩৬৮/২০১৭। আদেশে আগামী ১০ দিনের মধ্যে নোটিশের জবাব দিতে বিবাদী মেহেমুদ রিসোর্টস লিমিটেড এর স্বত্বাধিকারী একেএম সাহাবুল আলম গংকে নির্দেশ প্রদান করেছেন।
এছাড়া হাজী আব্দু ছামদ বাদী হয়ে জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ভূমিদস্যূ চক্রের বিরুদ্ধে প্রতারনার মামলা দায়ের করেছেন মামলা নং সিআর ৪৫৪/২০১৭। উক্ত মামলার আসামীরা হচ্ছেন মেহেমুদ রিসোর্ট এর মালিক ঢাকা গুলশান এর একেএম সাহাবুল আলম, টেকনাফ বাহারছড়া বড়ডেইল মারিশবনিয়া এলাকার মৃত আবুল হাশেমের ছেলে আব্দুল আজিজ, নজির আহমদের ছেলে নিজাম উদ্দিন, জালাল আহমদের ছেলে আয়াজ উদ্দিন, শামলাপুর পুরান পাড়ার সিরাজ মৌলভীর ছেলে হেলাল উদ্দীন ও কক্সবাজার পোকখালী এলাকার মোহাম্মদ শফির ছেলে মোস্তাক আহমদ।
প্রসঙ্গত গত ১৮ অক্টোবর মঙ্গলবার টেকনাফ বাহারছড়া ইউনিয়নের বড়ডেইল মারিশবনিয়া এলাকার হাজী আব্দুস সামাদ কে উক্ত ভূমিদস্যু চক্র পরস্পর যোগসাজসে কক্সবাজারের একটি হোটেলে নিয়ে গভীর রাতে ১ একর ১০ শতক বসতভিটা রেজিস্ট্রি করে নেয়।

এ ঘটনার পরদিন সকালে বৃদ্ধ আব্দুস সামাদের সন্দেহ হলে টেকনাফ সাবরেজিস্ট্রি অফিসে খোঁজ নিয়ে জানতে পারে দালাল চক্র তার কাছ থেকে আপোষনামার কথা বলে কক্সবাজারে নিয়ে কমিশনে মূলত ৩ জন দাতার নামে ও গ্রহীতা মেহবুব রিসোর্ট লিমিটেড এর পক্ষে একেএম মাহবুব আলম ঢাকার নামে সম্পাদিত একটি দলিলে বড়ডেইল মৌজার বিএস ৫৭০, ২৬৪, ২৬৫, ২৬২, ২৬৩, ৬৩৩নং খতিয়ানের ১৬১৪, ১৬০৫, ১৬০৭,১৬০৯, ১৫৩৪, ১৫৩৫, ১৫৪৮, ১৫২৫, ১৫২৮, ১৫২৯, ১৫৩৫, ২০১১, ২০১৭ দাগের ঘরভিটার ১ একর ১০ শতক জমি সাব-কবলা সম্পাদন করে নেয়। যার দলিল নং ২৪৫১, তারিখ ১৮/১০/২০১৭ইং। উক্ত জমির মূল্য প্রায় অর্ধ কোটি টাকার বেশী।

গভীর রাতে কিভাবে এ দলিল সম্পাদিত হলো তা জানতে সেসময় টেকনাফ সাবরেজিস্টি অফিসে যোগাযোগ করা হলে তাদের বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

এদিকে ভয়ংকর প্রতারণার এ ঘটনায় জমির মালিক বৃদ্ধ আব্দুস ছামদ ভূমিদস্যূ চক্রের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করায় উক্ত প্রতারক চক্র দিশেহারা হয়ে তাকে হুমকি ধামকি দিয়ে যাচ্ছে বলে জানিয়েছেন তিনি। ভূমিদস্যু চক্রের সদস্য নেজাম উদ্দিন সহ অন্যান্যরা বৃদ্ধ আব্দু ছামদকে নানা ভাবে হুমকি ধামকি দিয়ে যাচ্ছে।
এব্যাপারে প্রশাসন, ভূমি প্রশাসন সহ সকলের সহযোগীতা কামনা করেছেন তিনি।
উল্লেখ্য গত ১৯ অক্টোবর টেকনাফ টুডে ডটকম এ এসংক্রান্ত সচিত্র সংবাদ প্রকাশিত হলে সর্বমহলে টনক নড়ে।