নাইক্ষ্যংছড়ি বিদর্শন ভাবনা কেন্দ্রের ভিক্ষু ও গাড়ী চালকের উপর দুর্বৃত্তদের হামলা

hamla.jpg

শামীম ইকবাল চৌধুরী, নাইক্ষ্যংছড়ি (বান্দরবান) :
নাইক্ষ্যংছড়ি সদরের এক মাত্র বিদর্শন ভাবনা কেন্দ্রের দায়িত্বরত অধক্ষ্য প্রজ্ঞাকরুণা ভিক্ষুর উপর দৃর্বৃত্তরা হামলা চালিয়েছে সাতকানিয়ায়। গত ২৯ অক্টোবর (রবিবার) রাত সাড়ে ১১টার দিকে এই ঘটনা ঘটে।দুর্বৃত্তরা এসময় চারটি মোবাইল সেটসহ সাথে থাকা টাকা এবং অন্যান্য জিনিসপত্র লুট করে নেয়।
এই দুর্বৃত্তের হামলার ঘটনা সত্যতা স্বীকার করে নাইক্ষ্যংছড়ি প্রজ্ঞামিত্র অরুণ বিদর্শন ভাবনা কেন্দ্রের সাধারণ সম্পাদক অসীম বড়–য়া জানান, অধ্যক্ষ প্রজ্ঞাকরুণা ভিক্ষ, রামু উত্তর ফতেখাঁরকূল বিবেকারাম বিহারের অধ্যক্ষ ভদন্ শীল মিত্রের শির্ষ্য এবং নাইক্ষ্যংছড়ি প্রজ্ঞামিত্র অরুণ বিদর্শন ভাবনা কেন্দ্রের অধক্ষ্যের দায়িত্ব পালন করে আসছেন বছর ধরে।
ভাবনা কেন্দ্রেরের সূত্রে জানাযায়, রাঙ্গুনিয়া থানাধীন ঘাটচেক ধর্মামৃত বিহারের কঠিন চীবর দান থেকে ফেরার পথে সাতকানিয়া থানাধীন কেরানিহাটের জাফর আহম্মদ ৎ্করলেজের কাছাকাছি পৌছলে প্রথমে কয়েকজন তাদের গাড়ির গতিরোধ করার চেষ্টা করেন। দুর্বৃত্তরা গাড়ির দিকে ধারালো কিরিচ ছুড়ে মারলে বিকট শব্দ হয়। তারপর গাড়ি থামান তারা। সাথে সাথে কয়েক জন লোক গালিগালাজ করতে করতে তার উপর ঝাপিয়ে পড়ার চেষ্টা করেন। তখন গাড়ির চালক আব্বু বড়ুয়া তাদের বাধা দেওয়ার চেষ্টা করলে তারা আব্বু বড়ুয়াকে প্রচন্ড মারধর করেন। মুহূর্তের মধ্যে তাদের সংখ্যা বাড়তে থাকে। সবমিলে ১০-১৫ জন লোক ধারালো অস্ত্র নিয়ে তাদের উপর হামলা চালান। হামলায় প্রজ্ঞাকরুণা ভিক্ষু এবং চালক আব্বু বড়ুয়া জখমপ্রাপ্ত হন। দুর্বৃত্তদের হাতে কিরিচ জাতীয় ধারালো অস্ত্র ছিল বলে জানান প্রজ্ঞাকরুণা ভিক্ষু।
সুত্রে আরো জানাযায়, ওই সময় রাস্তা ফাঁকা ছিল। তারা সাহায্যের জন্য চিৎকার করলেও কেউ এগিয়ে আসেননি। ঘটনার এক পর্যায়ে তারা নিজেদেরকে কোন প্রকারে ছাড়িয়ে নিয়ে গাড়িতে উঠে দ্রুত পালিয়ে আসেন। পরে মধ্যরাতে রামুতে পৌছে স্থানীয় রামু হাসপাতালে চিকিৎসা নেন। তিনি বর্তমানে রামু উত্তর ফতেখাঁররকুল বিবেকারাম বিহারে আছেন।
এদিকে সাতকানিয়া থানার সাথে যোগাযোগ করা হলে থানার সেকেন্ড অফিসার জানান, ঘটনার বিষয়ে তারা অবগত হয়েছেন। এই বিষয়ে তারা দ্রুত পদক্ষেপ নিবেন।