হিমিও ন্যায় বিচার চাইছেন

himi.jpg

টেকনাফ টুডে ডেস্ক:‘মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ’ প্রতিযোগিতার রায় ঘোষণায় অবিচার করা হয়েছে অভিযোগ করে ন্যায়বিচার চেয়েছেন এই প্রতিযোগিতায় দ্বিতীয় রানার আপ জান্নাতুল সুমাইয়া হিমি। শুক্রবার প্রতিযোগিতার চূড়ান্ত পর্বের ফল ঘোষণায় প্রথমে চ্যাম্পিয়ন হিসেবে তার নামই ঘোষণা করা হয়েছিল, যা ভুলবশত হয়েছিল বলে দাবি আয়োজকদের।
অপরদিকে প্রতিযোগিতায় বিজয়ী ঘোষিত জান্নাতুল নাঈম এভ্রিল বিচারকদের পছন্দের তালিকাতেই ছিলেন না বলে অভিযোগ উঠেছে। প্রথম রানার আপ ঘোষিত জেসিয়া ইসলামই ছয় বিচারকের মনোনয়ন পেয়েছিলেন বলে গণমাধ্যমের খবর।
বিষয়টি নিয়ে তুমুল আলোচনার মধ্যে রোববার জান্নাতুল সুমাইয়া হিমি গ্লিটজকে বলেন, “আমরা যদি দেশের মানুষের জন্য কাজ করতে চাই অবশ্যই আমাদের সৎ থাকতে হবে। আমরা শুধু মুখে বলব- দেশের মানুষের জন্য, বাচ্চাদের জন্য, নারীদের জন্য কাজ করব কিন্তু শো’টাই করব করাপ্টেড। শো’তেই করাপশন থাকবে আবার করাপশন দূর করার স্লোগান দেব। তাহলে কীভাবে হবে?”
চ্যাম্পিয়ন হিসেবে তার নাম ঘোষণায় ভুল ছিল না বলে মনে করছেন হিমি। এ বিষয়ে আয়োজকদের বক্তব্য নাকচ করে তিনি বলেন, “আপনারা যদি অনুষ্ঠানটা দেখেন, প্রথমে আমাকে যখন পরিচয় করানো হলো তখন হিমি বলা হয়েছিল। প্রশ্ন করার সময়ও বিচারকরা হিমি বলেই সম্বোধন করেছিলেন।
“উইনার যখন ঘোষণা করা হয়েছে তখন শিনা চৌহান বলেছেন, ‘উইনার ইজ হিমি।’ আমার পুরো নামে জান্নাতুন সুমাইয়া আছে। সেটা কিন্তু কোনো জায়গায় বলা হয়নি।”
ভুলবশত তার নাম ঘোষণার কথা জানিয়ে অনুষ্ঠানেই আয়োজকরা বলেছিলেন, জান্নাতুল নাঈম এভ্রিল ও জান্নাতুল সুমাইয়া হিমি- দুই নামে মিলের কারণে ঘটেছে ওই বিভ্রাট।
ভারতীয় উপস্থাপিকা শিনা চৌহান বাংলায় লেখা চিরকুট বুঝতে না পারায় ওই ভুল হয়েছে বলে আয়োজকদের অপর বক্তব্যও নাকচ করেছেন হিমি।
“উনি (শিনা চৌহান) কলকাতার মানুষ। আমার মনে হয় না বাংলা নিয়ে উনার খুব বেশি সমস্যা আছে। আমরা যখন উনার সঙ্গে শো’তে ছিলাম উনার বাংলায় খুব বেশি সমস্যা হয়নি। আমরা বাংলাতেই কথা বলেছি। এই দুটো ব্যাপারের সঙ্গে অর্গানাইজারদের বক্তব্য মিলছে না।”
আয়োজকদের বক্তব্য নাকচ করে শিনা চৌহানও বলেছেন,তাকে যে নাম দেওয়া হয়েছিল, সেই নামই তিনি ঘোষণা করেছিলেন।
পরে আয়োজকরাই জান্নাতুল নাঈম এভ্রিলের নাম ঘোষণা করেন।
বিজয়ী ঘোষিত এই এভ্রিল বিচারকদের পছন্দে হননি বলে জানিয়েছেন ছয় বিচারকের একজন শম্পা রেজা।
তিনি শনিবার রাতে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, তিনি যে দুজনের পক্ষে রায় দিয়েছিলেন তাদের মধ্যে ছিলেন না জান্নাতুল নাঈম এভ্রিল।
তার সঙ্গে অপর কোনো বিচারকের মতের মিল ছিল কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, “আমরা সবাই একমত ছিলাম।”
প্রতিযোগিতার ফল নিয়ে এখন যে বিতর্ক উঠেছে তা নিরসনে নতুন করে চূড়ান্ত পর্বে ১০ প্রতিযোগীর পারফরম্যান্স যাচাইয়ের দাবি করছেন জান্নাতুল সুমাইয়া হিমি।
তিনি বলেন,“নতুন জাজদের এনে আমাদের সব এপিসোডগুলো দেখে ওটার উপর ভিত্তি করে ওরা যদি রেজাল্ট করে আমার মনে হয়, সেটা বাংলাদেশের জন্য ভালো হবে। আর দর্শকরাও এটা নেবে। দর্শকদের এতো বোকা ভাবলে হবে না।”
গত অগাস্ট থেকে শুরু হওয়া ‘লাভেলো মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ’ শীর্ষক এ প্রতিযোগিতায় প্রায় ২৫ হাজার প্রতিযোগী অংশগ্রহণ করেন। চূড়ান্ত পর্বে অংশ নেওয়া অন্যরা হলেন- রুকাইয়া জাহান চমক, জারা মিতু,সাদিয়া ইমান, তৌহিদা তাসনিম তিফা, মিফতাহুল জান্নাত, সঞ্চিতা রানী দত্ত ও ফারহানা জামান তন্দ্রা।