কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ কর্তৃক বিশ্ব বসতি দিবস ২০১৭ উদযাপিত

IMG_1483-1.jpg

সংবাদ বিজ্ঞপ্তি : ০২ অক্টোবর, ২০১৭ ইং সকাল ১১টায় কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ কর্তৃক বিশ^ বসতি দিবস ২০১৭ পালন করা হয়। ‘‘গৃহায়ন নীতিমালা: সাধ্যের আবাস’’ এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে অনুষ্ঠিত সভায় সভাপতিত্ব করেন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান লে: কর্ণেল (অব:) ফোরকান আহমদ, এলডিএমসি, পিএসসি।

বিশ^ বসতি দিবসের গুরুত্বারোপ করে সভাপতি বলেন, মানুষের মৌলিক অধিকারের অন্যতম একটি হলো নিশ্চিত বাসস্থান। তিনি বলেন মধ্যবিত্ত, নি¤œবৃত্ত ও দরিদ্র জনগোষ্ঠির ক্রয়সীমার মধ্যে রেখে আবাসন নিশ্চিত করা খুবই জরুরী। তাছাড়াও জাতি, ধর্ম, বর্ণ, ভাষা, মতবাদ নির্বিশেষে গৃহায়ন সুবিধাদিতে সকলের সমান প্রবেশাধিকার নিশ্চিত করা প্রয়োজন। তদুপরি কক্সবাজারে সরকারি জমিতে অবৈধভাবে গড়ে উঠা ভূমিহীন বস্তিবাসীদের পুনর্বাসনের জন্য অত্র দপ্তর হতে প্রকল্প গ্রহণের আশ^াস প্রদান করেন।
তিনি আরো বলেন, কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ পরিকল্পিত নগরায়নে বদ্ধপরিকর। সরকারের এ কার্যক্রম বাস্তবায়নে এবং ইমারত নির্মাণ বিধিমালা অনুযায়ী পরিবেশ বান্ধব বসতি গড়ে তুলতে সকলের সহযোগিতা প্রয়োজন।

সভায় আজকের প্রতিপাদ্য বিষয়ের উপর পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেন্টেশন এবং সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের সদস্য (প্রকৌশল) লে: কর্ণেল মোহাম্মদ আনোয়ার উল ইসলাম। এছাড়া পরিকল্পিত আবাসন ব্যবস্থা নিশ্চিতকরণের লক্ষ্যে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন গণপূর্ত বিভাগ, কক্সবাজার এর নির্বাহী প্রকৌশলী, মো: নুরুল আমিন মিয়া, কক্সবাজার দক্ষিণ বন বিভাগের ডিএফও মো: আলী কবীর, ট্যুরিস্ট পুলিশ, কক্সবাজার এর পুলিশ সুপার মো: জিল্লুর রহমান, কক্সবাজার পৌরসভার নির্বাহী প্রকৌশলী মোহাম্মদ নুরুল আলম, পানি উন্নয়ন বোর্ড, কক্সবাজার এর নির্বাহী প্রকৌশলী সবিবুর রহমান, কক্সবাজার পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের অধ্যক্ষ প্রকৌশলী প্রদীপ্ত খীসা, কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের বোর্ড সদস্য ইঞ্জিনিয়ার বদিউল আলম, বাংলাদেশ পর্যটন কর্পোরেশন, কক্সবাজার এর ব্যবস্থাপক সৃজন বিকাশ বড়–য়া, প্রমূখ। অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের বোর্ড সদস্য ডা. সাইফুদ্দিন ফরাজি, কক্সবাজার পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি এর ডিজিএম (কারিগরী) মো: আব্দুন নুরসহ কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের কর্মকর্তাবৃন্দ এবং বিভিন্ন ইলেকট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ।