নাইক্ষ্যংছড়ির ঘুমধুমে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী-মিয়ানমারের কোন সন্ত্রাসীকে বাংলাদেশের ভুখন্ড ব্যবহার করতে দেওয়া হবেনা

77.jpg

শামীম ইকবাল চৌধুরী,নাইক্ষ্যংছড়ি:সরকারের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন রোহিঙ্গারা মজলুম। তারা নির্যাতিত। তাদের মিয়ানমারে ফিরিয়ে নিতে জোরালো কুটনৈতিক তৎপরতা চলছে। শ্রীঘ্রই মিয়ানমার সরকারের একটি উচ্চ পর্যায়ের প্রতিনিধি দল বাংলাদেশে আসছেন। রোহিঙ্গারা মিয়ানমারে ফিরিয়ে না যাওয়া পর্যন্ত সরকারের তরফ থেকে আবাসন, অন্ন বস্ত্র, চিকিৎসা সেবা অব্যাহত থাকবে। তাদের সাথে মানবিক আচরণ অটুট থাকবে। রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিরলস প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। লাখ-লাখ রোহিঙ্গাকে আশ্রয় দিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিশ্ববাসীর কাছে প্রশংসিত হয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী বলে দিয়েছেন, রোহিঙ্গা ইস্যু নিয়ে একটি মহল পরিস্থিতি ঘোলাটে করতে তৎপর। এবিষয়ে কোন প্ররোচনায় কান না দিতে সকলের প্রতি আহবান জানিয়ে সজাগ থাকার কথা বলেন।
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল ১ অক্টোবর (রবিবার) সকাল ১২টায় বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ির ঘুমধুম সীমান্তের তুমব্রু জিরো পয়েন্টে আশ্রিত রোহিঙ্গা বস্তির পরিদর্শন এবং পরবর্তী দুপুর ১টায় উখিয়ার কুতুপালং বস্তিতে বায়োম্যাট্রিক পদ্ধতিতে রোহিঙ্গা নিবন্ধন কার্যক্রম বুথ পরিদর্শন কালে উপরোক্ত কথাগুলো বলেন। তিনি আরো বলেন মিয়ানমারের কোন সন্ত্রাসীকে বাংলাদেশের ভুখন্ড ব্যবহার করতে দেওয়া হবেনা, অসহায় রোহিঙ্গাদের মানবিক দৃষ্টিকোণ থেকে আশ্রয় দেওয়া হয়েছে। তাদের জন্য প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে সবকিছু করা হয়েছে, পাশাপাশি আন্তর্জাতিকভাবে তাদেরকে মিয়ানমারে ফেরত দেওয়ার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে সরকার। এ সময় তিনি সেখানে অবস্থান নেওয়া ১৮শ রোহিঙ্গা পরিবারের মাঝে ত্রান বিতরন করেন। এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন,বিজিবি প্রধান মেজর জেনারেল আবুল হোসেন,কক্সবাজার জেলা প্রশাসক আলী হোসেন, পুলিশ সুপার ড.এ,কে এম ইকবাল হোসেন, বান্দরবান জেলা প্রশাসক দিলীপ কুমার বনিক,পুলিশ সুপার সঞ্জিত কুমার রায়, ৩৪ বিজিবির অধিনায়ক মঞ্জুরুল হাসান খান, উপ অধিনায়ক ইকবাল আহমদ,ব্যার ৭ এর অধিনায়ক লেঃ কর্ণেল মিফতাহ উদ্দিন,ব্যার ৭ কক্সবাজারসস্থ কোম্পানি কমান্ডার মেজর রুহুল আমিন, নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এসএম সরোয়ার কামাল, উখিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ মাঈন উদ্দিন, কুতুপালং ক্যাম্প ইনচার্জ রেজাউল করিম, উখিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ আবুল খায়ের, ঘুমধুম ইউপি চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আজিজ, নাইক্ষ্যংছড়ি সদর ইউপি চেয়ারম্যান তসলিম ইকবাল চৌধুরী, আওয়ামীলী সদস্য সচিব মোঃ ইমরান মেম্বার, যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক আলী হোসেন মেম্বার, যুবলীগ নেতা ফাহিম ইকবাল খাইরু চৌধুরীসহ সেনাবাহিনী, নৌবাহিনী ও কোস্টগার্ডের পদস্থ দায়ীত্বশীল সহ প্রশাসনের বিভিন্ন দপ্তরের পদস্থ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।