মায়ানমারের ৭৩ জন নাগরিককে ফেরত পাঠিয়েছে বিজিবি ও কোস্ট গার্ড

Rohingha_coast.jpg

শনিবার সকালে কোস্টগার্ড কর্তৃক পুশক্যাক করা ৫৬ রোহিঙ্গার একাংশ

জাহাঙ্গীর আলম, টেকনাফ |
কক্সবাজারের টেকনাফের বিভিন্ন পয়েন্ট দিয়ে অনুপ্রবেশকালে মায়ানমারের ৭৩ জন নাগরিককে আটক করে সেদেশে ফেরত পাঠিয়েছে বিজিবি ও কোস্ট গার্ড। টেকনাফের বিভিন্ন পয়েন্টে বিজিবির অভিযানে ১৭ জন এবং নাফ নদীতে কোস্ট গার্ডের অভিযানে ৫৬ জন মায়ানমারের নাগরিক আটক হয়। পরে এই ৭৩ জনকে মায়ানমারে ফেরত পাঠানো হয়।
টেকনাফস্থ বিজিবি ২ ব্যাটালিয়ানের অধিনায়ক লেঃ কর্ণেল এস এম আরিফুল ইসলমান জানান, গতকাল রাত থেকে ভোর পর্যন্ত টেকনাফের হোয়াইক্যং, উলুবনিয়া, লম্বাবিল পয়েন্ট দিয়ে মায়ানমারের ১৭ জন নাগরিককে আটক করে ফেরত পাঠানো হয়েছে।
কোস্ট গার্ডের পূর্বজোনের গণসংযোগ কর্মকর্তা লেঃ কমান্ডার ফকরুদ্দিন জানান, নাফ নদীতে একটি ফিশিং ট্রলারে করে মায়ানমারের ৫৬জন লোক বাংলাদেশে অনুপ্রবেশ করছিল। তাদের আটক করে সেদেশে ফেরত পাঠানো হয়।
বিজিবির সেক্টর কমান্ডার লেঃ কমান্ডার আনোয়ারুল আজিম জানান, বিজিবির টহল জোরদার রয়েছে।
কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মোঃ আলী হোসেন জানিয়েছেন, মায়ানমারের কোন নাগরিক যাতে বাংলাদেশে অনুপ্রবেশ করতে না পারে সেজন্য সর্বোচ্চ ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে প্রশাসন।
এদিকে বিজিবির নজরদারিকে এড়িয়ে মায়ানমারের অনেক নাগরিক বাংলাদেশের অনুপ্রবেশের প্রচেষ্টা চালাচ্ছে বলে সীমান্তের বিভিন্ন সূত্র থেকে জানা গেছে।
উল্লেখ্য, আনান কমিশনের রিপোর্ট প্রকাশিত হওয়ার পর পরই মায়ানমারের মংডুর নাইকাদং ও কোয়াংছিদং গ্রামে রোহিঙ্গাদের উপর গুলি বর্ষণ শুরু করে বর্ডার গার্ড পুলিশ (বিজিপি)। গুলিতে অনেক রোহিঙ্গা নিহত হয়েছে। তাই রোহিঙ্গারা প্রাণ বাঁচাতে বাংলাদেশের দিকে ছুটে আসছে।
এদিকে গতকাল অনুপ্রবেশকালে সীমান্তের বিভিন্ন পয়েন্টে অন্তত এক হাজার রোহিঙ্গাকে বাধা দিয়েছিল বিজিবি। এর প্রেক্ষিতে সীমান্তে বিজিবি কড়াকড়ি জোরদার করেছে।