উখিয়া-টেকনাফে সব দল মাঠে থাকলেও নিরব জামায়াত

jamat-e-islami_26544_1475355112.jpg

মুহাম্মদ হানিফ আজাদ, উখিয়া (কক্সবাজার) :
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে ঘিরে উখিয়া-টেকনাফে প্রস্তুতি চলছে বিভিন্ন দলে। নেতাকর্মীরাও বেশ উজ্জীবিত। সম্ভাব্য প্রার্থীরা বিভিন্ন কৌশলে ভোটারদের দৃষ্টি আকর্ষণের চেষ্টা করছেন। জামায়াত ইসলামী ছাড়া আওয়ামী লীগ, বিএনপি, জাতীয় পার্টিসহ সব দল প্রকাশ্যেই নির্বাচনী তৎপরতা চালাচ্ছে। অবশ্য উখিয়া-টেকনাফে আগ থেকেই জামায়াতের শক্তিশালী অবস্থান রয়েছে। এ কারণে কক্সবাজার-৪ উখিয়া-টেকনাফ ভাগ্যবান আসনটিতে জামায়াত নির্বাচন করুক বা নাই করুক জয়-পরাজয়েই জামায়াতের প্রভাব থাকবে বলে মনে করেন রাজনৈতিক সচেতন মহল। এবার আওয়ামী লীগ ও বিএনপি নেতাকর্মীরা উখিয়া-টেকনাফে সাংগঠনিক কর্মকান্ড চালানোর পাশাপাশি দলীয় কোন্দল মেটাতে ব্যস্ত রয়েছেন। এই ভাগ্যবান আসনটির বর্তমান এমপি আব্দুর রহমান বদি। তিনি এবার ১৫ আগষ্ট জাতীয় শোক দিবসে উখিয়ায় ৫ ইউনিয়নের জন্য ৫টি গরু বরাদ্ধ দিয়েছেন বলে উখিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গির কবির চৌধুরী জানিয়েছেন। রাজা পালং ইউনিয়নের চেয়ারম্যন ও আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নিজেও জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর শাহাদাৎ বার্ষিকীতে ৫ ইউনিয়নের জন্য ৫০ হাজার টাকা দেয়ার ঘোষণা দিয়েছেন। বিএনপি জামায়াত জোটগতভাবে নির্বাচন করলে এই আসনে বিএনপির সাবেক সাংসদ ও জেলা বিএনপির সভাপতি শাহ জাহান চৌধুরীই একক প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করবেন এটা দলীয় সূত্রে নিশ্চিত হওয়া গেছে। জাতীয় পার্টি ৩০০ আসনে নির্বাচন করলে সে ক্ষেত্রে নুরুল আমিন সিকদার ভূট্রোর মনোনয়ন অনেকটা নিশ্চিত বলে তিনি দাবী করেন। এখানে আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে মাঠে কাজ করছেন,কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও সাংগঠনিক টিমের প্রধান শাহ আলম চৌধুরী রাজা, সাবেক সংসদ সদস্য ও টেকনাফ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অধ্যাপক মোহাম্মদ আলী, উখিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অধ্যক্ষ হামিদুল হক চৌধুরী, টেকনাফের শিল্পপতি মোহাম্মদ ইয়াহিয়া, সাংবাদিক তোফায়েল আহমদসহ প্রবাসে অবস্থানরত পর্দার আড়ালে থাকা আরো একজন নৌকার মাঝি হতে জোর লবিং চালানোর খবর পাওয়া গেছে। এখানকার আওয়ামী পরিবারের লোকজন ভোটাররা বলেন, উখিয়া-টেকনাফ আসনের সব বিতর্ক বাদ দিয়ে সৎ,নিষ্ঠাবান, সাহসী ও প্রকৃত আওয়ামী লীগের একজন প্রার্থী শক্তভাবে নৌকার হাল ধরবেন এমনটিই প্রত্যাশা করেন। যেই যাই বলুক, দুই দুইবারের আলোচিত সাংসদ আব্দুর রহমান বদিই তৃতীয় বারের মতো মনোনয়ন পাচ্ছেন বলে কথা চাওর হচ্ছে। এখানকার সচেতন মহলের মতে, বর্তমানে উখিয়া-টেকনাফের রাজনীতিতে যোগ্য নেতার প্রকট সংকট দেখা দিয়েছে। মরণ নেশা ইয়াবা নামক মাদকের কালিমা লেপন হয়েছে অনেক নেতার গায়ে। সাধারণ নেতা-কর্মীদের সাথেও অনেক নেতার দূরত্ব সৃষ্টি হয়েছে। তাই স্বাধীনতার স্বপক্ষের শক্তি পেশাজীবি যোগ্য ব্যক্তির প্রতি দলীয় প্রার্থী হিসেবে নেতা-কর্মীদের আগ্রহ বেশি। মরণ নেশা সর্বনাশা মাদক ইয়াবার কারণে প্রচন্ড চটেছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ বিষয়ে কড়া ব্যবস্থা নিতে কক্সবাজারের বিশাল জনসভায় তিনি সরকার ও দল দুই পক্ষকেই নির্দেশ দিয়েছেন। এমন পরিস্থিতিতে সীমান্তের এই ভাগ্যবান আসনটিতে হঠাৎ অন্য একজনের নাম উঠে আসলে অবাক হওয়ার কিছুই থাকবে না।