উখিয়ায় মুরগীর বিষ্ঠার দুর্গন্ধে অতিষ্ঠ এলাকাবাসি : ইউএনও’কে অভিযোগ

logo-ovijog13.jpg

শফিক আজাদ,উখিয়া প্রতিনিধি।
উখিয়া উপজেলার রাজাপালং ইউনিয়নের পাতাবাড়ী শৈলেরডেবা গ্রামে মুরগীর খামারের দুর্গন্ধে অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে এলাকাবাসী। স্থানীয় মৃত বান্ডু বড়–য়ার ছেলে সুনীল বড়–য়া (৫৫) ৩বছর পুর্বে একটি মুরগীর খামার গড়ে তুলেছে। জনবসতি এলাকায় মুরগীর খামার করায় প্রতিবেশিরা মুরগীর বিষ্ঠার গন্ধে অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে। গত তিন বছর যাবত মারাত্মক দুর্গন্ধ সহ্য করে বসবাস করতে হচ্ছে ওই এলাকার বাসিন্দাদের। কোমলমতি শিশু কিশোররা ওই দুর্গন্ধের কারনে সকাল সন্ধ্যা বই নিয়ে বসতে পারছে না। ওই পথ দিয়ে স্কুলে যেতে চায়না। এমনকি খাবার খেতেও সমস্যা হচ্ছে স্থানীয় এলাকাবাসিদের। দুর্গন্ধ এড়াতে অনেকেই বাড়ি ছেড়ে দুরে অন্য বাড়ি ও গাছতলায় গিয়ে সময় কাটান। এ পর্যন্ত ওই খামারের দুর্গন্ধে একাধিক বয়োবৃদ্ধ সহ শিশু অসুস্থ হয়ে পড়েছে। এমনকি অনেকে ক্ষোভে সহিত অভিযোগ জানান, সম্প্রতি ক্যান্সারে প্রয়াত মাষ্টার জ্ঞানদর্শী বড়–য়া(৫০)এই বিষ্ঠার গন্ধের কারনে পরলোক গমন করেছে। এছাড়াও বর্তমানে আরো কয়েকজন ক্যান্সারের মতো মারাত্মক রোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে এরা হলেন-সাধন বড়ুয়া (৪৫) এবং অনুমদর্শী বড়–য়া (৪৫)।
স্থানীয় পাতাবাড়ী শৈলেরডেবা গ্রামের দানু বড়–য়া (৪৪) সাংবাদিকদের অভিযোগ করে বলেন, পাতাবাড়ী এবং শৈলের ডেবা এলাকায় দেশের ঐতিহ্যবাহী দুটি বড় বৌদ্ধ মন্দির ও একটি বিশাল ফুটবল খেলার মাঠ রয়েছে। যার ফলে মুরগীর বিষ্ঠা গুলোর দুর্গন্ধ যাতে ছড়িয়ে না যায় এজন্যে গর্তে ফেলার জন্য অনুরোধ করা হয়েছে। অথবা খামারটি জনবসতি এলাকার বাইরে স্থাপন করার অনুরোধ করলেও তিনি তা শোনেননি। পরবর্তীতে অতিষ্ঠ হয়ে আমরা এলাকাবাসি পক্ষে স্থানীয় দানু বড়–য়া, আবুল করিম, স্বপন বড়–য়া, কালিধন বড়ুয়া, সুজিত বড়ুয়া, সন্তোষ বড়–য়া, অনিল বড়–য়া, অজিত বড়–য়া,অশোক বড়–য়া, অপু বড়–য়া, আপেল বড়–য়া,রাজু বড়–য়া, রুপায়ন বড়–য়া, বাবুল বড়–য়া, বাপ্পা বড়–য়া, ধীরেন্দ্র বড়–য়া, জ্যোতিকল্যাণ ভিক্ষু সহ অর্ধশতাধিক লোকজন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার বরাবরে সোমবার একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছে। অভিযোগে সচেতন এলাকাবাসী জনস্বাস্থ্যের বিষয়টি বিবেচনা করে খামারটি অপসারনে প্রশাসনের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছে।
এব্যাপারে জানতে চাইলে উখিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ মাঈন উদ্দিন বলেন, লোকালয়ে মুরগীর খামার স্থাপন করা এমনিতে জনস্বাস্থ্যের জন্য হুমকি। তাই বিষয়টি জনস্বার্থে গুরুত্বসহকারে বিবেচনা করে অবশ্যই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।