বেনাপোলে বিজিবি সিও’র বিরুদ্ধে সাংবাদিক পেটানোর অভিযোগ

jessore-journalist-aziz-ass_54237_1501860775.jpg

: বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) ৪৯ ব্যাটালিয়ন কমান্ডিং অফিসার (সিও) লে. কর্নেল আরিফের বিরুদ্ধে বেনাপোল চেকপোস্টে ক্যাম্পে ডেকে আজিজুল হক নামের এক সাংবাদিককে পেটানোর অভিযোগ উঠেছে।

শুক্রবার বিকেলে এ ঘটনা ঘটে। তবে বিজিবি সিও এ অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

নির্যাতিত আজিজুল অনলাইন নিউজপোর্টাল বাংলানিউজের বেনাপোলের স্টাফ করেসপন্ডেন্ট।

আজিজুল হক জানিয়েছেন, ‘বেনাপোল সীমান্তে অরক্ষিত বাংলাদেশ প্রবেশ দ্বার’ শিরোনামে বাংলানিউজে বৃহস্পতিবার (৩ আগস্ট) খবর প্রকাশিত হয়। এতে চেকপোস্টে দুই দেশের নিরাপত্তার ধরণ তুলে ধরেন তিনি। ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী ও কাস্টমস কর্মকর্তারা ওপারের প্রবেশদ্বারে সার্বক্ষণিক দায়িত্ব পালন করলেও বাংলাদেশের প্রবেশদ্বারগুলো পাওয়া যায় সম্পূর্ণ অরক্ষিতভাবে।

বিজিবি সদস্যদের সেখানে নিরপত্তার দায়িত্বে থাকার কথা থাকলেও তারা ঠিকমতো দায়িত্ব পালন করেন না। এসব বিষয় ওই রিপোর্টে তুলে ধরা হয়।

রিপোর্ট প্রকাশ হলে ওইদিন (বৃহস্পতিবার) বিকালেই ক্যাম্প কমান্ডার আব্দুল ওয়াহাব তাকে সিও দেখা করতে বলেছেন বলে ডেকে পাঠান। এসময় আজিজ তার কাছে সব ধরনের তথ্য-প্রমাণ রয়েছে বললে পরে আবার দেখা করতে বলেন।

সে অনুযায়ী শুক্রবার (৪ আগস্ট) আইসিপি বিজিবি ক্যাম্পে অন্য একজন সাংবাদিকসহ গেলে তাকে চলে যেতে বলে আজিজকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে কিল-লাথি মারেন লে. কর্নেল আরিফ। পরে তুই-তোকারি করে চলে যেতে বললে চলে আসেন আজিজ। আজিজের শরীরে বুটের লাথির চিহ্ন, আঘাতের দাগ রয়েছে হাতেও।

জানতে চাইলে ৪৯ ব্যাটালিয়ন কমান্ডিং অফিসার (সিও) লে. কর্নেল আরিফ বলেন, মারপিটের অভিযোগ সঠিক নয়। আজিজুলকে ডেকে ভুল নিউজের বিষয়ে বুঝিয়ে বলা হয়েছে। তাদের সাংবাদিক সংগঠনের সভাপতিকেও ডাকা হয়েছিল। তারা এসে ভুল স্বীকার করেছে।

এদিকে নির্যাতনের ঘটনায় ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন বেনাপোল ও যশোরের সাংবাদিকরা।

বেনাপোলে কর্মরত সাংবাদিকরা এনিয়ে শুক্রবার সন্ধ্যায় অনানুষ্ঠানিক সভায় বসেছেন। তারা কর্মসূচি দেওয়ার ব্যাপারে আলোচনা করছেন।

নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন যশোর সাংবাদিক ইউনিয়নের (জেইউজে) সভাপতি সাজেদ রহমান ও হাবিবুর রহমান মিলন।